নারী হচ্ছেন মাতৃফুল

প্রকাশিত : ২০ অক্টোবর, ২০১৭

পুরুষ দুনিয়ার কাজ করে। স্ত্রী ঘর সাজায়, স্বপ্নে বিভোর হয়ে সন্তানকে গড়ে তোলে। ইহজীবনে দু’জনের সমান অবদান।
নারীর অবদানের স্বীকৃতি দিতে, তার যথাযথ মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে বিশ্ব মানবতার পরম বন্ধু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.) উদ্যোগী হলেন। পরিবার, সমাজ এমনকি ইসলামপূর্ব ধর্মও যখন নারীকে মানুষ হিসেবে স্বীকৃতিটুকুও দেয়নি; বিশ্ব মানবতার কাছে হাজির হলেন তিনি। পবিত্র কোরআনুল কারিমে কিন্তু পুরুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় স্বতন্ত্র ‘সূরাতুর রিজাল’ বা পুরুষের সূরা নামে কোনো সূরা নেই, কিন্তু নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় ‘সূরা নিসা’ বা নারীর সূরা নামে পৃথক একটি সূরা আল্লাহ তাআলা নাজিল করেছেন।
হিন্দু নারীরা আজও বঞ্চিত উত্তরাধিকার সম্পত্তি থেকে। ১৮৮২ সলের ‘Married WomenÕs Property Act 1882’ এর আগে ব্রিটিশ আইনে নারীর সম্পত্তিতে ছিল না কোনো অধিকার। বিবাহপূর্ব সময়ে নারীর উপার্জিত সম্পদের মালিকানা বিয়ের সঙ্গে সঙ্গেই চলে যেত তার স্বামীর হাতে। ব্যক্তিগত পরিচয়ও ছিল না ইউরোপীয় নারীদের। স্বামীর পরিচয়ই ছিল তার একমাত্র ভরসা। কিন্তু এর তেরো শত বছর আগেই মরুভূমির প্রান্তে দাঁড়িয়ে পবিত্র কোরআন হাতে নিয়ে হজরত মুহাম্মাদ (সা.) সম্পত্তিতে নারীর অধিকারের কথা ঘোষণা করেছিলেন উচ্চ কণ্ঠে। তিনি ঘোষণা করেছেন, ‘পুরুষ যা অর্জন করে তা তার অংশ আর নারী যা অর্জন করে সেটি তার অংশ।’ (সূরা নিসা : ৩২)। তাই তো ভারতীয় উপমহাদেশের নারী জাগরণের পথিকৃত বেগম রোকেয়া বলেছেন, ‘জগতে যখনই মানুষ বেশি অত্যাচার-অনাচার করিয়াছে, তখনই এক-একজন পয়গম্বর আসিয়া দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালন করিয়াছেন। আরবে স্ত্রী জাতির প্রতি অধিক অত্যাচার হইতেছিল; আরববাসী কন্যা হত্যা করিতেছিল। তখন হজরত মুহাম্মাদ কন্যাকুলের রক্ষকস্বরূপ দন্ডায়মান হইয়াছিলেন। তিনি কেবল বিবিধ ব্যবস্থা দিয়েই ক্ষান্ত থাকেন নাই, স্বয়ং কন্যা পালন করিয়া আদর্শ দেখাইয়াছেন। তাহার জীবন ফাতেমাময় করিয়া দেখাইয়াছেন- কন্যা কিরূপ আদরণীয়া। সে আদর, সে স্নেহ জগতে অতুল। আহা! তিনি নাই বলিয়া আমাদের এ দুর্দশা।’ (অর্ধাঙ্গী, মতিচুর, প্রথম খন্ড-৪৮)।
ইমলাম নারীকে সব ধরনের অধিকার প্রদান করেছে। বিধান মেনেই নারী তার সব অধিকার আদায় করতে পারবে, কেন না ফুল কি পর্দার ভেতর থেকে খশবু ছড়ায় না। বেগম রোকেয়া বলেন, ‘উচ্চশিক্ষা প্রাপ্ত ভগ্নীদের সহিত দেখা-সাক্ষাৎ হইলে তাহারা প্রায়ই আমাকে বোরকা ছাড়িতে বলেন। বলি, উন্নতি জিনিসটা কী? তাহা কি কেবল বোরকার বাহিরেই থাকে? যদি তাই হয়, তবে কি বুঝিব যে, জেলেনী, চামারনী, ডুমুনী প্রভৃতি স্ত্রীলোক আমাদের অপেক্ষা অধিক উন্নতি লাভ করিয়াছে?’ (মতিচূর ১ম খন্ড, বোরকা : ৫৯-৬৩)। একবিংশ শতাব্দীতেও উচ্চশিক্ষা অর্জন করা যায়, তাও বহু নারী দেখিয়ে দিচ্ছেন, ‘নারীবাদী হয়েও কেন হিজাব ও বোরকা পরেন?’ এমন প্রশ্নের উত্তরে ইয়েমেনের বিশ্ববিখ্যাত নারীবাদী নেতা, নোবেল বিজয়ী তাওয়াক্কুল কারমান বলেছিলেন। আদিম যুগে মানুষ থাকত প্রায় নগ্ন হয়ে। তার বুদ্ধিমত্তার বিকাশ ঘটার সঙ্গে সঙ্গে সে পোশাক-পরিচ্ছদ পরতে শুরু করে। আজ আমি যা হয়েছি তা মানুষের অর্জিত ধ্যান-ধারণা এবং সভ্যতার সর্বোচ্চ পর্যায়, এটা পশ্চাদগামিতা নয়। পোশাক-পরিচ্ছদ অপসারণ সেই আদিম যুগে ফিরে যাওয়ার চেষ্টা। সেটিই পশ্চাদগামিতা।’ যারাই ভারসাম্যপূর্ণভাবে ইসলামকে মূল্যায়ন করার চেষ্টা করেছেন, তারা কেউই নারীর প্রতি ইসলামের আরোপিত বিধানগুলোকে পশ্চাদপদতা বা নারীর উন্নয়নের অন্তরায় মনে করতে পারেননি। এ সত্যকে অকপটে স্বীকার করতে গিয়ে অনেক ‘প্রগতিশীল নারীও ইসলামের ছায়ায় আশ্রয় নিয়েছেন। সৃষ্টি জগতে নারী হচ্ছেন মাতৃফুল। ঢাকনা খুলে এ ফুলের পাপড়ি ছড়িয়ে গেলে পৃথিবী একদিন মানবশূন্য হয়েও যেতে পারে। তাই মানবের স্বার্থেই নারী নামক মাতৃফুলকে পরিচর্যা করে তাকে তার গোপন সৌরভেই বেড়ে উঠতে দিতে হবে। লেখক : যুবায়ের আহমাদ, প্রাবন্ধিক

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া