বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রসঙ্গ

প্রকাশিত : ১৫ নভেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

দেশের এমপিভুক্ত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রে পদ্ধতিগত পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে সরকার। গত ২১ অক্টোবর সরকার ‘বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা গ্রহণ ও প্রত্যয়ন বিধিমালা ২০০৬’ সংশোধন করেছে। এর আলোকেই নিয়োগ পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা হবে। তবে পরিবর্তিত পদ্ধতির বিস্তারিত এখনো জানা যায়নি। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে শিগগিরই এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি হবে, তাতেই বিষয়টি স্পষ্ট বলে জানানো হয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ থেকে। এ জন্য ২২ অক্টোবর থেকে নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে নানা ধরনের তদবির, লেনদেনের অভিযোগ রয়েছে। এ সংক্রান্ত অনিয়ম রোধ করে শৃঙ্খলা আনয়নের পদক্ষেপকে আমরা অবশ্যই স্বাগত জানাই। যতদূর জানা গেছে, নতুন পদ্ধতিতে প্রতিষ্ঠান ম্যানেজিং কমিটি কর্তৃৃত্ব খর্ব করা হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী কিছুদিন আগে জানিয়েছিলেন, পিএসসির আদলে বেসরকারি নিয়োগের জন্যও কমিশন করতে যাচ্ছে সরকার। এরকম কোনো কমিশনের আওতায় বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ হলে সেটা নিশ্চয়ই অধিকতর স্বচ্ছ ও গ্রহণযোগ্য হবে। তবে ২১ অক্টোবর সংশোধিত বিধিমালায় এরকম কোনো কমিশনের উল্লেখ না থাকা আবার এ নিয়ে কিছুটা ধোঁয়াশা থাকছেই।

নতুন নিয়োগ পদ্ধতি সংক্রান্ত পরিপত্র জারি না হলেও বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা গ্রহণ ও প্রত্যয়ন বিধিমালার সংশোধনীতে আনা কিছু পরিবর্তনের কথা সংবাদ মাধ্যমে এসেছে সংশোধনীটি মন্ত্রণালয়ে চূড়ান্ত হওয়ার সময়ই। জানা গেছে, সংশোধনী অনুসারে শিক্ষক নিয়োগে নিবন্ধন সনদই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে। নিবন্ধনের মেধাতালিকা ধরেই দেয়া হবে শিক্ষক নিয়োগ। এখন থেকে নিবন্ধন সনদের মেয়াদ থাকবে মাত্র তিন বছর। নতুন নীতিমালার ফলে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় যেমন পরিবর্তন আসছে, তেমনি আসছে নিবন্ধন পরীক্ষায়ও। আরো জানা গেছে, নতুন নীতিমালা অনুসারে এখন থেকে একজন প্রার্থীকে তিনটি পরীক্ষা তথা এমসিকিউভিত্তিক প্রিলিমিনারি পরীক্ষা, ২০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা এবং মৌখিক পরীক্ষার মুখোমুখি হতে হবে। সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত প্রার্থীদের মধ্য থেকে মেধাক্রম অনুযায়ী তালিকা তৈরি হবে। তবে একজন প্রার্থী লিখিত ও মৌখিক উভয় পরীক্ষায় পৃথকভাবে কমপক্ষে ৪০ নম্বর না পেলে মেধাতালিকায় অন্তভর্ভুক্তির সুযোগ পাবেন না। নিবন্ধন পরীক্ষা চালু হওয়ার পর একটিমাত্র পরীক্ষার মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হতো। দ্বাদশ নিবন্ধন পরীক্ষা থেকে আলাদা প্রিলিমিনারি পরীক্ষা প্রবর্তন করা হয়। এ পরীক্ষায় যারা পাস করেছেন তাদের বিষয়ভিত্তিক লিখিত পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রথমে নিবন্ধনের মেয়াদ ছিল ৫ বছর, পরে সেটা আজীবন করা হয়, নতুন নিয়মে তিন বছর করা হয়েছে। তবে সবকিছু স্পষ্ট হবে পরিপত্র জারির পরই।

যাই হোক কর্মকর্তারা এটা নিশ্চিত করেছেন যে, নতুন নিয়ম অনুসারে এখন থেকে শিক্ষকদের শূন্য পদের বিপরীতে চাহিদার ভিত্তিতে নিবন্ধন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতি বছর অক্টোবর-নভেম্বরের মধ্যে জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা নিজ নিজ এলাকার শিক্ষকদের শূন্য পদের তালিকা পাঠাবেন। সেই চাহিদার ভিত্তিতে এনটিআরসিএ নিবন্ধন পরীক্ষা গ্রহণ করে জেলা ও উপজেলাভিত্তিক মেধাতালিকা তৈরি করে দেবে। জেলা-উপজেলার মেধাতালিকার মধ্যে আবার বিষয়ভিত্তিক তালিকা থাকবে। সেই মেধাতালিকা থেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ শিক্ষক নিয়োগ দেবে। আলাদা কোনো পরীক্ষা গ্রহণের সুযোগ থাকছে না।

দেশে ২৮ হাজারের মতো এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিয়োগ নিয়ে নানারকম অনিয়ম-বাণিজ্য ঘটে থাকে, অনেক ক্ষেত্রে একে নিয়োগ বাণিজ্য বলাই সঙ্গত মনে হয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির স্বেচ্ছারিতার কারণে নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনেক মেধাবী প্রার্থী চাকরি পাচ্ছিলেন না। এ ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা আসলে নিশ্চয়ই তারা আশ্বস্ত হবেন। আর শূন্য পদের বিপরীতে পরীক্ষার বিষয়টিও ইতিবাচক। তবে ম্যানেজিং কমিটির দৌরাতœ্য খর্ব করে সেখানে আমলা কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা এবং নতুন খোলসে ঘুষ-দুর্নীতি শুরু যাতে না হয় তা কঠোরভাবে খেয়াল রাখতে হবে। এর জন্য পরীক্ষাসহ গোটা প্রক্রিয়াটির স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা দরকার। সবচেয়ে ভালো হতো যদি শিক্ষামন্ত্রী কথিত কমিশনের মাধ্যমে পরীক্ষা ও নিয়োগ সম্পন্ন হতো।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ