বাসাইলে জমি বিরোধের জেরে হামলা মামলা

প্রকাশিত : ৩০ জানুয়ারী, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

টাঙ্গাইলের বাসাইলে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তপ্ত পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। ইতিমধ্যে দুই পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষ হওয়ায় এক পক্ষ বাসাইল থানায় ও অপর পক্ষ টাঙ্গাইল জেলা জজ আমলিক আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। আর বিবদমান দুই পক্ষ ও এলাকাবাসী জমি নিয়ে বিরোধ সমাধানে স্থানিয় ও উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

জানা যায়, বাসাইল উপজেলার হাবলা পূর্ব পাড়া গ্রামের আব্দুল আলী ২০১৭ সালে ৮.৬৬ শতাংশ জায়গা ক্রয় করেন মো. হায়দার আলী ও মোঃ এন্তাজ আলীর নিকট হতে। তারা তাদের বোন সরভানুর মৃত্যুর পর ওয়ারিশ প্রাপ্ত হয়ে অত্র জায়গা ক্রেতার কাছে বিক্রি করেন।

অপরদিকে ১৯৯৬ সালে সরভানুর কাছ থেকে একই গ্রামের আনোয়ার হোসেন ৪ ও তার স্ত্রী রেখা ভানু ৪ শতাংশ জায়গা ক্রয় করেন। এবং ওই মহিলা জীবিত থাকা কালীন একই গ্রামের ইঞ্জিনিয়ার শাহাদত হোসেন ও মোঃ শহিদুর রহমান (শের আলী) আরো ৩ শতাংশ জায়গা ক্রয় করেন। ওই মহিলার স্বামী পরান আলীর মৃত্যুর পর ওয়ারিশ হিসেবে তার প্রাপ্ত মোট জায়গার পরিমান ছিল ১২ শতাংশ। আর এ জায়গা নিয়েই সরভানুর মৃত্যুর পর সৃষ্টি হয়েছে জটিলতা। দুই পক্ষই একই জায়গার দাবিদার হওয়ায় বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে।
এ নিয়ে গত ১৪ জানুয়ারি সন্ধ্যায় দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। সংষর্ষে আব্দুল আলীর ছেলে সোহরাব আলী (৩৪), শমসের আলীর মেয়ে নাছিমা বেগম (৩৬) ও হযরত আলীর স্ত্রী আফরোজ ভানু মারাত্মক ভাবে জখম হয়েছে। এ ঘটনায় আনোয়ার হোসেন (৪০) অপর পক্ষের ধারা মারাত্মক ভাবে আহত হন ও তাদের টয়লেট, রান্নাঘর, লাকড়ি ঘর, সিমানা প্রাচীর ভেঙ্গে ফেলা সহ গাছ কেটে ফেলা হয়েছে।

এদিকে ইঞ্জিনিয়ার শাহাদত হোসেন বাদি হয়ে টাঙ্গাইল জেলা জজ আমলিক আদালতে আব্দুল গফুরের ছেলে আব্দুল আলী (৬৫), শমসের আলী (৫৫), আঃ সালাম (৫০), আব্দুল আলীর ছেলে সোহরাব আলী (৩২), কদম আলীর ছেলে অহিদুজ্জমান (অহিদ) (৩৫), কহিনুর জামান কহী (৪০), হযরত আলীর স্ত্রী আফরোজা বেগম (৩০), সোহরবা আলীর স্ত্রী তানিয়া বেগম (২৮), সাইদুর রহমানের স্ত্রী নাসিমা বেগমের (৩৩) নামে মামলা দায়ের করেছেন। সি-আর ১৫।
পিছিয়ে নেই অপর পক্ষও ঘটনার পরের দিন ১৫ জানুয়ারি আব্দুল আলী বাদি হয়ে বাসাইল থানায় ইসমাইল হোসেনের ছেলে নজরুল ইসলাম (৩৫), মৃত ছাদেক আলীর ছেলে শাহাদত হোসেন (৪৬) ও আনোয়ার হোসেন (৩৬) নজরুলের স্ত্রী রানু বেগম (৩০), আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী রেখা বেগম (৩০) কে আসামি করে বাসাইল থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ০৫

এ ব্যাপারে আব্দুল আলী ও তার ছেলে সোহরাব আলী জানান, বিরোধকৃত ৮.৬৬ জমির প্রকৃত মালিক আমরা। গ্রামে এ নিয়ে তাদের সাথে বারবার সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু তারা তা মেনে নেয়নি। দীর্ঘদিন তারা অবৈধ ভাবে আমাদের জায়গা দখল করে ছিলো। সর্বশেষ জোরপূর্বক সীমানা প্রাচীর দেয়ার চেষ্টা করলে আমরা বাধা প্রধান করি। আর এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে তারা অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আমাদের হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমন করে। তারা উশৃঙ্খল ও ঝগড়াটে প্রকৃতির লোক। আমরা এর বিচার ও সুষ্ঠ সমাধান চাই।
আনোয়ার হোসেন জানান, ১৯৯৬ সালে ঐই জায়গার প্রকৃত ওয়ারিশদারের কাছ থেকে আমরা জমি ক্রয় করেছি। আর তারা ২০১৭ সালে বানোয়াটি একটি দলিল বানিয়ে আমাদের জায়গা সন্ত্রাসী বাহিনি নিয়ে দখল করেছে। আমাদের নামে মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। গাছ গুলো কেটে ফেলেছে, রান্নাঘর ও সিমানা প্রাচীর ভেঙ্গেছে । জায়গা জুরে সিমানা প্রাচীর দেয়ার কারনে গোসল করা, রান্না করা ও টয়লেটে যেতে পারছেনা আমার পরিবারের লোকজন। শুধু তাই নয় আমার মেয়ে আফরিন তাদের কারনে স্কুলে যেতেও ভয় পাচ্ছে। আমাদের বাড়ি ঘর জোরপূর্বক দখল করায় বাসাইল থানায় গত ১৮ জানুয়ারি একটি সাধারন ডায়েরি করেছি। এর আগে আমরা শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার্থে টাঙ্গাইল অতিরিক্ত জেলা মেজিস্ট্রেটের আদালতে ফৌজদারি কার্য বিধি আইনে ১৪৪ ধারায় পিঃ মোকদ্দমা নং-৮০৪/২০১৭ দায়ের করেছি। তা সত্বেও তারা আমাদের জায়গায় ক্ষমতাসীন দলের দলীয় প্রভাব খাটিয়ে জোর পূর্বক দখল করেছে। আমরা ভীতকর এ পরিস্থিতির সুষ্ঠ সমাধানের লক্ষ্যে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। আমরা চাই দলিল অনুপাতে যে জায়গার প্রকৃদ হকদার তার কাছেই প্রশাসন জায়গা ফিরিয়ে দিক।

এদিকে এলাকাবাসী জানান, দুই পক্ষের মধ্যে বিবাদমান এই বিরোধ দীর্ঘদিন আগে থেকেই। এর মধ্যে তারা মারামারি করে একে অপরের জায়গা দখল ও ভাঙ্গচুর করে পাল্টাপাল্টি আইনের আশ্রয় নিয়েছে। যেহেতু তারা একে অপরের প্রতিবেশি, তাই তাদের উচিৎ হবে শান্তির লক্ষ্যে সমঝোতা করা। আমরা এলাকাবাসী তাদের মধ্যে কোন বিরোধ বা জমি নিয়ে হানাহানি দেখতে চাইনা। অনাকাঙ্খিত কোন ঘটনা ঘটার আগেই ইউনিয়ন ভুমি অফিস ও স্থানীয় প্রশাসন দুই পক্ষের শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার্থে এগিয়ে আসলে বিষয়টির সমাধান হবে বলে আমরা মনে করছি।

এ ব্যাপারে হাবলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম জানান, দুই পক্ষকে নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে মিমাংসা বৈঠকে বসার জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছিলো। কিন্তু তারা কেউ আসেনি। দুই পক্ষ একে অপরের বিরুদ্ধে মামলা করলে তারা নিজেরাই ক্ষতিগ্রস্থ হবে। সুষ্ঠ সমাধানের জন্য তারা আমার দারস্থ হলে আমি অবশ্যই তাদের সহযোগীতা করবো।

বাসাইল থানা অফিসার ইনচার্জ মো. নুরুল ইসলাম খান জানান, মারামারির খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আমি তদন্তে গিয়েছিলাম। মামলা হয়েছে। আসামিরা পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ