ভরাট হয়ে যাচ্ছে ভূঞাপুরের সরকারি খাল ও পুকুর!

প্রকাশিত : ২ নভেম্বর, ২০১৮
অভিজিৎ ঘোষ
বিশেষ প্রতিনিধি

দিন দিন ভরাট হয়ে যাচ্ছে সরকারি খাল, পুকুর ও জলাশয়। এতে করে একদিকে যেমন সৃষ্টি হচ্ছে জলাবদ্ধতা অন্যদিকে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর পৌরসভা ও তার আশপাশ এলাকায় সামান্য বৃষ্টিতে ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে মারাত্মকভাবে।
জানা গেছে, পৌরসভায় সরকারি খাল ও পুকুর সচল করার জন্য ফসলান্দি টিএন্ডটি সংলগ্ন ব্রিজ, ফকিরাপুল ব্রিজ, শিয়ালকোল ব্রিজ, বিরামদী ব্রিজ ও করইতলা ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। কিন্তু কালের বিবর্তনে খালগুলো ভরাট হয়ে যাওয়ায় ব্রিজগুলো কোন কাজেই আসছে না। পুরাতন স্থাপনা শুধু স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে ব্রিজগুলো সেখানেই ঠায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। ভূঞাপুর বাসস্ট্যান্ড হতে শিয়ালকোল ব্রিজ পর্যন্ত যে খালটি ছিল সেটি প্রায় ভরাট হয়ে গিয়েছে। দেখে মনে হয় না এখান দিয়ে কোন এক সময় পানি প্রবাহিত হতো। এ খালটি ভরাট করে নির্মাণ করা হয়েছে স’মিল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, প্রেসক্লাব ও রিপোর্টার্স ইউনিটি, দোকানপাট, রাস্তাসহ স্থায়ী স্থাপনা। উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন সওজের পুকুর ভরাট করে গড়ে তোলা হয়েছে বাসস্ট্যান্ড ও মার্কেট। বাসস্ট্যান্ড হতে বঙ্গবন্ধু সেতু সড়কের বীরহাটি পর্যন্ত খালের রাস্তা নির্মাণ, মাটি ও পৌরসভার বর্জ্য ফেলে ভরাট করা হচ্ছে।
অন্যদিকে বাসস্ট্যান্ড হতে তারাকন্দি সড়কের পোস্ট অফিস পর্যন্ত খাল ভরাট ও স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ হওয়ায় সেটাও বন্ধ হয়ে গেছে। খাল ও পুকুরগুলো ভরাট হওয়ার ফলে সামান্য বৃষ্টিতে পৌরসভায় ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এমন অবস্থা সৃষ্টি হলেও সরকারি এই খাল পুকুরগুলো উদ্ধারের কার্যকর কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না কর্তৃপক্ষ। ফলে দিন দিন সরকারি খাল ও পুকুর ভরাট ও দখলের মহোত্সব চলছে। ভরাট ও স্থানীয় স্থাপনা নির্মাণ হলেও সেগুলো উচ্ছেদের কোন উদ্যোগ নিচ্ছে না টাঙ্গাইলের সওজ কর্তৃপক্ষ। ফলে দখলকারীরা দিন দিন খাল ও পুকুর ভরাট করে যাচ্ছে।
সড়ক ও জনপদ ভূঞাপুর অফিস সূত্রে জানা গেছে, পৌর এলাকার পুকুর ও খাল মিলে সওজের প্রায় ৫ থেকে ৬ একর জায়গা ভরাট ও দখল হয়ে গেছে।
ভূঞাপুর পৌরসভার কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র আব্দুস ছাত্তার জানান, পৌরসভার কোন উন্নয়ন কাজে আমাদের মতামত নেওয়া হয়। জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য পরিকল্পনা এবং তা বাস্তবায়ন হওয়া দরকার। এছাড়া খুব দ্রুত খাল, বিল, পুকুর সচল করা প্রয়োজন। পরিবেশ ভালো করার জন্য উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন।
টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপদের নির্বাহী প্রকৌশলী নুর আলম জানান, সম্প্রতি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য সওজের পক্ষ থেকে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। পর্যায়ক্রমে উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ