দেলদুয়ারে ব্রাশ শিল্পে বেকার যুবকদের স্বপ্ন পূরণ

প্রকাশিত : ৭ নভেম্বর, ২০১৭
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ 

ব্রাশ লিল্পে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার লাউহাটী ইউনিয়নের হেরেন্দ্রপাড়া গ্রামের অসংখ্য বেকার যুবকদের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। প্রায় ২৫০ পরিবারের ভাগ্যে বদলেছে এ শিল্পে। বেকারতের¡ অভিশাপ নিয়ে যারা দিন কাটাচ্ছিলো সেই সব বেকাররাই এখন স্বাবলম্বী হওয়ার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। নুন আনতে যাদের পানতা ফুরতো আর অভাব অনটন ছিল যাদের নিত্যসঙ্গী সেই সব পরিবারের মুখে এখন হাসির ফোয়ারা । হেরেন্দ্রপাড়া গ্রামের ভেতর প্রবেশ করলেই চোখে পড়বে ছোট বড় বেশ কয়েকটি ব্রাশ তৈরির কারখানা। যেখানে অসংখ্য বেকার যুবক গতর খাটানো উপার্জন দিয়ে তাদের পরিবারের মুখে অন্ন তুলে দিচ্ছেন। আর সেই সাথে বেকারত্বের অভিশাপ থেকেও মুক্তি পেয়েছেন তারা।


সরজমিনে কথা হয় কারখানার মালিক রোকন মোল্লার সাথে তিনি গণবিপ্লবকে জানান, ১০ বছর আগে থেকে আমি এ পেশায় জড়িত। ঘরে-বাইরে মিলে প্রায় ৪০ জন শ্রমিক বেকারত্ব থেকে মুক্তি পেয়েছে আমার ক্ষুদ্র কারখানা থেকে। আমার উৎপাদিত পণ্য ঢাকার চক বাজারে বিক্রি করি। মাসে ৬০-৭০ ক্রোশ ব্রাশ আমি বিক্রি করতে করি। আমার এখানে প্রতিটি শ্রমিক দিনে ৫শ’ টাকা করে আয় করতে পারেন। এছাড়াও রমজান, ফালু ও ইব্রাহিম মিয়ারও বাঁশ তৈরির কারখানায় অসংখ্য শ্রমিক কাজ করছেন। ছোট বড় মিলে প্রায় ৫টি ব্রাশ তৈরির কারখানা রয়েছে এখানে।
তিনি আরো জানান, সরকার নিম্নমুল্যে চায়নাদের কাছ থেকে পণ্য কিনছে। পুলিশ, র‌্যাব, সেনাবাহিনী ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের ব্রুট/জুতো পালিশ করার কাজে যে ব্রাশ ক্রয় করা হয় সরকার যদি সরাসরি এ অঞ্চলের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ক্রয় করেন তাহলে আমরা উপকৃত হবো।
ব্রাশ শিল্পের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতিটি ব্রাশে তাদের ১৮ টাকা লাভ হয়। এক ক্রোশ ব্রাশ তৈরিতে ১৪৪টি ব্রাশ লাগে। আর এক ক্রোশ বাশ্রের দাম ২৫শ’ থেকে ৩ হাজার টাকা। দিনে ৩শ’ টি ব্রাশ তৈরি করা যায়। আর ব্রাশ তৈরিতে উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয় চুল, গরুর বাইট,কাঠ, জিয়াই তার ও বার্নিশ।


ব্রাশ কারখানার আরেক মালিক আব্দুল মান্নানের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রায় ২০ বছর আগে কিশোর বয়সে অভাবের তারনায় যখন তার বাবা আর পরিবারের খরচ যোগাতে পারছিলেন না ঠিক তখনই জীবিকার সন্ধানে চলে যান ঢাকায়। চাকরি পান ব্রাশ তৈরির কারখানায়। দীর্ঘ ১৫ বছরের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে তিনি স্বপ্ন দেখেন নিজেই কারখানা তৈরি করবেন। কিন্তু শহরমুখী ব্যবসা তৈরি করতে অনেক অর্থের প্রয়োজন। যা তার ছিলনা। তাই সিদ্ধান্ত বদলে গ্রামে ফিরে শুরু করেন ব্রাশ তৈরির কারখানা। তিনি এখন শুধু নিজেই স্বাবলম্বী নন বরং পাল্টে দিয়েছেন পুরো গ্রামের চিত্র। গ্রামের প্রায় ২৫০টি পরিবার এখন এই ব্রাশ তৈরির শিল্পের সাথে জড়িত। স্থানীয় কাঁচামাল কদম কাঠ ও ঢাকার বিভিন্ন ট্যানারি থেকে গরু লেজের চুল সংগ্রহ করে নির্ধারিত প্যাটানে বার্নিশিং ফিনিশিং সহ কয়েকটি ধাপে তৈরি করা হয় বিভিন্ন ডিজাইনের ব্রাশ।


আব্দুল মান্নান আরও গণবিপ্লবকে জানান, অর্থের অভাবে সরাসরি বাজারজাত করতে পারছেন না তিনি। তার তৈরি পণ্যগুলো নামমাত্র মূল্যে গুলিস্থান, চকবাজারের বিভিন্ন ব্রাশ তৈরির কারখানায় বিক্রি করছেন। পরে তারা তাদের প্রতিষ্ঠানের লোগো লাগিয়ে সারা দেশে বাজারজাত করে। তবুও আব্দুল মান্নান এই ভেবে খুশি যে, তিনি শুধু তার নিজের ভাগ্যেরই পরিবর্তন করেননি বরং স্বাবলম্বী করে তুলেছেন দেলদুয়ার লাউহাটী ইউনিয়নের হেরেন্দ্রপাড়া গ্রামের অংসখ্য মানুষের।
ইব্রাহিম, সবুজ ও উজালা বেগম নামের তিন ব্রাশ শ্রমিক গণবিপ্লবকে জানান, আগের চেয়ে ভালোই চলছে তাদের জীবন। ক্রোশ অনুপাতে টাকা পেয়ে থাকেন তারা। মনযোগ সহকারে কাজ করলে দিনে তারা ৫শ’ টাকা করে আয় করতে পারেন। সরকারকে ব্রাশ শিল্পের উন্নয়নে এগিয়ে আসার জন্যও আহ্বান তাদের।
এ অঞ্চলের ব্রাশ শিল্পিদের দাবি, সরকার বিভিন্ন কুটির শিল্প প্রস্তুতকারকদেরকে সহজশর্তে ঋণসহ নানা আর্থিক সুবিধা দিয়ে থাকেন। কিন্তু তাদের এই কুটির শিল্পের বিষয়ে সরকারি কোন পৃষ্ঠপোষকতাই নেই। তাই, সরকার যদি সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেয় তাহলে শুধু হেরেন্দ্রপাড়া নয় বরং দেলদুয়ার উপজেলায় কয়েক হাজার লোকের কর্মসংস্থান তৈরি করা সম্ভব হবে বলেও দাবি তাদের।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ