প্রকাশকাল: ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৭

ফুটবলই রুমার ধ্যান-জ্ঞান স্বপ্ন

স্টাফ রিপোর্টার:

মাঠে ফুটবল দেখলেই বলের কাছে ছুটে যায়। নিজেকে কোনভাবেই স্থির করতে পারে না। মন চায় বল নিয়ে খেলার মাঠে খেলোয়াড়দের ফাঁকি দিয়ে ছোট ছোট পাস দিয়ে স্টাইকারের কাছে বল দিতে। তাঁর পাসেই গোল দিবে স্টাইকার। ফুটবলকে ঘিরে অনেক বড় স্বপ্ন রুমা আক্তারের। বড় হয়ে জাতীয় ফুটবল দলের হয়ে দেশের জন্য কিছু একটা করার ইচ্ছা তাঁর ছোট বেলা থেকেই। ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে অনেক আশাও রয়েছে তাঁর এই ছোট্ট মনে। পড়ালেখা শেষ করে ফুটবল নিয়েই বাঁচতে চায় রুমা। পরিবারিক অসচ্ছলতায়ও হার মানাতে পারেনি তাঁকে। আর একদিন সেই সুযোগও পায় রুমা। কিন্তু বড় ধরনের ইনজুরি ও আর্থিক অসচ্ছলতার কারনে স্বপ্ন পূরণের কাল হয়ে দাঁড়ায় রুমা আক্তারের।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার আব্দুল জলিলের মেয়ে রুমা আক্তার। দুই বোন, এক ভাই ও মা-বাবা নিয়ে ছোট্ট একটি কুঁড়ে ঘরে তাদের বসবাস। তাদের পরিবারের ভাই-বোনের মধ্যে রুমা মেঝ। ছোট বেলা থেকেই ফুটবল নিয়ে অনেক আশা তাঁর। সে স্কুলে লেখাপড়া অবস্থায় ফুটবলের সাথে জড়িয়ে পড়ে। স্কুল দলের হয়ে খেলতে থাকে বিভিন্ন টাঙ্গাইলের বিভিন্ন উপজেলায়। এতে সে সফলতাও পায় অনেক। ফুটবল কোচ গোলাম রায়হান বাপনের হাত ধরে রুমার স্বপ্নপূরণ হতে থাকে। বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্ট থেকে জাতীয় পর্যায়ে খেলার সুযোগ পায় রুমা। এরপর আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি রুমা আক্তারকে। বিগত ২০১৪ সালে জাতীয় মহিলা ফুটবল দল অনুর্দ্ধ-১৬ ও বিগত ২০১৫ সালে অনুর্দ্ধ-১৪ বয়সের হয়ে নেপালসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় খেলার সুযোগ পায় সে। এতে ব্যাপক সফলতাও পায় রুমা ও তার দল।
টাঙ্গাইলের মেয়ে হয়ে দেশ ও বিদেশে সুনাম অর্জনের কারণে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন থেকে দেয়া হয় সংর্বধনা। পরবর্তীতে অনুর্দ্ধ-১৫ এর হয়ে ২০১৬-১৭ সালের জন্য খেলতে যায় রুমা। কিন্তু খেলার আগেই অনুশীলনের সময় বল রিসিপ করতে গিয়ে পায়ে বল লেগে ইনজুরিতে পড়তে হয় তাঁকে। এরপর দল থেকে ছিটকে পড়ে রুমা। বেশ কয়েক মাস চিকিৎসা ও বিশ্রাম নেয়ার পরেও স্বাভাবিকভাবে খেলতে না পারায় চলে আসতে হয় বাড়িতে। তবে সু-চিকিৎসা ও আর্থিকভাবে সহযোগিতা পেলে আবার জাতীয় দলে ফিরতে পারবে রুমা। চিকিৎসকরা সে আশ্বাস দিয়েছে তাঁর পরিবারকে।
বাবা আব্দুল জলিল বলেন, আমরা সব সময় মেয়ের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়েছি। মেয়ে ফুটবল নিয়ে থাকতে চেয়েছে তাকে কিছু বলিনি। এই সংসারে আমি ছাড়া কাজ করার মতো আর কেউ নেই। অনেক কষ্ট করে মেয়েকে লেখাপড়া করিয়েছি। এখন তো আর চলছে না, অনেক কষ্টে চলছি। আগে মেয়ে খেলাধুলা করতো ওর নিজের খরচ নিজেই চালাতে পারতো। কিন্তু পায়ে ব্যথা পাওয়ার পর অনেক দিন ধরে বাড়িতে আছে। সঠিকভাবে চিকিৎসা করালে আবার মাঠে ফুটবল খেলতে পারবে। রুমা পড়া শোনাতেও অনেক ভালো। কিন্তু টাকার অভাবে পড়াতে পারছি না। কেউ যদি আমাদের পাশে দাঁড়াতো তাহলে ওর স্বপ্নপূরণ হতো। রুমা যখন দেশের হয়ে খেলতো তখন টাঙ্গাইলের সাবেক জেলা প্রশাসক মাহবুব হোসেন পড়ালেখার জন্য প্রতি মাসে কিছু টাকা দেয়ার কথা দিয়েছিলেন। কিন্তু এক মাসের টাকা পাওয়ার পর আর সে টাকা পাইনি। জেলা প্রশাসন থেকে যদি ওর লেখাপড়ার খরচটাও দিতো তাহলে অনেক ভালো হতো।
রুমার মা হাজেরা বেগম বলেন, আমরা অনেক কষ্টে থাকি। কেউ দেখতেও আসে না। আমার মেয়ে যখন ফুটবল খেলতো তখন অনেক মানুষ আসতো। কিন্তু আমাগো ভাগ্যই খারাপ মেয়েটা ফুটবল খেলতে পারছে না।
স্বপ্নবাজ ফুটবল খেলোয়োড় রুমা আক্তার বলেন, আমি পড়ালেখার পাশাপাশি ফুটবল খেলা নিয়ে ব্যস্ত থাকতাম। স্কুলের স্যাররা, সহপাঠিরা, আমার কোচ বাপন স্যার আমাকে অনেক সাহায্য করেছেন। তাদের কারণে আমি দেশের হয়ে ফুটবল খেলতে পেরেছি। আমি পড়ালেখা শেষ করে ফুটবল নিয়ে দেশের জন্য কাজ করতে চাই। এর বাইরে আর আমার কোন স্বপ্ন নেই। আমি বিদেশী খেলোয়াড় ও দেশী খেলোয়াড়দের সাথে ফুটবল খেলেছি। সবচেয়ে বড় কথা আমি দেশের হয়ে খেলেছি। এতে আমার অনেক ভালো লাগে। কিন্তু আমার ভাগ্য খারাপ তাই অনুশীলন করার সময় পায়ে ব্যথা পাই। তাঁরপর থেকে আমি আগের মত খেলতে পারিনি। তবে জেলা প্রশাসন অথবা উপজেলা প্রশাসন যদি আমাকে সার্বিকভাবে সাহায্য করে, তাহলে আমি আবার দলে যোগ দিতে পারতাম। কারণ ডাক্তার আমাকে বিশ্রাম নিতে বলেছেন। আমি জানি আমি একটু সাহায্য পেলে আবার দেশের হয়ে খেলতে পারবো।
এ বিষয়ে ফুটবল কোচ গোলাম রায়হান বাপন বলেন, রুমা অনেক ভালো ফুটবল খেলে। কিন্তু ইনজুরির কারণে জাতীয় দল থেকে বাদ পড়েছে। তবে দলের কর্মকর্তারা বলেছেন, রুমা পরিপূর্ন সুস্থ হয়ে আগের অবস্থানে ফিরে আসলে তাকে আবার দলে নেয়া হবে। আমরাও চাই রুমা জাতীয় দলের হয়ে মাঠে নামবে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ