পুলিশের ভালো কাজগুলো নজরে আসে না!

প্রকাশিত : ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

মো. আল-আমিন খানঃ


পুলিশ সাধারণ মানুষের সবচেয়ে কাছের বন্ধু। সমাজের শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রেখে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছানোর মাধ্যম শুধু পুলিশেরই আছে। কিন্তু বিভিন্ন সময় কিছু পুলিশের বিকৃত কাজে অনেক ক্ষেত্রেই পুলিশ নামটি সাধারণ মানুষের কাছে বন্ধুর পরিবর্তে আতঙ্কে পরিণত হচ্ছে।
গতবছর বিএনপি-জামায়াত-শিবির ও জঙ্গিদের অবরোধের নামে টানা ৯৩ দিনের যে, জ্বালাও পোড়াও, পেট্টোলবোমার অগ্নিসন্ত্রাসে ১২০ জনের মতো মানুষকে জ্যন্ত পুড়িয়ে মারার যে নৃশংস খেলায় মেতে ওঠেছিল তা কিন্তু কয়েকজন সহকর্মীর জীবনের বিনিময়ে পুলিশই রুখে দিয়েছিল। পুলিশের তৎপরতার জঙ্গিগোষ্ঠী বাংলাদেশে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারছে না। তাই পুলিশের ওপর তাদের এত আক্রোশ।
গুলশানের হলি অর্টিজান হোটেলে প্রায় ৫০ জন নিরপরাধ দেশি-বিদেশীকে জিম্মি করে বাংলাদেশী তিনজনসহ যে ২৮ জনের প্রাণ কেড়ে নেয়া হলো তা প্রতিরোধেই কিন্তু জঙ্গীদের গ্রেনেড- বোমার স্প্রিন্টারের আঘাতে প্রথমেই গুরুতর আহত ও পরে নিহত হন ডিবির সহকারি কমিশনার (এসি) রবিউল ইসলাম, বনানী থানার অফিসার ইনচার্জ সালাউদ্দিন।
এদিকে বহুল আলোচিত দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত ফরিদপুরের পুলিশ সুপার সুভাষ চন্দ্র সাহা। তিনি একসময় কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এই আলোচিত পুলিশ সুপার সুভাস চন্দ্র সাহা ক্ষমতার অপব্যবহার, অনিয়ম আর দুর্নীতির মাধ্যমে কুষ্টিয়ায় বিপুল পরিমাণ সম্পদ অর্জন করেন। এ সম্পদ তার স্ত্রী রীনা সাহার নামে দলিল করেন তিনি। দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত ফরিদপুরের পুলিশ সুপার সুভাষ চন্দ্র সাহাকে গত ২২ অক্টোবর প্রত্যাহার করে ঢাকায় পুলিশ সদর দপ্তরে ডেকে পাঠানো হয়। সুভাষ চন্দ্র সাহার কোথায় তার এতো টাকার উৎস এবং এতো বড় দুর্নীতিবাজ হওয়ার পরও সুভাষ চন্দ্র সাহার পিপিএম পদক কিভাবে পেলেন এনিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। পিপিএম পদক প্রদানের সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে এমন দুর্নীতিগ্রস্থ্যের ছবি বেমানান।
পুলিশের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ এতোটাই প্রকট আকার ধারণ করেছে, যাতে দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি জনগণের এক ধরনের ভিন্ন প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। যা আধুনিক চিন্তা চেতনার আদলে গঠিত কমিউনিটি পুলিশিং এর মূলনীতির সাথেও পরস্পর সাংঘর্ষিক।
রাজধানীর মৎস ভবনের মোড়ে মানবজমিনের ফটো সাংবাদিক সহকর্মী মো. নাছির উদ্দিনের মোটরসাইকেলের হেলমেট না থাকার অভিযোগে সার্জেন্ট মুস্তাইনের হাতে লাঞ্ছিত ও নিপীড়নের শিকারসহ তাকে শারীরিকভাবে আঘাত করা, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট মাহবুব আলম রাস্তা থেকে গাড়ি আটক করে থানায় এনে কখনও তা বিক্রি, আবার কখনও গাড়ির যন্ত্রাংশ বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ এবং কক্সবাজারের টেকনাফের এক ব্যবসায়ীকে অপহরণ ও মুক্তিপণ নিয়ে ছেড়ে দেয়ার পর ১৭ লাখ টাকাসহ গোয়েন্দা পুলিশের সাত সদস্য সেনাবাহিনীর হাতে ধরা পড়ার নিউজ লাইন ধরে ধরে স্যোশাল মিডিয়া থেকে মূল গণমাধ্যমেও যেভাবে সমালোচনা হয়েছে, তা সত্যিই ভীতিকর ও এই বাহিনীর ভাবমূর্তি অনেকাংশে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বলে প্রতীয়মান।
টাঙ্গাইল জেলা কারাগার ও হাজরা ঘাট নামক এলাকা যা পূর্বে জরাজীর্ন এবং মাদকের আকড়া হিসেবে পরিচিত ছিল। সেখানে বর্তমান পুলিশ সুপার মাহবুব আলম (পিপিএম) নিজের পরিকল্পনায় গড়ে তোলেছেন নিরাপদ দৃষ্টিনন্দন পার্ক। এখানে সাধারণ মানুষ বিনামূল্যে বিনোদন উপভোগ করতে পারছে। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিনোদনপ্রিয় মানুষের ভিড় জমাচ্ছে এসপি পার্কে। কঠোর শৃঙ্খলার সুবাদে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা মানুষ নিশ্চিন্তে ঘুরে বেড়াচ্ছে এখানে। সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবারে এখানে বাড়ছে বিনোদন প্রিয় মানুষের ভিড়। সাজানো হয়েছে রঙিন সাজে। দুই পাশে লাগানো হয়েছে রঙিন বাতি। রাতের রঙিন আলোয় পার্কের দৃশ্য শহরবাসীকে মুগ্ধ করছে, প্রসংশীত হচ্ছে পুলিশের সৃজনশীলতা।
২০১৬ সালে কিশোরগঞ্জ শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠে জঙ্গিদের বর্বরতার ঘটনা ভুলে যাওয়ার নয়। সেখানে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের ওপর বোমা হামলা এবং গোলাগুলিতে দুই কনস্টেবলসহ চারজন নিহত হয়েছেন। স্যোশাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। ঠিক যেন হলিউডের কোনো অ্যাকশন সিনেমার দৃশ্য। ভিডিওটিতে দেখা যায়, ছয়জন বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ও হেলমেট পরা পুলিশ সদস্যকে পেছনে রেখে নীল পাঞ্জাবি ও জিন্স প্যান্ট পরিহিত এক পুলিশ কর্মকর্তা চায়নিজ রাইফেল হাতে ঘটনাস্থলের মুফতি মোহাম্মদ আলী (রহ.) জামে মসজিদ অতিক্রম করছেন।
তিনজন পুলিশ সদস্যকে কাভারে রেখে মসজিদের পরের বাসাটির গেইটের সীমানা প্রাচীরকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে সন্ত্রাসীদের উদ্দেশে একের পর এক গুলি ছুড়ছেন। গেইটের ভেতরে কিছুটা ঝুঁকে তাকে টার্গেট করে ছোড়া সন্ত্রাসীদের পাল্টা গুলি থেকে গা বাঁচাচ্ছেন। এর মধ্যে কয়েকটি গুলি বিপজ্জনকভাবে তার সামনে এসে পড়ে। এরপরও ঝুঁকি নিয়ে তিনি সমানে চালিয়ে যান এই বন্দুকযুদ্ধ।
শোলাকিয়া ঈদগাহে জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে অসীম সাহসিকতার সঙ্গে নেতৃত্ব দেয়া পুলিশ কর্মকর্তার নাম মো. মোর্শেদ জামান। জঙ্গি সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও ঈদগাহে আগত মুসল্লিদের জানমালের নিরাপত্তা বিধানে দুই ঘণ্টার এই অভিযানে পুলিশ যে ৬৭২ রাউন্ড গুলি ব্যবহার করে এর মধ্যে কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী এই পুলিশ কর্মকর্তা একাই তখন ছোড়েন প্রায় ১০০ রাউন্ড গুলি।
মসজিদের অজুখানায় ঢুকিয়ে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে-কুপিয়ে নিমর্মভাবে এক পুলিশ সদস্যকে হত্যা, গোলাগুলির মধ্যে নিজের বাড়ির ভেতরে অদ্ভুদভাবে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঝর্ণা রানী ভৌমিক নামে গৃহবধূর মৃত্যু।
বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ও হেলমেটবিহীন পুলিশ কর্মকর্তা মোর্শেদ জামান যে বাসাটির গেইটের সীমানা প্রাচীরকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে সন্ত্রাসীদের উদ্দেশে একের পর এক গুলি ছুড়েছেন।
পুলিশ কর্মকর্তা মোর্শেদ জামানের দূর্দান্ত সাহসিকতা, অভিজ্ঞতা এবং নিজের প্রতি কমিটমেন্টের কারণে সেদিন লক্ষ-লক্ষ মুসল্লি প্রাণে বেঁচে গিয়েছিলেন। শোলাকিয়া ঈদগাহে সন্ত্রাসীদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে জীবনবাজি রেখে লড়েন পুলিশের এই কর্মকর্তা। মোর্শেদ গণমাধ্যমে জানায়, পরিস্থিতি এতোটাই জটিল ও জঙ্গিদের অতি নিকটে ঈদগাহ ছিল; তখন শুধু মুসল্লিদের কথা চিন্তা করেছি। নিজের কথা চিন্তা করার সময় পাইনি। তাই বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ও হেলমেট পড়ার কথাও মনে ছিল না।
যদিও সমাজে এক প্রকার ধারনা আছে সাংবাদিক-পুলিশ একে অপরের শত্রু। কিন্তু এ বিষয়টি পুরোপুরি মিথ্যা আমার কাছে। টাঙ্গাইল জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান টিটু বয়সে আমার বড়। আমি তাকে ভাই বলেই সম্বোধন করি। এইতো সেদিন একসাথে বাড়িতে ফিরছিলাম। তিনি আমাকে বললেন আল-আমিন তোমার কি সময় আছে? আমি বললাম হ্যাঁ ভাই আছে। তাহলে চল একটু জেনারেল হাসপাতাল দিয়ে ঘুরে আসি। নিয়ে গেলেন শিশু বিভাগে। সেখানে একজন দরিদ্র পরিবার ঘরে জন্ম নেয়া ফুটফুটে শিশু সন্তানটির নিওমেনিয়া ও ডাইরিয়া রোগে আক্রাত হয়েছে। ছেলেটিকে দেখলেন এবং শিশুটির বাবাকে কিছু টাকা দিয়ে সহযোগিতা করলেন। সিস্টারদেরও বলে আসলেন তাদের প্রতি একটু খেয়াল রাখতে। ইতিমধ্যে গণমাধ্যমে আব্দুল্লাহ নামের এক ছেলেকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। প্রশংসনীয় কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ ২০১৭ সালে বাংলাদেশ পুলিশ প্রধানের কাছ থেকে আইজি’জ ব্যাজ বাবদ প্রাপ্ত অর্থ থেকে কিছু অর্থ দিয়ে টাঙ্গাইল পৌরসভার পশ্চিম আকুর টাকুর পাড়া এলাকার বার বছরের ওই প্রতিবন্ধী শিশুকে হুইল চেয়ার কিনে সহযোগীতা করেন টিটু ভাই। একই এলাকার আরেকটি শিশুকেও হুইল চেয়ার কিনে দেন।
ভূঞাপুর উপজেলার গোবিন্দাসী বাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী সুদেব কর্মকার নিজ বাড়িতে অজ্ঞাত ডাকাতদের হাতে খুন হয়। থানা পুলিশ রহস্য উদঘাটনে ব্যর্থ হলে। আদালত মামলাটি জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে হস্তান্তর করেন। ক্লু-বিহীন মামলাটির রহস্য উদঘাটন করেন তিনি।
সখীপুর উপজেলার ছোট চওনা পানিয়ার বাইদ গ্রামের নিহত রওশন আরা বেগমের ছেলে আবদুর রশিদ ও মেয়ের জামাই আবু সাইদ বিনা দোষে আড়াই মাস জেলের ঘানি টেনেছেন। অবশেষে জেলা কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান। নিহতের ভাগ্নে শফিকুল ইসলাম শফিকে গ্রেপ্তার করলে আদালতে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন।
আকুর টাকুর পাড়া এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে শিশু পাচারকারীসহ পাঁচ শিশুকে উদ্ধার করেন।
সখীপুরে কলেজের এক ছাত্রীকে আসামী বাদল ছয় মাস পরিত্যাক্ত ঘরে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। ব্যাপক আলোচনা সমালোচনায় আসামী গ্রেপ্তারে ব্যর্থ হওয়ায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে দায়িত্ব দিলে এসআই আসাদুজ্জামান টিটু দ্রুত সময়ের মধ্যে ধর্ষক বাদলকে গ্রেপ্তার করেন।
অস্ত্রের মুখে রবিউল ইসলাম নামের এক অপহৃত টাঙ্গাইল সদর উপজেলার আশেকপুর বাইপাস এলাকা থেকে পরিবারের সদস্য সেজে অভিনব কায়দায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উদ্ধার করেন। এসময় ৬ রাউন্ড গুলি ও লোডে অবস্থায় একটি পিস্তলসহ অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার করেন।
রাজনৈতিক নিরপেক্ষ সাহসী এই অফিসারের দায়ের করা অস্ত্র মামলায় ১৫ নভেম্বর ২০১৭ গোপালপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সুরুজের ১৭ বছরের সশ্রম কারাদন্ড হয়েছে। তার দাখিলকৃত চার্জশীট অনুযায়ী ১৬ নভেম্বর ২০১৭ সরকারি ভিজিএফ চাল চুরি এবং কালোবাজারে বিক্রয়ের দায়ে মির্জাপুর উপজেলার ৬নং আনাইতারা ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ইঞ্জি. জাহাঙ্গীর আলম সহ পাঁচজন ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি হয়েছে।
এতো-এতো সমালোচনার মাঝেও পুলিশ বাহিনীর কিছু কর্মকর্তা অসাধারণ কিছু কর্মকান্ড জাতিকে বার বার উপহার দিয়ে যাচ্ছে। কুমিল্লা দাউদকান্দি হাইওয়ে থানা-পুলিশের কনস্টেবল মো. পারভেজ মিয়ার সাহসী ভূমিকার কথা ভুলে যাবার নয়। ঢাকা থেকে চাঁদপুরের মতলবগামী একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ডোবায় পড়ে যায়। কুমিল্লা দাউদকান্দি উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ডের পাশে ট্রাফিক সামলাতে ব্যস্ত পারভেজ মিয়া হঠাৎ দেখতে পান অদদূরেই সড়ক ঘেঁষা ডোবায় যাত্রী নিয়ে একটি বাস উল্টে পড়ে গেছে।
সময় নষ্ট বা নিজের ব্যাপারে চিস্তা-ভাবনা না করে পুলিশ কনস্টেবল মো. পারভেজ মিয়া নেমে পড়েন পচা ও দুর্গন্ধে ভরা ডোবার পানিতে। তখন অনেকেই দেখেও পঁচা ও দুর্গন্ধযুক্ত পানিতে নেমে যাত্রীদের উদ্ধারের জন্য এগিয়ে না আসলেও পুলিশ পারভেজ কিন্তু ঠিকই রীতিমত জীবেনের ঝুকিঁ লাফিয়ে নেমে তার হাতের ইট দিয়ে প্রথমে বাসটির জানালার কাচ ভাঙেন। ডোবার পানিতে ডুবে থাকা বাসের ভেতরে প্রবেশ করেন। এরপর ভেতরে আটকেপড়া যাত্রীদের উদ্ধার শুরু করেন।
বাসে থাকা ৪০ জন যাত্রীর মধ্যে পুলিশ পারভেজ মিয়া তার বুদ্ধিমত্তা ও অদম্য সাহস নিয়ে ২৬ জন যাত্রীকে উদ্ধার করেন। শুধু তাই নয়, কোনো ধরনের ক্ষতি ছাড়াই কুমিল্লার মতলব দক্ষিণ উপজেলার বাখরপাড়া গ্রামের ফারুক মিয়া ও রিনা আক্তারের তিন মাসের ছেলে রাইয়ান, রাইয়ানের চার বছরের ভাই রিহাব, সাত বছরের বোন ফারজানা, আট বছরের সুমাইয়া ও ১০ বছরের সোনিয়াকেও উদ্ধার করেন।
এদিকে বাড্ডা থানার এসআই নির্মল কুমার আগরওয়াল তার একক প্রচেষ্টায় আরেকটি অসাধারণ কাজ করে শুধু একজন মা’কেই তার বুকের ধন ফিরিয়ে দেয়নি; বরং পুরো জাতিকে সচেতন হওয়ার জন্য বার্তাও দিয়েছেন।
গত ২৬ অক্টোবর জান্নাত নামের ১০ মাস বয়সী এক শিশু বাড্ডা এলাকার এক বাসা থেকে চুরি হয়ে যায়। শিশুর মায়ের মর্মস্পর্শী কান্না সেদিন সব পুলিশের সাথে এসআই নির্মলকেও বিচলিত করে তুলেছিল। তিনি মনে মনে পণ করেছিলেন, শিশুটিকে উদ্ধার করতে তার মেধা-শ্রম ও অভিজ্ঞতার সর্বোচ্চটুকু প্রয়োগ করবেন। তাই সম্পূর্ণ একক প্রচেষ্টায় টানা ছয় দিন বিভিন্ন রাস্তায় আর বস্তির অলি-গলি তন্ন তন্ন অর্থাৎ রীতিমত অনুবিক্ষণ যন্ত্র দিয়ে সার্চ করার মতন অবস্থান তৈরি করে অবশেষে ১ নভেম্বর রাজধানীর কড়াইল বস্তি থেকে শিশু জান্নাতকে উদ্ধার করেন।
ঐদিকে কিশোরগঞ্জ ওসি (তদন্ত) মো. মোর্শেদ জামান তার দুঃসাহসী পদক্ষেপ আর অভিজ্ঞতা দিয়ে জঙ্গি অভিযানে সাহসিকতাপূর্ণ ভূমিকা আর এদিকে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার মাহবুব আলম (পিএিম), জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক এসআই আসাদুজ্জামান টিটু ও কুমিল্লা দাউদকান্দি হাইওয়ে থানা-পুলিশের কনস্টেবল মো. পারভেজ মিয়া এবং রাজধানীর বাড্ডা থানার এসআই নির্মল কুমার আগরওয়ালের অর্জন পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। আস্থা আর ভালোবাসার জায়গায় এই ধরনের পুলিশ কর্মকর্তাকে জাতি সম্মান-শ্রদ্ধা জানাতেও ভুল করে না। বিশ্বাস ফিরে পায়।
একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জঙ্গি তৎপরতা যেখানে মহামারি আকার ধারণ করেছে, সেখানে বাংলাদেশ তা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছে। তার অবদান দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর। শত প্রতিকূলতার মাঝেও পুলিশ বাহিনীর অর্জন উল্লেখযোগ্য। এই পুলিশ বাহিনীর ইতিহাস-ঐতিহ্য গৌরবের। সম্মান আর মর্যাদার। কারণ মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ করেছিলেন এই পুলিশ সদস্যরাই। ২৫ মার্চের সেই কালো রাতে পাক হানাদার বাহিনীর হামলা প্রতিরোধ করতে গিয়ে রাজারবাগসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের শতাধিক সদস্য শহীদ হয়েছিলেন। রাজারবাগসহ দেশের বিভিন্নস্থানে প্রায় ১৪ হাজার পুলিশ সদস্য মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলেন। এদের মধ্যে শহীদ হয়েছিলেন ৭৩৯ জন পুলিশ সদস্য।
আমাদের মনে রাখা উচিত, এক ব্যক্তির ভালো কর্মকান্ড দিয়ে যেমন পুরো জাতিকে মুল্যায়ন করা বোকামি আবার তেমনি এক ব্যক্তি পুলিশ কর্মকর্তার অপরাধের দায়ভার পুরো পুলিশ বাহিনীর উপর চাপিয়ে দেয়াও এক ধরনের অপরাধ।
পুলিশের পোশাক, প্রশিক্ষণ থেকে শুরু করে সকল আইন কানুন এক হলেও পুলিশের পোশাকের ব্যক্তি একেক জন একেক রকম। পরিবার, শিক্ষা, পরিবেশ-পরিস্থিতি এবং সর্বপোরি রাজনৈতিক অপশক্তি অনেক সময় একজন ভালো পুলিশ কর্মকর্তাকেও তার নিজের ন্যায়-নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে বাধ্য করে, যা আমাদের জন্য লজ্জার এবং এর দায়ভার আমাদের।
তারপরেও অনাকাক্সিক্ষত ও পরিকল্পিতভাবে ব্যক্তি পুলিশ কর্মকর্তার অপরাধে সাময়িক বহিষ্কার, বদলি বা লঘু শাস্তি প্রদান করা থেকে পুলিশ বাহিনীকে বেরিয়ে আসতে হবে।
অপরাধের প্রাপ্য শাস্তি নিশ্চিত করার মাধ্যমে অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তাদের যেমন শাস্তির কঠোর বার্তা দেয়া প্রয়োজন, তেমনিভাবে সমাজ-রাষ্ট্রে বিশেষ বিশেষ অবদানের জন্য পুলিশ কর্মকর্তাদেরও যথাযথ সম্মান ও পুরস্কারে ভূষিত করার মাধ্যমে অন্যদের অনুপ্রাণীত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা উচিত।
লেখকঃ সংবাদকর্মী

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ