প্রকাশকাল: ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮

বাসাইলে চিকিৎসা বঞ্চিত প্রত্যন্ত এলাকার মানুষ

স্টাফ রিপোর্টারঃ

টাঙ্গাইলের বাসাইলে ৬টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রেগুলোতে নিয়মিত ডাক্তার না আসা ও রোগিদের ওষুধ না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এতে চিকিৎসাবঞ্চিত হচ্ছে উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার মানুষ।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষের অভিযোগ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলোতে সপ্তাহে ২ থেকে ৩দিন ডাক্তার চিকিৎসা দিতে আসলেও তারা ১/২ ঘণ্টার বেশি সময় থাকেন না। আবার কোনও সপ্তাহে ডাক্তার আসেও না। দুর্গম গ্রামাঞ্চলে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে চিকিৎসকদের থাকার জন্য কোয়ার্টারের ব্যবস্থা করেছে সরকার। কিন্তু লাখ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত এসকল কোয়ার্টার অরক্ষিত পড়ে রয়েছে। কোন চিকিৎসকই এসব কোয়ার্টারে থাকছেন না। তারা শহরের বিলাশ বহুল বাড়ি ভাড়া করে বসবাস করছেন। ফলে অতিজরুরি রোগিরা পাচ্ছে না সময় মতো চিকিৎসাসেবা। বিশেষ করে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে গর্ভবতী মহিলাদের।
অপরদিকে কোয়ার্টাগুলো অরক্ষিত থাকায় এসব কোয়ার্টার ও আশপাশে এলাকা পরিণত হচ্ছে মাদকসেবিদের আখড়ায়। এসব দেখার যেন কেউ নেই। এমনই হাজারো অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

কাশিল ইউনিয়নের বাথুলীসাদী এলাকার ভুক্তভোগী মিলন শিকদার জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র দূরে হওয়ায় বিশেষ করে মা ও শিশুদের চিকিৎসা নিতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়মিত চিকিৎসক এলে রোগিগের দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমতো।

কাউলজানী ইউনিয়নের ডুমনীবাড়ির ভুক্তভোগী রাশেদুল ইসলাম জানান, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটি নিয়মিত খোলা হয় না। সপ্তাহে ২/৩দিন খুললেও প্রয়োজনীয় ডাক্তার থাকে না। ঔষধও মিলে না রোগিদের ভাগ্যে। এখানে রোগিরা তেমন কোন চিকিৎসা পাচ্ছেন না বললেই চলে।

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিভিন্ন ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে বিভিন্ন পদ শূন্য এবং কয়েকজন ডাক্তার ডেপুটেশনেও রয়েছে। এর মধ্যে কাশিল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ফার্মাসিষ্ট একটি, পরিবার কল্যাণ সহকারী দুইটি পদ শূন্য, আবার অফিস সহায়ক নিরাপত্তা প্রহরীও ডেপুটেশনে রয়েছে। কাঞ্চনপুর ইউনিয়নে পরিবার কল্যাণ সহকারী তিনটি, আয়া একটি পদ শূন্য রয়েছে। এদিকে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (স্যাকমো) ডেপুটেশনে থাকায় পদটি শূন্য রয়েছে। ফুলকী ইউনিয়নে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা একজন, আয়া একজন ও পরিবার কল্যাণ সহকারীর তিনটি পদই শূন্য। কাউলজানী ইউনিয়নে পরিবার কল্যাণ সহকারী দুইটি পদ শূন্য রয়েছে। হাবলা ইউনিয়নে পরিবার কল্যাণ সহকারী তিনটি পদ শূন্য রয়েছে। বাসাইল সদর ইউনিয়নে পরিবার কল্যাণ সহকারী দুই ও আয়া পদটি শূন্য। এছাড়াও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসে সহকারী পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ও সহকারী উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার পদ শূন্য রয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শাহীন পারভীন জানান, প্রতিটি ইউনিয়নেই বেশ কয়েকটি পদ শূন্য রয়েছে। পদ শূন্য থাকায় কিচিৎসা দিতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানানো হয়েছে। কোয়ার্টারগুলোর অবস্থা জরাজীর্ন বলেও তিনি জানান।

এ বিষয়ে বাসাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না জানান, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ