নিহত অনিকের মায়ের কান্নায় কেঁদে দিলেন টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার

প্রকাশিত : ১৬ নভেম্বর, ২০১৬
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার:

awliabad

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার মো. মাহবুব আলম (পিপিএম) বলেছেন, পুলিশের বিরুধে কোন অভিযোগ থাকলে সরাসরি আমাকে জাবেন । আপনাদের জন্য ২৪ ঘণ্টা দরজা খোলা।
এ সময় পুলিশ সুপার বলেন, অনিক ও আল-আমিন হত্যার দ্রুত চার্জশিট প্রদান করা হবে। এ হত্যায় জারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হবে।

এ সময় পুলিশ সুপার আরও বলেন, কালিহাতীতে জুঙ্গীবাদ, নাশকতা, সন্ত্রাস, ইভটিজিং ও মাদক বেড়ে গেছে। এর জন্য কালিহাতীতে পুলিশের বিশেষ একটি টীম পাঠানো হবে। জন সচেতনতা বাড়ানোর জন্য কালিহাতীর প্রতিটা ইউনিয়নে কমিউনিটি পুলিশ ব্যবস্থা করা হবে।
মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) বিকালে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার আউলিয়াবাদ আলাউদ্দিন সিদ্দিকী মহাবিদ্যালয়ে জুঙ্গীবাদ, নাশকতা, সন্ত্রাস, ইভটিজিং ও মাদক বিরোধী মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

১২ নং নাগবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মাকসুদুর রহমান মিল্টন সিদ্দিকী সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) সৈকত শাহীন, কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু নাসার উদ্দিন, কালিহাতী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ তোতা, কালিহাতী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মিজানুর রহমান মজনু, আলাউদ্দিন সিদ্দিকী মহাবিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবুল কাশেম প্রমুখ। মতবিনিময় সভায় নিহত অনিকের মায়ের কান্না জড়িত কণ্ঠে বক্তব্য শুনে পুলিশ সুপার নিজেও কেঁদে ফেলেন। অনিক ও আল-আমিন হত্যার সুষ্ঠ বিচার দাবি করেন এলাকাবাসী। সভায় নিহত আল আমিন ও অনিকের পরিবারের সদস্যসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, সোমবার (২৪ অক্টোবর) সকাল ১১ টায় আল আমিন ও চাঁন মাহমুদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হওয়ার এক পর্যায়ে প্রকাশ্য দিবালোকে চাঁন মাহমুদ ধারালো অস্ত্র দিয়ে আল আমিনকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। আল-আমিন উপজেলার আউলিবাদের আলাউদ্দিন সিদ্দিকী মহাবিদ্যালয়ের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ