ব্যবসায় সমতা বেড়েছে, বাড়াতে হবে আরো

প্রকাশিত : ৬ অক্টোবর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের ব্যবসায় পরিবেশের বৈশ্বিক প্রতিযোগিতা সূচকে দুধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। এই সূচকে গত বছর বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১০৯-এ আর এ বছর তা উঠে এসেছে ১০৭-এ। সূচকের এই অগ্রগতি নিশ্চিতভাবেই আমাদের ব্যবসা সমতা বৃৃদ্ধি নির্দেশ করে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আর্থসামাজিক অনেক েেত্র উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সাধন করলেও বিশ্ব বাণিজ্যের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ অনেকটাই পিছিয়ে আছে। উল্লিখিত সূচকেই দেখা যাচ্ছে আমাদের প্রতিবেশী এবং প্রতিযোগী দেশগুলো এখনো আমাদের তুলনায় বেশ এগিয়ে রয়েছে। বিশ্ব বাণিজ্য প্রতিযোগিতায় অবস্থান শক্ত করতে হলে আমাদের অর্জনকে ধরে রেখে এগিয়ে যাওয়ার ধারাকে আরো বেগবান করতে হবে।
গত ৩০ সেপ্টেম্বর(বুধবার) ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের ‘বৈশ্বিক প্রতিযোগিতা প্রতিবেদন-২০১৫-১৬’ উপস্থাপন করে অর্থনীতি বিষয়ক বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)। এ বছর মোট ১৪০টি দেশের ব্যবসায় উদ্যোক্তার মতামত জরিপের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন প্রণীত হয়েছে, যেখানে ব্যবসায় পরিবেশের সূচকে বাংলাদেশের দুই ধাপ এগোনোর তথ্য দেয়া হয়েছে। যেসব বিষয়ের ওপর প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে সেগুলো হলো- ব্যবসায়ে বাধা, অবকাঠামো, প্রযুক্তি, আর্থিক খাতের পরিবেশ, বিদেশি বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, ব্যবসায়িক কার্যক্রম ও নতুনত্ব, নিরাপত্তা, সরকার, শিা ও মানবসম্পদ, স্বাস্থ্য, ট্যুরিজম, পরিবেশ ও ঝুঁকি। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সামষ্টিক অর্থনীতিতে স্থিতিশীলতা, অবকাঠামো, স্বাস্থ্য ও শিা খাতের উন্নতির কারণে বাংলাদেশের এই অগ্রগতি হয়েছে। হোক, বাণিজ্য পরিবেশের েেত্র বিশ্ব সূচকে দুধাপ এগিয়ে আসা অবশ্যই একটি অর্জন। তবে আমাদের এগোতে হবে আরো। কারণ আমাদের প্রতিযোগী দেশগুলো আমাদের থেকে এ সূচকে অনেক এগিয়ে রয়েছে, তাদের এগোনোর গতিও বেশি। যেমন এই সূচকে প্রতিবেশী দেশ ভারত ৭১তম স্থান থেকে এগিয়ে ৫৫তম অবস্থানে উঠে এসেছে। ভিয়েতনাম ৬৮ থেকে ৫৬তম অবস্থানে এগিয়ে এসেছে। তাদের তুলনায় বাংলাদেশের অগ্রগতি সামান্যই বলতে হবে।
ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের প্রতিবেদন বলছে, প্রাতিষ্ঠানিক দতা, সুশাসন, আর্থিক খাতের দতা ইত্যাদি বিষয়ে বাংলাদেশের তেমন উন্নতি হয়নি। অপর্যাপ্ত অবকাঠামোগত উন্নয়ন, দুর্নীতি ও দুর্বল সরকার ব্যবস্থার কারণে বাংলাদেশের বড় ধরনের উন্নয়ন আসছে না মনে করে সিপিডি। সিপিডির পর্যবেণ- বাংলাদেশে এখনো বিনিয়োগের উপযুক্ত পরিবেশের যথেষ্ট অভাব রয়েছে। অবকাঠামোগত উন্নয়নে পিছিয়ে থাকার ফলে আমদানি-রপ্তানি উভয় খাতেই ব্যবসায়িক ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। আকাশপথের অবস্থা কিছুটা ভালো থাকলেও সড়ক, নৌ ও রেলপথের অবস্থা ভালো নয়। অর্থাৎ পরিবহনেও ব্যয় বাড়ছে। বিনিয়োগ পরিবেশের অভাব, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা না থাকা, নিরাপত্তাহীনতা, দুর্নীতি, ব্যবসায়ে উচ্চহারে ট্যাক্সসহ কয়েকটি কারণে দেশ থেকে মুদ্রা পাচার হচ্ছে। এর থেকে বেরিয়ে আসতে সরকারি-বেসরকারি নানা উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন। আমরা প্রতিযোগিতাপূর্ণ এ বিশ্বে কোনো অর্জন নিয়েই আতœতুষ্ট হয়ে বসে থাকার সুযোগ নেই। অর্জনকে ধরে রাখতে হবে এবং অগ্রগতির ধারাকে আরো গতিশীল করতে হবে আমাদের। বিশ্ব পরিসরে বাণিজ্য সমতা অর্জনে আমরা অগ্রগতির ধারায় রয়েছি এটা ভালো খবর, তবে কাক্ষিত ল্য অর্জনে আমাদের এগোতে হবে আরো অনেক। এর জন্য এ পথে যেসব বাধা-বিপত্তি চিহ্নিত হয়েছে, সেগুলো উত্তরণে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে সরকারকে। বাণিজ্য সমতার উন্নয়নে উপযুক্ত অবকাঠামা, নীতি-কৌশলের সঙ্গে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, নিরাপত্তা, সুশাসনের েেত্র অগ্রগতি অবশ্যম্ভাবী। এ েেত্র সরকারের পাশাপাশি দেশের সমাজ, রাজনীতি, অর্থনীতি সব েেত্র প্রতিনিধিত্বশীলদেরই দায়িত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ