বাসাইলে ঠিকাদারের গাফলতিতে জনগণের ভোগান্তি

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী, ২০২০

বাসাইল ৯ জানুয়ারি : ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের গাফলতিতে কাজ শেষ হচ্ছে না টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার বাসাইল কাঞ্চনপুর ঢংপাড়া ভায়া পাথরঘাটা সড়কটির নির্মান কাজ। এ অবস্থায় সড়কটি হয়ে উঠেছে ঝুঁকিপূর্ণ। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে এ সড়কে।

এ সড়কে বাসাইল, সখীপুর ও মির্জাপুর উপজেলার প্রায় দেড় লক্ষাধিক মানুষের সীমাহীন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। সড়কটির দ্রুত নির্মান দেখতে চান এলাকাবাসী। এর সড়কটি উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার জানিয়েছেন এ বিষয়ে ঠিকাদাকে নোটিশ করা হয়েছে। দ্রুতই সড়কটি কাজ শেষ করা হবে। অন্যদিকে ঠিকাদার জানিয়েছেন বর্ষার কারনে কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে।

স্থানীয় সরকারের উপজেলা প্রকৌশলী রোজদিদ আহম্মেদ গণবিপ্লবকে জানান, টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাঞ্চনপুর ঢংপাড়া ভায়া পাথরঘাটা সড়কটি দীর্ঘদিন যাবৎ মানুষের চলাচলের অযোগ্য অবস্থায় ছিলো। দীর্ঘদিন যাবৎ মানুষের সীমাহীন কষ্টের পর ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে সড়কটি সংস্কার ও নির্মানের উদ্যোগ নেয় এলজিইডি বিভাগ। নিয়ম অনুযায়ী কাঞ্চনপুর ঢংপাড়া ভায়া পাথরঘাটা পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার সড়কের ২৪ শ মিটার রিপেয়ারসহ রাস্তার নির্মাণ করা হবে। প্রায় ৫ কোটি ৫৯ লাখ ২৬ হাজার ৫৩৩ টাকা ব্যায়ে ৬কি.মিটার রাস্তা সংস্কার কাজের দরপত্র আহবান করা হয়। কাজটি পায় মেসার্স বিশাল এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। যেটি ৩০ এপ্রিল ২০১৮ সালে শুরু হয়ে ৬ মে ২০১৯ সালে শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মেয়াদ শেষ হওয়ার পর অতিরিক্ত সাত মাস অতিবাহীত হলেও এখনও এর নির্মান কাজ শেষ হয়নি।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, কাঞ্চনপুরের ঢংপাড়া, যতুকি, পৌলি, হালুয়া পাড়া, সনকাপাড়ায় খোয়া ফেলানো আছে। পাশের সাড়ির ইটগুলো রাস্তার পাশেই পড়ে আছে। আবার কোথাও কোথাও ইন ও খোয়া ফেলানো হয়নি। ফলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে এলাকাবাসী ও পথচারীদের। পূর্বের চেয়েও অধিক কষ্টে তারা যাতায়াত করছে। মোটরসাইকেল ও তিন চাকার যানবাহন চলাচলের সময় প্রচুর পরিমাণ ধুলা বালি শরীরে এসে পড়ে।

এলাকার সোরহাব হোসেন গণবিপ্লবকে বলেন, দেড় বছর আগে রাস্তার কাজ ধরলেও এখনও শেষ হয়নি। এ রাস্তায় যানবাহন তো চলেই না। দু-একটি চললেও ধুলা বালুতে মানুষের শরীর নষ্ট হয়ে যায়। ঠিকাদারের কোন খোঁজ খবর নেই। প্রায় ৬ মাস অতিবাহিত হলেও সে আজ পর্যন্ত রাস্তাটি দেখতে আসেনি।

শহিদুল ইসলাম গণবিপ্লবকে বলেন, রাস্তা ভাল না থাকায় ছোট ছেলে মেয়ে খেলতে বের হলেই হোঁচট খেয়ে আঘাত প্রাপ্ত হয়। কয়েকদিন পর পর দুর্ঘটনা ঘটে এ রাস্তায়।

ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম গণবিপ্লবকে বলেন, দেড় বছর যাবত রাস্তার কাজ করছে না। কবে শেষ হবে সে লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। রাস্তার কাজ শেষ হতে দেরি হওয়ায় শুধু চলাচলে কষ্ট হচ্ছে তা নয়, ব্যবসা-বাণিজ্যেও সমস্যা দেখা দিয়েছে। কেননা ভারী যানবাহন চলাচল করতে পারে না।

প্রতিমা রাণী নামের এক পথচারী গণবিপ্লবকে বলেন, রাস্তা ভাল না হওয়ায় কোন যানবাহনও পাওয়া যায় না। তাই এক ছেলেকে কোলে ও মেয়েকে নিয়ে হেটে যাচ্ছি। এতে করে খুব ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। তাই দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তাটির কাজ শেষ করার দাবি করছি।

এ বিষয়ে বাসাইল উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম গণবিপ্লবকে বলেন, গতবর্ষার পূর্বে রাস্তাটির কাজ যথারীতি চলছে। বর্ষার কারণে রাস্তার কাজটি বন্ধ ছিলো। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সাথে কথা হয়েছে। তারা আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে নির্মাণের মালামাল ফেলবে বলে আমাকে জানিয়েছে। যথারীতি ও যথা সময়ে কাজটি শেষ হবে বলে আমি আশা করছি।

বাসাইল উপজেলা প্রকৌশলী রোজদিদ আহম্মেদ গণবিপ্লবকে বলেন, টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার বাসাইল কাঞ্চনপুর ঢংপাড়া ভায়া পাথরঘাটা রাস্তাটির ১৫ শ মিটার ডাব্লিউ বিএম ও দুই কিলোমিটার সাব বেইস করা হয়েছে। পাশাপাশি ৭৫ শতাংশ মাটির কাজও শেষ করা হয়েছে। সাম্প্রতিক বন্যা ও মালামাল পরিবহনে অসুবিধা হওয়ায় রাস্তার নির্মাণ কাজ বন্ধছিলো। নোটিশের মাধ্যমে ঠিকাদারকে তাগিদ দেওয়া হয়েছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে কাজটি শেষ হবে বলে তিনি জানান।

বিশাল এন্টার প্রাইজের স্বত্তাধিকারী মো. হোসেন গণবিপ্লবকে বলেন, বন্যার কারণে বিগত কয়েক মাস রাস্তার কাজ করতে পারিনি। অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে নির্মাণ সামগ্রী নিয়ে রাস্তার নির্মাণ করা হবে। আশা করছি আগামী কয়েক মাসের কাজ শেষ হবে।

রাস্তাটি চালু হলে টাঙ্গাইলের বাসাইল, মির্জাপুর ও সখিপুরের লক্ষাধিক মানুষ উপকৃত হবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া