ভর্তি জালিয়াতিতে মাভাবিপ্রবি ছাত্রলীগ জড়িতর অভিযোগ

প্রকাশিত : ১ নভেম্বর, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (মাভাবিপ্রবি) শাখা ছাত্রলীগের একাধিক নেতা-কর্মীসহ একটি চক্র দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজে জালিয়াতির মাধ্যমে ছাত্র ছাত্রী ভর্তি করিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এদিকে ওই চক্রের কয়েকজন জালিয়াতির মাধ্যমে  মাওলানা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর জালিয়াতি অর্থ লেনদেনের সঙ্গে জড়িত একটি চক্রেরও সন্ধান মিলেছে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব এর অনুসন্ধানে জানা গেছে বড় অংকের অর্থ দিয়ে পরীক্ষায় জালিয়াতির মাধ্যমে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজে অযোগ্যরা চান্স পাচ্ছে।

এরজন্য জালিয়াত চক্রকে ৩ লাখ থেকে ১৪ লাখ টাকা দিতে হয়। এক ভুক্তভোগীর ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা দেয়ার স্বীকারোক্তিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন। এদিকে টাকা নেয়ার কথাও স্বীকার করেছে অভিযুক্ত ওই চক্রটি। এসব কথপোকথনের রেকর্ড গণবিপ্লবের কাছে রয়েছে। এছাড়া মাভাবিপ্রবি প্রশাসনের নির্ভরযোগ্য সূত্রের তথ্য এবং গণবিপ্লবের অনুসন্ধানে ওই চক্রটি মাভাবিপ্রবিতে জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তি হয়েছে তার নানা তথ্য উঠে এসেছে।

এদিকে নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক মেজর জেনারেল মাহমুদুল হাসান কলেজের এক ভুক্তভোগী ছাত্র জানায়, আমাকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করিয়ে দিবে। এরজন্য আমার বাবার কাছ থেকে তিন লাখ টাকা দাবী করলে আমার বাবা ২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা দেয়ার জন্য স্বীকার হয়। এরপর আমাকে ঢাকার ধানমন্ডি ভুতের গলি এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তিন তোলা বাসায় আমাকে আউট কৃত কোসেন এর তিনটি শিট পড়ানো হয়। পরে আমি পরীক্ষায় অংশগ্রহণে করলে আমি সাইন্সে এ ইউনিটে ১২৩২ স্থান করি।  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে এ ইউনিটে যদিও ৮ শ সিট রয়েছে সেখানে আমি ১২৩২ স্থান করায় তারা আমাকে জানায় এইটা কোনো বিষয় না। যারা আমাদের সাথে লাইন করে ভর্তি হয় তাদের ২ হাজারের উপর থেকেও নিয়ে থাকেন। এখন আমাকেও নিবে বলে আমার বাবার কাছ থেকে ২ লক্ষ ৭০ হাজারের যায়গায় ১০ হাজার টাকা কম দিয়ে পুরো টাকাটাই তাদের দেয়া হয়। এরপর আমি ভর্তি তালিকা থেকে বাদ পরে যাই। আমরা টাকা ফেরত চাইতে গেলে তারা বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে বলে দেন এই টাকা পাওয়া যাবে না। ……… চলবে

 

 

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ