প্রকাশকাল: ২ জুন, ২০১৮

নাগরপুরে ধর্ষিতার পরিবার কি বিচার পাবে?

গণবিপ্লব রিপোর্টঃ 

ঘটনা পেরিয়ে গেছে প্রায় ১১ দিন। স্থানীয় ইউপি সদস্য, চেয়ারম্যান থানা পুলিশ এবং কোন কর্তৃপক্ষ অসহায় পরিবারটির সহায়তায় এগিয়ে আসছেনা। শুধু একে অপরের উপর দায়িত্ব ছেরে দিয়েই যেন কাজ শেষ তাদের। আর ওদিকে নির্যাতিত পরিবারটি আত্মসম্মানের ভয়ে নিজেদের লুকিয়ে রাখছে।
জানা যায়, টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার ব্যাকরা আটগ্রাম ইউনিয়নের ভালকুটিয়া গ্রামের মধ্যপাড়ার বদিয়ার মিয়ার কন্যা আকলিমা (ছদ্মনাম) (১৫) পাটখড়ির বেড়ার একটি ভাঙ্গা ঘরে প্রতিদিনের মতো ঘুমাতে যায়। পাশের বাড়ির সদ্য এইচ.এস.সি পরীক্ষা শেষ করা সন্তো মোল্লার ছেলে রব্বানি (১৯) আকলিমার অজান্তে ঘরে প্রবেশ করে। জোর পূর্বক আকলিমার সাথে অনৈতিক কাজ করায় আকলিমা চিৎকার দিলে পাশের ঘরে শুয়ে থাকা তার বাবা-মা এসে রব্বানিকে হাতে নাতে আটক করে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২১ মে সোমবার রাত ১১ টার দিকে। পরে রব্বানিকে তারা ঘরে আটকে রেখে স্থানীয় ইউপি সদস্য রাজ্জাক মিয়াকে খবর দেয়। এসব তথ্য জানিয়েছেন নির্যাতিত পরিবারটি। আকলিমা আবু সাঈদ উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।
এ ব্যাপারে নির্যাতিত মেয়েটি জানায়, রব্বানি আমার সাথে জোর পূর্বক অসামাজিক কাজ করেছে। আমি চিৎকার দিলে আমার বাবা-মা এসে আমাকে তার হাত থেকে উদ্ধার করে। আমি রব্বানির বিচার চাই। এদিকে এ ঘটনাটিকে ধর্ষন হিসেবে দেখছেন না নাগরপুর থানার ওসি মাঈন উদ্দিন। তিনি মনে এটি একটি প্রেম জনিত ঘটনা।
রব্বানির অভিভাবকদের ডেকে নিয়ে আসলে কৌশলে রব্বানি ঘটনাস্থল থেকে পলায়ন করে। পরের দিন সকাল ৭ টায় স্থানীয় মাতাব্বররা ঘটনাটি পারিবারিক ভাবে মিমাংসার দিন ধার্য করে। কিন্তু ওই দিন বেলা ১২ টা পর্যন্ত মিমাংসা বৈঠকে কোন সমাধান না আসায় দুই পক্ষের মাতাব্বররা বৈঠক ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে আকলিমার বাবা বদিয়ার মিয়া নাগরপুর থানায় একটি সাধারন ডায়েরি করেন। বিবাদি পক্ষের লোকজন কালক্ষেপন করায় ঘটনার আজো কোন সমাধান হয়নি। বরং বিবাদি পক্ষের লোকজন অভিযুক্ত রব্বানিকে গুম করার অভিযোগ এনে তাদের ছেলেকে ফিরিয়ে দেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করছে। আত্মসম্মানের ভয়ে এলাকায় তারা নিজেদের লুকিয়ে রাখছে। শুধু তাই নয় গফুর মিয়া আওয়ামী লীগের প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাক মিয়া জানান, ঘটনাটি আমি শুনেছি। কিন্তু আসলেই কি হয়েছে তা আমি জানিনা। দুই পক্ষের লোকজন নিয়ে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেছি কিন্তু বিবাদি পক্ষের লোকজন তারা ছেলেকে খুঁজে পাচ্ছেনা এই অযুহাতে সমাধানের বিষয়টি এড়িয়ে যাচ্ছে।
মেয়েটির মা রেহেনা বেগম ও বাবা বদিয়ার জানান, আমরা গরিব বলে আমাদের পাশে কেউ দাঁড়াচ্ছে না। এ দেশে কি কোন আইন কানুন নাই ? আইন কি সব বড় লোকদের জন্য ? আমরা রব্বানির বিচার চাই। যাতে রব্বানির মতো ছেলেরা আর কোন মেয়ের ক্ষতি করতে না পারে।
এ ব্যাপারে নাগরপুর থানার ওসি মাঈন উদ্দিন জানান, এটা ধর্ষনের কোন বিষয় না। এটা প্রেম সম্পর্কিত। গ্রামঞ্চলে এ ধরনের ঘটনা ঘটেই থাকে। দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক থাকলে তাদের মধ্যে শারিরিক সম্পর্ক গড়ে উঠে। হঠাৎ করে কেউ দেখে ফেললে তখন এটা ধর্ষন বলে। কিছু দুষ্ট লোক থাকে যারা ব্যারিকেড দেয়ার চেষ্টা করে। তারা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেছে শুনেছিলাম। ছেলেটাকে যদি সঙ্গে সঙ্গে পেতাম তাহলে আমাদের কাজে লেগে যেতো। ছেলেটা পালিয়ে গেছে। আর এ ধরনের ঘটনায় থানায় তাৎক্ষনিক ইনফর্ম করতে হয়। তারা যেটা করছে সেটা আপোষে হইছে। দুই চারজন হয়তো দেখে ফেলছে। এলাকাবাসী তাই বলছে। আর এটাই সত্য। তারপরও আমরা ভালো কিছু করার চেষ্টা করছি দেখা যাক কি হয়।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ