বল্লা করোনেশন হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজে’ প্রধান শিক্ষক নিয়োগে নয়-ছয়

প্রকাশিত : ৭ জুন, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

গনবিপ্লব রিপোর্টঃ

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার বল্লা করোনেশন হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্রধান শিক্ষক নিয়োগে অনিয়ম ও দুর্র্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রধান শিক্ষক নিয়োগ পরিক্ষার ফলাফল না প্রকাশ করে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির হাতে রেখে আবার নতুন করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়ায় কমিটি বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, গত ১১ মে শুক্রবার বল্লা করোনেশন হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান শিক্ষক পদের জন্য ১২ জন আবেদন করলেও পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেন ৮ জন। নিয়োগ পরীক্ষার খাতায় নিয়োগ কমিটির সদস্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রোকেয়া বেগম, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এর প্রতিনিধি বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আল মামুন তালুকদার, প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও বল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান চান মাহমুদ পাকির, প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. সাজ্জাত হোসেন ও অভিভাবক সদস্য আবুল সরকার দিন ব্যাপী সকল নিয়ম কানুন অনুযায়ী ওই ৮ জন অংশগ্রহণকারীর লিখিত ও ভাইবা পরীক্ষা সম্পন্ন করেন। পরীক্ষা শেষে নিয়োগ বোর্ডের ৫ জনের স্বাক্ষর সম্বলিত ফলাফল না প্রকাশ করে আবার গত ২ জুন পত্রিকায় নতুন করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে।

পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারীরা বলেন, আমরা লিখিত ও ভাইবা পরীক্ষা দিয়েছি। পরীক্ষা শেষেই ফলাফল ঘোষনা করার কথা ছিল। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের সভাপতি চান মাহমুদ পাকির আমাদের বলেন ফলাফল পরে ঘোষনা করা হবে। কিন্তু ২২ দিন পর ২ জুন পত্রিকায় পুনরায় আবার নতুন করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। আমরা শুনতে পাচ্ছি বর্তমান ভারপ্রাপ্ত শিক্ষককে প্রধান শিক্ষক করা হবে। এই জন্য আমাদের ফলাফল না প্রকাশ করে পুনরায় বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষক করছি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক জন জানায়, প্রতিষ্ঠানের বর্তমান সভাপতি বল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান চান মাহমুদ পাকির ও প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. সাজ্জাত হোসেন সহ কমিটির সদস্যরা গোপন বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেন বর্তমান সভাপতিকে পুনরায় সভাপতি এবং ভারপ্রাপ্ত শিক্ষককে প্রধান শিক্ষক করা হবে। এই জন্য তারা আগের ফলাফল না প্রকাশ করে পুনরায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে।

এদিকে  সংবাদের প্রতিবেদক ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককের কাছে রেজিলেশন খাতা দেখতে চাইলে প্রতিবেদকের সামনেই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মুহূর্তের মধ্যে খাতাটিতে পুনরায় নয়-ছয় করে দেখানো হয়।

বল্লা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোফাখখারুল ইসলাম বলেন, প্রধান শিক্ষকের চাকুরি পাইয়ে দিবে বলে আমার ভাই মুক্তিযোদ্ধা দুলালের মেয়ের জামাতাকে আট লাখ টাকা দিতে বলেন কমিটির সভাপতি বল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান চান মাহমুদ পাকির। আমার ওই ভাতিজীর জামাতা তাতে রাজি হয়ে জায়। এদিকে আবার শুনতে পাচ্ছি ওই নিয়োগ পরিক্ষার ফলাফল প্রকাশ না করে পুনরায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। কেও কেও বলছে ৪০ লাখ টাকার বিনিময়ে নাকি নিয়োগ দেয়া হবে।

প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও নিয়োগ বোর্ডের সদস্য সাজ্জাদ হোসেন বলেন, নিয়োগ কমিটি পরিক্ষা নেয়ার পর সকল কমিটিকে পুনরায় ডেকে সিদ্ধান্ত হয় নিয়োগ পরিক্ষায় জারা অংশগ্রহণ করেছে তাদের থেকে আরো অধিক যোগ্যতা সম্পূর্ণ পার্থীকে নেয়া হবে। সামনে একটা কমিটি আসবে তারা যেন ভালো ভাবে সুন্দর একটি নিয়োগ দিতে পারে সে জন্য আমরা নিয়োগ পক্রিয়া স্থগিত ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

প্রতিষ্ঠানের সভাপতি বল্লা ইউনিয়েনের চেয়ারম্যান চান মাহমুদ পাকির বলেন, গত ১১ মে যে নিয়োগ পরিক্ষা নেয়া হয়েছে সে ফলাফল সিটে আমরা কেও সাক্ষরও করিনি এমনকি ফলাফল ঘোষণার কোন সিদ্ধান্তও নেই নি। আর জারা পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে তাদের যোগ্য মনে করেনি। আমরা আরো ভালো যোগ্য শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এর প্রতিনিধি বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আল মামুন তালুকদার বলেন, “আমি সরকারি নিয়ম কানুন মেনে পরীক্ষা নিয়েছি। লিখিত ও ভাইবা পরীক্ষা শেষে নিয়োগ কমিটির ৫ জন সদস্য স্বাক্ষর দিয়ে ফলাফল শীট তৈরি করে দিয়ে এসেছি। যে ব্যক্তিকে আমরা ৫ জন প্রথম প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত করেছি নি:সন্দেহে সে প্রথম হওয়ার যোগ্য। কিন্তু কি কারণে ফলাফল ঘোষনা করা হয়নি তা আমার জানা নেই।

নিয়োগ বোর্ডের সদস্য কালিহাতী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রোকেয়া বেগম বলেন,আমরা সকল নিয়ম কানুন মেনে স্বচ্ছতার সহিত পরীক্ষা নিয়েছি। নিয়োগ বোর্ডে আমরা ৫ জন ছিলাম। সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপ্ত ব্যক্তিকে প্রথম নির্বাচিত করে স্বাক্ষর করে এসেছি।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. আশরাফুল মমিন খান বলেন, বল্লা করোনেশন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার পরেও কি কারণে ফলাফল দিতে দেরি হচ্ছে সেটি আমার জানা নেই। কিন্তু পরীক্ষায় যারা অংশগ্রহন করেছে তারা প্রধান শিক্ষক হওয়ার মত যোগ্য নম্বর পেলে অবশ্যই তাদের মধ্য থেকে যে ভাল করেছে তাকে নির্বাচিত করে ফলাফল ঘোষনা করা উচিত।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ