বন্যা দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রকাশিত : ২৩ জুলাই, ২০১৭
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

এখনো বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। উজানের ঢল ও টানা বর্ষণে মানুষের দুর্দশা বেড়েছে। টাঙ্গাইলের যমুনা ও ধলেশ্বরী নদীর পানি সামান্য কমলেও নদীর তীরবর্তী এলাকায় দেখা দিয়েছে ভাঙন। কিছু এলাকায় বিশুদ্ধ পানির অভাব দেখা দিয়েছে। খাদ্য ও নিরাপদ পানির সংকট বানভাসি মানুষের দুর্দশা আরো তীব্র করে তুলেছে। পানিবাহিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে দুর্গতরা। ওদিকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ফসলহারা কৃষকদের মাথায় হাত। টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলার মধ্যে সাত উপজেলার বন্যাকবলিত দুর্গত কয়েক হাজার মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে উঁচু জায়গায় আশ্রয় নিয়েছে। কয়েকটি ইউনিয়নে সরকারি বেসরকারি ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে ত্রান সামগ্রী দিলেও অনেক এলাকায় এখন পর্যন্ত ত্রাণ পৌঁছয়নি। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেককেই অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাতে হচ্ছে তাদের। বাড়িঘর হারিয়ে অনেকে স্থায়ীভাবে উদ্বাস্তু হয়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা রয়েছে। বন্যার কারণে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন স্থানে যে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে তাকে শুধুই প্রাকৃতিক দুর্যোগ বলার কোনো কারণ নেই। অতিবৃষ্টি, উজানের ঢল নতুন কিছু নয়। প্রতিবছরই বন্যা আসে প্রাকৃতিক নিয়মে। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে যমুনা ও ধলেশ্বরী নদীসহ টাঙ্গাইল জেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া শাঁখা নদীগুলোতে প্রশাসনের যোগসাজশে অবৈধ বাংলা ড্রেজার, বড় ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে চলে এক শ্রেণি বালু খেকো। সে কারণেই বর্ষা আসলেই ভয়াবহ নদী ভাঙন দেখা যায়। বালু খেকোদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে ভবিষ্যতে এই ভয়াবহতা আরো বাড়বে। বালু খেকোদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে আগামি দিনেও এ দুর্যোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে না। ভাঙন রোধে এখনই স্থায়ী কোনো ব্যবস্থা না নিলে মানুষের দুর্গতি আরো বাড়বে। সেই সাথে দাঁড়াতে হবে বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে। পর্যাপ্ত ত্রাণের ব্যবস্থা করতে হবে। বন্যাকবলিত এলাকায় পানিবাহিত রোগ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধসহ মেডিক্যাল টিম পাঠাতে হবে। আমরা আশা করব, বন্যাদুর্গতদের ত্রাণ ও পুনর্বাসনে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি ও সামাজিক সংস্থাগুলোও উদ্যোগী হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ