বাসাইলে ‘ঠিকানা’র আবুল খায়ের স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষায় বৃত্তি প্রাপ্তদের পুরস্কার ও সংবর্ধনা প্রদান

প্রকাশিত : ৮ জানুয়ারী, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ

মানুষের জন্যই মানুষ এ শ্লোগানকে সামনে রেখে টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কলিয়া গ্রামে প্রতিষ্ঠিত সামাজিক সহায়ক সংস্থা ‘ঠিকানা’র উদ্যোগে আবুল খায়ের স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষা ২০১৭ এর বৃত্তি প্রাপ্ত ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ ও স্থানীয় কৃতি সন্তানদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়।
শনিবার (৬ জানুয়ারি) উপজেলার কাউলজানী ইউনিয়নের কলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আঙিনায় আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ পুরস্কার ও সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। শিক্ষা ও উৎসাহমূলক এ আয়োজনে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের অধ্যাপক ড. আব্দুস সবুর খান।

‘ঠিকানা’র অন্যতম প্রয়াস আবুল খায়ের স্মৃতি বৃত্তি শাখার সভাপতি সাইফুল ইসলাম মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী শহীদুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান রাশেদা সুলতানা রুবি, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আশরাফুন নাহার, বাংলাদেশ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকা’র বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ জুলহাস আলী মিয়া, ঢাকা আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড এর প্রিন্সিপাল অফিসার মীর রুবেল হোসাইন প্রমুখ। এসময় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যত্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলার নথখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক তাহমিনা খোশনবীশ। অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে স্বাগত বক্তব্যে ‘ঠিকানা’র লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তোলে ধরে বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী মাছুদুজ্জামান রোমেল। তিনি বলেন আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে গেছে অনেক নমস্য ব্যক্তি, যাদের ঋণ শোধ করবার সামর্থ্য আমাদের নেই। ধীরে ধীরে আমরা তাদের স্মৃতি হারিয়ে যেতে বসেছি। আজকের এইদিনে আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে যাওয়া যে সকল কৃর্তিমান পুরুষ এখনো স্মৃতির ধরজার কড়া নাড়ে তাদের মধ্যে মরহুম আবুল খায়ের অন্যতম। যার উদ্দেশ্যেই আজকের এ অনুষ্ঠান। শিক্ষানুরাগী আবুল খায়ের জীবনের মূল্যবান সময়গুলো কলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পিছিয়ে পড়া শিশুদের শিক্ষাদানে ব্যয় করেন।
চিরকুমার এ শিক্ষকের কাছে শিক্ষাদানই ছিল একমাত্র ধ্যান। তার স্মৃতি ধরে রাখতেই ‘ঠিকানার’ অন্যতম শিক্ষা প্রতিযোগিতামূলক প্রয়াস আবুল খায়ের স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষা। এ পরীক্ষার মাধ্যমে এলাকার কোমল মতি শিক্ষার্থীদের প্রতিযোগি মনোভাব গড়ে তোলে, প্রতিযোগিতার জগতে সর্বক্ষেত্রে নিজেদের দক্ষভাবে মেলে ধরার যোগ্য করে গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।

তিনি ‘ঠিকানার’র কার্যক্রম সম্পর্কে বলেন, প্রায় ৪মাস আগে সামাজিক সহায়ক সংস্থা ‘ঠিকানা’র জন্ম হয়। ‘ঠিকানা’র মূল প্রতিপাদ্য মানুষের জন্যই মানুষ। জন্মের পর থেকেই উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অসহায় মানুষদের চিকিৎসা সেবা সহায়তা করা, অসচ্ছল পেশাজীবি, বিধবা, স্বামী পরিত্যাক্তা মহিলাদের আত্মনির্ভশীল করা ও আর্থিক উন্নয়নে সহায়তা প্রদান, অসহায় বৃদ্ধ/বৃদ্ধাদের বিভিন্ন বিষয়ে পাশে থেকে সহায়তা, পিছিয়ে পড়া ও অসচ্ছল ঝড়ে পড়া শিশুদের শিক্ষার প্রতি আগ্রহী করে গড়ে তোলা ও তাদের মধ্যে বিনামূল্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করে আসছে।

উল্লেখ্য, উপজেলার কাউলজানী ইউনিয়নের ১০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত মোট ১১৬জন শিক্ষার্থী এ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে প্রতি শ্রেণিতে ৫জন করে মোট ১৫জনকে বিভিন্ন গ্রেডে এককালিন অর্থ বৃত্তি, ক্রেস্ট ও সনদ বিতরণ করা হয়। এছাড়াও ‘ঠিকানা’র উদ্যোগে অনুষ্ঠানে কলিয়া গ্রামের অসহায় দুস্থ ৪টি পরিবারের মধ্যে ছাগল বিতরণ করা হয়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

সর্বশেষ সংবাদ




এইমাত্র পাওয়া