কারিগরি কম্পিউটার ডিপ্লোমা কোর্স পরীক্ষা

ভূঞাপুরে পরীক্ষার হলেই উত্তর লিখে দিচ্ছেন পরীক্ষকরা!

অভিজিৎ ঘোষ:

পরীক্ষার হলেই পরীক্ষার্থীদের উত্তর দিলে দিচ্ছেন হল পরিদর্শকরা। উদ্ধৃত উত্তরপত্র অফিসে জমা না দিয়ে সেই উত্তরপত্রে উত্তর লিখে পরীক্ষার্থীদের দিচ্ছেন হলে দায়িত্বরত শিক্ষকরা। সরেজমিনে কারিগরি বোর্ডের অধীন ৬মাসের কম্পিউটার ডিপ্লোমা কোর্স পরীক্ষার শহীদ জিয়া ডিগ্রী মহিলা কলেজ কেন্দ্রে এমন দৃশ্য দেখা গেছে।
জানা গেছে, কারিগরি বোর্ডের অধীন জাতীয় দক্ষতা মান ভিত্তিক ট্রেড ৬ মাস কম্পিউটার ডিপ্লোমা কোর্স (ডাটাবেস) ও কম্পিউটার বেসিক এপ্লিকেশন পরীক্ষা সারাদেশের ন্যায় ভূঞাপুর উপজেলার তিনটি কেন্দ্র অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার শহীদ জিয়া মহিলা ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্রে ভূঞাপুরের আলিফ কম্পিউটার ইন্সিটিটিউট, মা-বাবার দোয়া কম্পিউটার প্রশিক্ষক সেন্টার, ঘাটাইল উপজেলার মিসমিল্লাহ, এডভান্সড, এসএম কম্পিউটার, ধনবাড়ি উপজেলার আমিন কম্পিউটার, গোপালপুর উপজেলার আমিন কম্পিউটার দ্বিব্যজ্ঞান কম্পিউটার প্রশিক্ষক সেন্টার ও কালিহাতী উপজেলার মাসুদ কম্পিউটার সেন্টারসহ ৬টি উপজেলার ৯টি প্রতিষ্ঠানের এক হাজারের বেশি পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন। একটি রুমের বেঞ্চে তিনজন শিক্ষার্থী বসে শিক্ষকদের দেয়া উত্তরপত্র দেখে পরীক্ষা দিচ্ছে। শুধু তাই নয় যে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা যে রুমে বসে পরীক্ষা দিচ্ছে সেই রুমের পরিদর্শকের দায়িত্ব পালন করছেন সেই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা। এমন দৃশ্যের ছবি তুলতে গেলে উপজেলা মাধ্যমিক একাডেমিক সুপারভাইজার তাহমিনা আক্তার নিষেধ করেন। এমন সাংবাদিকদের সাথে অশোভন আচরন করেন।
অভিযোগ আছে একাডেমিক সুপারভাইজার তাহমিনা আক্তারকে মোটা অঙ্কের ঘুষ দিয়ে প্রতিষ্ঠান প্রধানরা অনৈতিকভাবে পরীক্ষার নিয়মকানুন তোয়াক্কা না করে পরীক্ষার্থী উত্তর লিখে দিচ্ছেন।

এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক একাডেমিক সুপারভাইজার তাহমিনা আক্তার জানান, পরীক্ষা আপনারাও যেমন দেখছেন আমিও তেমন দেখছি। হলে প্রবেশ করে কোন ছবি তোলা যাবে না। তিনি রেগে গিয়ে ইত্তেফাকের সংবাদদাতা ও দৈনিক মজলুমের কণ্ঠ বিশেষ প্রতিবেদক অভিজিৎ ঘোষকে তোলা ছবি ডিলিট করতে বলেন। শুধু তাই নয় পরীক্ষার্থীদেরকে দেয়া শিক্ষকদের উত্তরপত্রের ছবি কেন তুলেছি সেই প্রশ্ন করেন।

শহীদ জিয়া ডিগ্রী মহিলা কলেজ কেন্দ্রের বিভিন্ন অনিয়মের বিষয়গুলোর সত্যতা স্বীকার করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ জানান, কেন্দ্র পরিদর্শনকালে বিভিন্ন অনিয়ম-ক্রুটি পরিলক্ষিত হয়েছে। এবিষয়ে কারিগরি বোর্ড বরাবর লিখিত প্রতিবেদন পাঠানো হবে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ