ভুঞাপুরে চাঁদাবাজী মামলায় রফিক গ্রেপ্তার

প্রকাশিত : ১০ নভেম্বর, ২০১৯

ভূঞাপুর ১০ নভেম্বর : টাঙ্গাইলের ভুঞাপুরের কুখ্যাত চাঁদাবাজ ও প্রতারক রফিক দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর অবশেষে গত ৩নভেম্বর টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বৈল্লা বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। একই মামলায় অপর আসামী মেহেদী হাসান উজ্জল ২ মাস জেল খেটে হাইকোর্ট থেকে জামিনে বের হয়ে বাদী পক্ষকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্ন প্রকার হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে।


মামলার সুত্রে জানা যায়, ভুঞাপুর উপজেলার ফসলান্দি গ্রামের মো. দারোগ আলী মন্ডলের ছেলে মোজাম্মেল হকের কাছে কালিহাতী উপজেলার আদাবাড়ি গ্রামের মোশারফ দেওয়ানের ছেলে মেহেদী হাসান উজ্জল ও ভুঞাপুর সদরের বদির আলীর ছেলে মোটা অংকের টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল।

এরই জের ধরে গত বছরের ৩ আগষ্ট মোজাম্মেল হককে চা খাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে ডেকে ভুঞাপুর পশু হাসপাতালের পূর্ব পার্শ্বে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে মোজাম্মেলকে বলে বাসা ও জায়গা কিনছস কিন্ত আমাদের চাঁদা দিবে কে? এর পর তারা চার লাখ টাকা দাবি করে। টাকা দিতে অস্বীকার করায় মোজাম্মেলকে লাঠি ও লোহার এঙ্গেল দিয়ে বেদম প্রহার করা রফিক, উজ্জল ও তাদের সাঙ্গপাঙ্গরা।

এ সময় আশেপাশের লোকজন মোজাম্মেলের ডাক চিৎকার শুনে এগিয়ে আসলে তারা পালিয়ে যায়। পরে আহত অবস্থায় মোজাম্মেলকে ভুঞাপুর স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।


পরে ২৮ আগষ্ট মোজাম্মেল হক বাদী হয়ে ভুঞাপুর আমলী আদালতে রফিক ও উজ্জলকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।


৩ নভেম্বর টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বৈল্লা বাজার এলাকা রফিকের শ্বশুর বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে ভুঞাপুর থানা পুলিশ। অপর দিকে গত ১ সেপ্টেম্বর মেহেদী হাসান উজ্জলকেও গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ। কিন্ত বর্তমানে উজ্জল জামিনে বের হয়ে মামলা তুলে নিতে বাদি ও তার পরিবারের লোকজনকে বিভিন্ন প্রকার হুমকি ধামকি করছে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া