বঙ্গবন্ধুর নাতনী টিউলিপ সিদ্দিক দ্বিতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত

প্রকাশিত : ৯ জুন, ২০১৭
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ 

যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত হলেন টিউলিপ সিদ্দিক। ৩৪ হাজার ৪৬৪ ভোট পেয়ে ১৫ হাজারের ও বেশি ভোটের ব্যবধানে বিজয় ছিনিয়ে আনলেন বঙ্গবন্ধুর নাতনী ও শেখ রেহানার কন্যা টিউলিপ। ব্রিটেনের নির্বাচনে বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশিদের আগ্রহের বিষয় ছিলেন টিউলিপ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী টোরী পার্টির প্রার্থী ভোট পেয়েছেন ১৮ হাজার ৯০৪ ভোট।

২০১৫ সালের নির্বাচনে লন্ডনের সবচেয়ে আলোচিত হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে লেবার পার্টির বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রার্থী টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক ২৩ হাজার ৯৭৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ পার্টির প্রার্থী সায়মন মার্কাস পেয়েছিলেন ২২ হাজার ৮৩৯ ভোট। গত নির্বাচনে ১ হাজার ১৩৮ ভোটে বিজয়ী হয়েছিলেন টিউলিপ।

দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে লেবার পার্টির দখলে থাকা হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনটি ধরে রাখা টিউলিপের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ ছিল। কারণ কনজারভেটিভ পার্টি এবার এ আসনটিকে ‘টার্গেট সিট’ বানিয়ে ছিল। লন্ডনে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ১০টি আসনের শীর্ষে ছিল হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন। এ কারণে আসনটির প্রতি গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দৃষ্টি ছিল ভিন্ন, সংশ্লিষ্ট প্রার্থীদের চ্যালেঞ্জও ছিল অন্যরকম। হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে ১৯৯২ সাল থেকে লেবার পার্টির এমপি ছিলেন অস্কার জয়ী অভিনেত্রী প্লেন্ডা জ্যাকসন।

১৯৮২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর লন্ডনের মিচামে জন্মগ্রহণ করেন টিউলিপ। মা শেখ রেহানা ও পিতা শফিক সিদ্দিকী। তার শিশুকাল কেটেছে ব্রুনেই, বাংলাদেশ, ভারত এবং সিঙ্গাপুরে। লন্ডনের কিংস কলেজ থেকে পলিটিক্স, পলিসি ও গর্ভমেন্ট বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রিধারী টিউলিপ সিদ্দিক মাত্র ১৬ বছর বয়সেই লেবার পার্টির সদস্য হন। ২০১০ সালে লন্ডন বারা অব ক্যামডেন কাউন্সিলে প্রথম বাংলাদেশি মহিলা হিসেবে কাউন্সিলার নির্বাচিত হন টিউলিপ সিদ্দিক। পরে কাউন্সিলের সংস্কৃতিবিষয়ক কেবিনেট মেম্বারের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, গ্রেটার লন্ডন অথরিটি ও সেইভ দ্যা চিলড্রেন ফান্ড চ্যারিটির সঙ্গে কাজ করেন টিউলিপ।

এছাড়াও লেবার পার্টির লিডার অ্যাড মিলিবান্ডের লিডারশিপ ক্যাম্পেইনে কাজ করেন তিনি। এ ছাড়া সাবেক এমপি উনা কিং, এমপি সাদিক খান, হ্যারি কোহেনের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন টিউলিপ সিদ্দিক ২০০৮ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নির্বাচনী ক্যাম্পেইনেও অংশ নেন। টিউলিপ সিদ্দিক লন্ডনের ক্যামডেন অ্যান্ড ইজলিংটন এনএইচএস ট্রাস্টের (ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস) গভর্নর, রয়েল সোসাইটি অব আর্টের একজন ফেলো এবং কমনওয়েলথ জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের একজন সদস্য। স্থানীয় পত্রিকা হ্যাম্পস্ট্যাড ও হাইগেইট-এ প্রেসের নিয়মিত লেখক টিউলিপ সিদ্দিক। ব্রিটেনের প্রভাবশালী ১০০ বাঙালির তালিকায় নাম রয়েছে তার।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ