পাকির চেয়ারম্যান’র বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

প্রকাশিত : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ছবি : হাজী চান মাহমুদ পাকির, ফাইল ফটো

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার ৯ নং বল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী চান মাহমুদ পাকিরের রিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিবেদকের কাছে তার সকল দুর্নীতির তথ্য এসেছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবত বল্লা করোনেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিংবডির সভাপতি থাকার সুবাধে নিয়ম বহির্ভুত কাজ করেই যাচ্ছেন। প্রতিষ্ঠানের ৭০/৮০ টি মেহগনি, আকাশমনি. ইউক্লিটাস গাছসহ বিভিন্ন ধরনের গাছ টেন্ডার ছাড়াই বিক্রয় করেছে। কিছুদিন আগেই সরকারি ১ তলা ভবনে যেখানে বিদ্যুৎ অফিস ছিলো। সেই ভবনটিও কোন প্রকার টেন্ডার ছাড়াই বিক্রয় করেছেন। বল্লা করোনেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রায় ২৫০ টি দোকান রয়েছে। প্রতিটি দোকান থেকে বৎসরে ১৮ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা ভাড়া আসে। প্রতিষ্ঠানে বৎসরে কোটি টাকা আয় হলেও তার কোন হিসেব নেই। নামে মাত্র অডিট করেই কোটি টাকা হজম করে ফেলছে। বল্লা বাজারের ব্রীজ এর পাশেই সরকারি জায়গায় অসহায় মানুষের বসবাস থাকলেও, পাকির চেয়ারম্যানের দাপটে ওই মানুষেরা জায়গা ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। পরে সেই ১৫/১৬ ডিসিমেল জায়গায় পাকির চেয়ারম্যান ৪র্থ তলা ভবন নির্মান করে সূতা ব্যবসার কারখানা বানিয়েছেন। বর্তমান বাজার মূল্যে ওই জায়গার দাম ৩ থেকে সাড়ে ৩ কোটি টাকা হবে। ১৫-১৬ অর্থ বছরের তাত বোর্ড থেকে তাঁতীদের জন্য যে সূতা এসেছিলো। চেয়ারম্যান বল্লা হাজী চান মাহমুদ পাকির নিজেই সভাপতি থেকে কোন তাতীকে সূতা না দিয়ে নিজেই সব সূতা বিক্রয় করে পকেট ভারি করেছেন। এই সূতার কথা কোন তাতীকেই জানায়নি এমন কি কোন মাষ্টাররোলও করে অফিসে জমাও দেয়নি। জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিটি ইউনিয়নের উন্নয়ের জন্য যে সকল প্রকল্পে টাকা বরাদ্দ করেছেন। সেই সব প্রকল্পের বেশ কটি প্রকল্পের কোন কাজ না করেই প্রকল্পের টাকাও আত্নসাত করেছেন বলে স্থানীয়রা জানান। ( চলবে )।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া