বিকল্প শ্রমবাজার বাজার খুঁজতে হবে

প্রকাশিত : ৯ নভেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব অনলাইন
ডেস্ক রিপোর্ট

মালয়েশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সে দেশে নতুন করে শ্রমিক নেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশি শ্রমিকরাই অগ্রাধিকার পাবে। কারণ বাংলাদেশের শ্রমিকরা অনেক বেশি অনুগত ও বিশ্বাসযোগ্য। কিন্তু তার পরও আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশের জনশক্তি রপ্তানি কমেছে। লিবিয়া, সিরিয়া, ইয়েমেন, সুদান প্রভৃতি দেশে যুদ্ধের কারণে বন্ধ রয়েছে শ্রমবাজার। এসব দেশ থেকে শ্রমিকরা ফিরে এসেছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে থেকে যাওয়া বাংলাদেশিরাও নিরাপত্তার অভাবে দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হচ্ছে। একদিকে ফিরে আসা জনশক্তির চাপ, অন্যদিকে দেশে প্রতিবছর বাড়ছে বেকারের সংখ্যা-স্বাভাবিকভাবেই কর্মক্ষম শ্রমশক্তি নিয়ে বিপাকে আছে বাংলাদেশ। সংকুচিত হয়ে আসা বাজার পরিস্থিতি মোকাবিলায় নতুন ও বিকল্প বাজার তৈরি করা যায়নি। এমনকি জিটুজি পদ্ধতিতে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর গতিও মন্থর।
বাংলাদেশ থেকে একসময় মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে জনশক্তি রপ্তানি করা হতো। প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী ১৬০টি শ্রমবাজারে বাংলাদেশের জনশক্তি পাঠানো হয়। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, এর মধ্যে ১৪০টিতেই পরিস্থিতি আশাব্যঞ্জক নয়। সম্প্রতি পত্রিকান্তরে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, নতুন ৬০টি শ্রমবাজারে গত পাঁচ বছরে ৩০ হাজারের বেশি শ্রমিক পাঠাতে পারেনি বাংলাদেশ। অনেক দেশেই কর্মী নেওয়ার সংখ্যা কমে যাচ্ছে।
প্রতিবছর কর্মক্ষেত্রে প্রবেশের জন্য তৈরি হচ্ছে দক্ষ ও অদক্ষ নতুন জনশক্তি। তাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ বাংলাদেশে নেই। স্বাভাবিকভাবেই বিদেশে জনশক্তি রপ্তানির কথা ভাবতে হবে। জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানগুলোর তথ্য অনুযায়ী প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে সাত লাখ জনশক্তি বিদেশে পাঠানো সম্ভব। এই বিপুল জনশক্তি দেশের বাইরে পাঠানো গেলে বিদেশ থেকে বৈদেশিক মদ্রা আয়ের পাশাপাশি দেশে বেকারের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে কমানো যেত। কিন্তু বিদেশে বাংলাদেশের বাজার নষ্ট করা হচ্ছে। প্রলোভন দেখিয়ে সাগরপথে মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডে মানবপাচারের ঘটনা বাংলাদেশের জনশক্তি রপ্তানির ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। তার পরও আন্তর্জাতিক বাজার ধরে রাখতে পারত বাংলাদেশ। সময়োপযোগী ব্যবস্থা না নেওয়াতেই আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারে বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়েছে। আন্তর্জাতিক বাজার থেকে বাংলাদেশ দূরে সরে যাচ্ছে বলে অনেকের ধারণা। সঠিক সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপ যেমন নতুন শ্রমবাজারে প্রবেশের জন্য আবশ্যক, তেমনি পুরনো বাজার ধরে রাখতেও ব্যবস্থা নিতে হবে। যেসব দেশের দরজা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সেসব দেশে নতুন করে কর্মী পাঠানোর উদ্যোগ নিতে হবে। পাশাপাশি নতুন বাজার খুঁজে বের করতে হবে। সরকার ও জনশক্তি রপ্তানিকারকদের যৌথভাবে আন্তর্জাতিক বাজার তৈরিতে কাজ করতে হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ