১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ প্রকাশ হয়েছে
গণবিপ্লবে সংবাদ প্রকাশের পর ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

বন্ধ হয়নি টাঙ্গাইলের জুয়ার আসর!

গণবিপ্লব রিপোর্টঃ

টাঙ্গাইল থেকে প্রকাশিত সবচেয়ে জনপ্রিয় পত্রিকা ‘সাপ্তাহিক গণবিপ্লব’ এর অনলাইন সংস্করণে সোমবার (১৩ আগস্ট) ‘টাঙ্গাইলে রাতভর জুয়ার আড্ডা‘ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর ভ্রাম্যমাণ আদালতের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাহরিয়ার রহমানের নেতৃত্বে টাঙ্গাইল পৌর শহরের সবুর খান টাওয়ার ও রেনু কমপেক্সের জুয়ার আসরে অভিযান পরিচালনা করেন। জুয়া খেলার সরঞ্জাম সহ ১১ জুয়াড়িকে আটক করে বংগীয় প্রকাশ্য জুয়া আইন ১৮৬৭ এর ৪ ধারায় সকলকে এক মাস করে জেল জরিমানা করার পর কয়েকদিন বন্ধ থাকলেও তা আবারও চালু করেছে প্রভাবশালীরা। ফলে সাধারণ জনগণের মাঝে প্রচন্ড ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, জেলা শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত বিবেকানন্দ স্কুল অ্যাড কলেজ মার্কেটের তৃতীয় তলায় বটতলা ক্লাব, বড়কালীবাড়ি এলাকায় সবুর খান টাওয়ারের তৃতীয় তলা ও রেনু কমপ্লেক্সর দ্বিতীয় তলা সহ পৌর শহরের কয়েকটি স্থানে অবাদে চলছে জুয়ার আসর। এসব জুয়ার বোর্ডে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে কাটাকাটি, নিপুণ, চড়াচড়ি, ডায়েস, ওয়ান-টেন, ওয়ান-এইট, তিন তাস, নয় তাস, রেমিসহ নানা নামে নানা খেলা। এতে প্রতিদিন ১৫০-১৬০ জুয়াড়ি অংশ নেন।

আইনানুসারে দন্ডনীয় অপরাধ হলেও নানা কৌশলে চলছে এসব জুয়ার আসর। জুয়ার আসরের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন প্রভাবশালীরা। এলাকার ‘বড় ভাই’ হিসেবে পরিচিত এ প্রভাবশালীরা প্রশাসন ও এলাকার মাস্তানদের ম্যানেজ করে এসব জুয়ার বোর্ড চালাচ্ছে। জুয়ার আসর থেকে প্রতি রাতে ১০ থেকে ৫০ হাজার টাকা পাচ্ছেন নিয়ন্ত্রণকারী হিসেবে পরিচিত প্রভাবশালীরা। জুয়ার উপার্জনের বেশির ভাগই চলে যাচ্ছে তাদের পকেটে। আর জুয়ারুরা জুয়ার লোভ সামলাতে না পেরে অনেকে পথে বসছেন। এতে পারিবারিক অশান্তিসহ সমাজে বাড়ছে নানা অসঙ্গতি। সাধারণ মানুষকে সর্বস্বান্ত করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে পৃথক একটি চক্রটি। এসব কর্মকান্ডে এলাকাবাসী অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। জুয়ার বোর্ডের নিয়ন্ত্রণকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না। কেউ কিছু বললে তাকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে বলেও অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক জুয়ার আসরের একাধিক ব্যক্তি জানায়, নিপুণ, চড়াচড়ি, ডায়েস, ওয়ান-টেন, ওয়ান-এইট, তিন তাস, নয় তাস, রেমি, ফ্ল্যাসসহ ইনডোর গেমস নামে এখানে চলছে এসব জুয়া খেলা। এরমধ্যে রেমি ও হাজারি খেলায় আয়োজকরা নেন বিজয়ীদের কাছ থেকে ২০ ভাগ, ফ্ল্যাস ও কাটাকাটিতে ১০ ভাগ। এভাবে প্রতি আসর থেকে টাকা আয় করেন আয়োজকরা। এদের মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কিছু সদস্য রয়েছে। এসব জুয়ার আসরে লেনদেন হয় কয়েক কোটি টাকা। জুয়াকে কেন্দ্র করে চলে মাদকসেবনও।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ সায়েদুর রহমান বলেন, জুয়ার বোর্ড পরিচালনা করছে কি না আমি জানি না। যদি পুনরায় জুয়ার বোর্ড পরিচালনা করে থাকেন। তাহলে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ