ধনবাড়ীতে ভুল চিকিৎসায় প্রসুতির মৃত্যুর অভিযোগ

প্রকাশিত : ২১ জুলাই, ২০১৭
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

ধনবাড়ী সংবাদদাতাঃ

প্রতীকী ছবি

লাশ পোস্ট মর্টেম হবে, থানা পুলিশের ঝামেলা হবে, জানেনইতো বাঘে ছুঁলে এক ঘা, পুলিশে ছুঁলে ১৮ ঘা! যা হয়েছে ভাগ্যে ছিল, ভাগ্য মেনে নিতে হয়!
ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের এমন ভয় ধরানো কথায় দরিদ্র পরিবার ভুল চিকিৎসায় সিজারে সদ্য এক মেয়ে সন্তান প্রসব করা সুমি (২৩) নামের মারা যাওয়া মাকে কোন অভিযোগ না করেই দাফন করে ফেলেছে। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার পৌর শহরে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে। জামায়াত নেতা সাবেক উপজেলা আমির আব্দুর রহমান পরিচালিত স্থানীয় আবুসিনা ক্লিনিকে বৃহস্পতিবার (২০ জুলাই) বিকালে সুমি নামের ওই মায়ের সিজারে মেয়ে সন্তান জন্ম নেয়। কিন্তু ভুল চিকিৎসায় ওই সিজারে প্রচুর রক্ত ক্ষরণে মা সুমির মৃত্যু হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সুমি উপজেলার পৌর এলাকার বন্দ টাকুরিয়া গ্রামের দিনমজুর জহিরুল ইসলামের স্ত্রী। জহিরুল বিয়ের পর থেকে পৌর এলাকার ৭ নং ওয়ার্ডের ছত্রপুর গ্রামে শ্বশুর সহিদ মিস্ত্রির বাড়িতে ঘরজামাই থেকে দিন মজুরির কাজ করেন। তাদের ঘরে পঞ্চম শ্রেণি পড়–য়া একটি মেয়েও আছে।
জানা গেছে, দ্বিতীয় সন্তান প্রসবের পূর্বে বৃহস্পতিবার (২০ জুলাই) ধনবাড়ী পৌর শহরস্থ জামাত নেতা আব্দুর রহমান পরিচালিত আবুসিনা ক্লিনিকে ১০ হাজার টাকায় চুক্তিতে ডা. আব্দুর রহিম নামে গাইনী বিভাগের এক প্রশিক্ষিত চিকিৎসককে দিয়ে সিজার করানোর কথা হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ কুমিল্লার দাউ্দকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত মধুপুর উপজেলার বাসিন্দা শহিদুল ইসলাম খোকন নামের এনেসথেসিয়া (অজ্ঞানের ডাক্তার) দিয়ে সিজার করানো হয়। সিজারে ভুল হওয়ায় সুমির প্রচুর রক্তক্ষরণ হতে থাকে। অবস্থা বেগতিক দেখে বৃহস্পতিবার রাতেই ধনবাড়ী থেকে মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পথে সুমির মৃত্যু হয়।
এ ব্যাপারে গাইনী বিশেষজ্ঞ ডা আব্দুর রহিম জানান, তাকে দিয়ে করানোর কথা হয়েছিল কিন্তু পরে ক্লিনিক থেকে আর যোগাযোগ করা হয়নি।
শুক্রবার (২১ জুলাই) সুমির লাশ দাফন করা হয়েছে। শিশুটিকে পাশের এক নি:সন্তান পরিবারের কাছে দত্তক দেয়া হয়েছে।
এলাকার ইব্রাহিম নামের একজন জানান, তার ভাই কলেজ শিক্ষক হাবিবুর রহমানের মধ্যস্থতায় ক্লিনিকের পক্ষ থেকে কিছু আর্থিক সহায়তা প্রদানের শর্তে লাশ দাফনের ব্যবস্থা হয়েছে।
এদিকে ঘটনার পর থেকে ক্লিনিকের মালিক আব্দুর রহমানসহ কর্মচারীরা গা ঢাকা দিয়েছেন। আব্দুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করার জন্য বারবার তার ২টি মোবাইল ফোনে চেষ্টা করা হলেও তিনি সাড়া দেননি। তবে ক্লিনিকের ম্যানেজার মামুনুর রশিদ ওরফে খোকা মিয়া জানান, তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না। একমাত্র আব্দুর রহমানই এ বিষয়ে বলতে পারবেন।
ধনবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবর রহমান জানান, এ ব্যাপারে আমি কিছু জানিনা। আমাকে কেউ কিছু জানায়নি। তবে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
ধনবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মাহবুব আরেফিন রেজানুর বলেন, বিষয়টি এখনো আমাকে কেউ জানায়নি। আমি খোজ নিয়ে দেখবো চিকিৎসায় ভুল থাকলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ