বাংলাদেশে প্রথম লেজারের মাধ্যমে মলদ্বার অপারেশন

প্রকাশিত : ১০ মার্চ, ২০১৯
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

লেজার কলোরেক্টাল সেন্টার
এশিয়া হসপিটাল
ময়মনসিংহ রোড, সাবালিয়া, টাঙ্গাইল-১৯০০। ০১৭৪০-৬১৪৪৫০

এখানে লেজারের সাহায্যে
* পাইলস
* এনাল ফিসার
* ফিষ্টুলা ও
* পিলোনিডাল সাইনাস অপারেশন করা হয়।

কলোরেক্টাল সার্জন
ডাঃ মোঃ আহসান হাবিব
এম.বি.বি.এস (ডি.এম.সি), বি.সি.এস (স্বাস্থ্য)
এফ.সি.পি.এস (সার্জারী)
এম.আর.সি.এস (এডিনবার্গ), ইউকে
এম.এস (কলোরেক্টাল সার্জারী)
সহকারী অধ্যাপক, সার্জারী
কলোরেক্টাল সার্জন
ট্রেইন্ড ইন লেজার প্রকটোলজি ইন সুরাট, ইন্ডিয়া

লেজার সার্জারীর উপকারীতা
* কাটা, ছেড়া বিহীন অপারেশন।
* ব্যথা মুক্ত বা কম ব্যথা যুক্ত অপারেশন।
* রক্ত ক্ষরণ সাধারণত হয় না।
* হাসপাতালে অবস্থান কাল কম ( Less Hospital Stay ) ।
* Day Case Surgery (অপারেশনের দিনেই ছুটি) সম্ভব।

পাইলসঃ

মলদ্বারের ভিতরে গদি বা বালিশের মতো সৃষ্ট অতিরিক্ত মাংসপিন্ডকে পাইলস বলে। এ রোগে মলদ্বার দিয়ে রক্তক্ষরণ হয় এবং বাথরুমের সংগে মাংসপিন্ড বেরিয়ে আসে বা বেরিয়ে আসতে চায়। এই রোগ কোষ্ঠ্যকাঠিন্য, মল ত্যাগের সময় অতিরিক্ত চাপ প্রয়োগ কিংবা গর্ভকালীন সময়ে হতে পারে। এই রোগের বিভিন্ন ধরণের চিকিৎসা আছে।

যেমনঃ
*
প্রাথমিক অবস্থায় ঔষধ সেবন।
* ইনজেকশন।
* ব্যান্ডিং।
* কেটে অপারেশন।
* লংগো ( মেশিনের সাহায্যে কেটে জোড়া দেওয়া)।
* লেজার (কাটা-ছেড়া বিহীন অপারেশন)।

এনাল ফিসার

অতিরিক্ত কষা বা পাতলা পায়খানার কারণে মলদ্বার ছিড়ে গিয়ে ঘায়ের সৃষ্টি হয়। একে এনাল ফিসার বলে। এ রোগে তীব্র ব্যথা অনুভব হয়। এ রোগ দীর্ঘস্থায়ী হলে ক্রনিক এনাল ফিসার বলে। এতে মলদ্বারের মুখে ও ভিতরে গুটি সৃষ্টি হতে পারে। ক্রনিক এনাল ফিসার অপারেশন ছাড়া ভালো হতে চায় না। এ রোগের অপারেশনগুলো নিম্নরূপ-

* এনাল ডাইলেটেশন (মলদ্বারের স্ফিংটারের ক্ষতি হয় বলে অপ্রচলিত হয়ে গিয়েছে)।
* স্ফিংটারোটমি (মলদ্বারের পাশে কেটে অপারেশন)।
* লেজার (না কেটে ব্যথা মুক্ত অপারেশন)।

ফিষ্টুলাঃ

এই রোগকে বাংলায় ভগন্দর বলে। এতে মলদ্বারের পাশে ছিদ্র সৃষ্টি হয় এবং তা দিয়ে পানি ও পুজ বের হয়। এটি একটি টানেলের মতো যার ভিতরের মুখ মলদ্বারের ভিতরে এবং বাহিরের মুখ মলদ্বারের বাহিরে থাকে। এ রোগ অপারেশন ছাড়া সাধারণত ভাল হয় না। এ রোগের

অপারেশন সমূহ-

* কেটে অপারেশন (বেশি কাটলে মলদ্বারের নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা কমে যেতে পারে। একে Anal Incontinence বলে)।
* সেটন বা সুতা দেয়া (কয়েকবার অপারেশন লাগে)।
* এনাল এডভান্সমেন্ট ফ্যাপ/মলদ্বারের ভিতরে প্লাষ্টিক সার্জারী করা (জটিল টেকনিক)।
* লেজার (না কেটে ব্যথা মুক্ত অপারেশন এবং সাধরণ ধরনের ফিষ্টুলাতে সফলতার হার সন্তোষজনক)।

পিলোনিডাল সাইনাসঃ

পশ্চাদ্দেশে ছিদ্রের সৃষ্টি হয় যেখান দিয়ে পানি বা পুজ বের হয়। এটি সাধারণত যেসব রোগীর অতিরিক্ত চুল থাকে বা ড্রাইভার তাদের বেশি হয়। এ রোগ সাধারণত অপারেশন এর মাধ্যমে সুস্থ বা ভাল করতে হয়।

অপারেশন সমূহ-

* Wide excision (বড় করে কাটা)- সুস্থ হতে দীর্ঘদিন সময় নেয়।
* Rhomboid Flap /প্লাষ্টিক সার্জারী- কোন কারণে অপারেশন ব্যর্থ হলে জটিলতা বাড়ে।
* Bascom/Karydakis পদ্ধতি- Recurrence Rate High (আবার এই রোগ দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা বেশি)।
* লেজার পদ্ধতি – কাটা-ছেড়া বিহীন অপারেশন।

এছাড়া এখানে নি¤েœাক্তরোগের চিকিৎসা করা হয়।

* রেক্টাল প্রোলাপ্স (মলদ্বার বের হয়ে আসা) এর আধুনিক চিকিৎসা।
* মলদ্বার না কেটে অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে পাইল্স এর লংগো অপারেশন।
* ষ্ট্যাপলিং পদ্ধতিতে পেটে স্থায়ী ব্যাগ না লাগিয়ে মলদ্বার ক্যান্সার অপারেশন।
* ল্যাপারোস্কপিক সার্জারী।
* বারে বারে ব্যর্থ হওয়া জটিল ফিষ্টুলার সফল অপারেশন।
* স্টার অপারেশন ( ODS বা এক ধরণের কোষ্ঠ্যকাঠিন্য রোগের অত্যাধুনিক অপারেশন)।
* মলদ্বারের যাবতীয় রোগের চিকিৎসাসহ সকল প্রকার জেনারেল সার্জারী।
* কলোনস্কপি পরীক্ষার মাধ্যমে মলদ্বারে রক্ত যাওয়ার কারণ, ক্যান্সার, প্রদাহ রোগ নির্ণয়।
* কলোনস্কপিক পলিপেকটমি করা।
* কলোনস্কপির মাধ্যমে বায়োপসি নেয়া।

এ রোগ সমূহের প্রতিকারঃ

* ফলমূল, শাক-সবজি বেশি খাওয়া।
* প্রচুর পানি পান করা।
* ব্যায়াম বা খেলা-ধুলা করা।
* চর্বিযুক্ত খাবার কম খাওয়া।
* বাথরুমে অধিক সময় ক্ষেপন পরিহার করা।
* ইত্যাদি।


আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

সর্বশেষ সংবাদ




এইমাত্র পাওয়া