ভূঞাপুরে বিদ্যালয়ের দেয়াল নির্মাণে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা ও রুল জারী

প্রকাশিত : ৩০ মে, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

স্টাফ রিপোর্টারঃ

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বাউন্ডারী দেয়াল নির্মাণে নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে হাইকোর্ট। সেই সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কেন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবেনা, জানতে চেয়ে রুল জারী করেছে সুপ্রিম কোটের্র হাইকোর্ট ডিভিশন। গত ২৮ মে কাগমারীপাড়া বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর দায়ের করা রিট পিটিশনের (নম্বর ৭২৭৮) ভিত্তিতে হাইকোর্ট এ আদেশ দেয়। পিটিশন কারীর পক্ষে হাইকোটের সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যরিষ্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, এডভোকেট ফয়সাল হাসান আরিফ, এডভোকেট কায়সার উজ্জামান শুনানীতে অংশ নেন। রিটে কাজ বন্ধের আদেশ দেওয়া হয় এবং রুল নিশিতে টাঙ্গাইলের ডিসি,এস পি, ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে দেয়াল নির্মাণের জন্য কেন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে না জানতে চেয়ে রুল জারী করেছেন সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহাম্মেদের ডিভিশন বেঞ্চ।

জানা যায়, টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ৩০০ বছরের পুরনো কাগমারীপাড়া বাজারের জমিতে কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সীমানা দেয়াল নির্মাণের জন্য প্রস্তুতি গ্রহন করে। এদিকে স্থানীয় লোকজন, স্থানীয় বাজার কমিটি তাদের জমিতে দেয়াল নির্মাণের বিরোধিতা করে। সে মোতাবেক স্থানীয় দেড় শতাধিক লোকজনের স্বাক্ষরিত একটি আবেদন উপজেলা চেয়ারম্যান বরাবর পেশ করেন। তাতে দেয়াল নির্মাণ বন্ধ না হওয়ায় স্থানীয় সমাজসেবীকা ফেমিলি তালুকদার তার নিজস্ব ভূমিতে স্কুলের দেয়াল নির্মাণ বন্ধ করার জন্য আদালতে আবেদন করলে আদালত ১৪৪ ধারা জারি করেন। সর্বশেষ কাগমারীপাড়া বাজার সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বাজারের জায়গায় দেয়াল নির্মাণ বন্ধের দাবিতে গত ১৬ মে টাঙ্গাইলের ডিসি বরাবর লিখিত আবেদন করেন। আবেদনে বলা হয় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার কাগমারী শিয়ালকোলস্থ মৌজার বি.আর.এ খতিয়ান নং ০১ এর ৪৮০ ও ৪৮১ নং দাগে এবং বি.আর.এস. ১/১ নং খতিয়ানে ৪৮১ ও ৪৮২ নং দাগে মোট ১.৬২ একর জমি বাংলাদেশ সরকারের নামে রেকর্ডভূক্ত হয়ে লিপিবদ্ধ আছে। উক্ত ২টি খতিয়ানে ৬শতাংশ জমি স্কুল অর্থ্যাৎ কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১.২০ একর জমি খেলার মাঠ এবং ৩৬ শতাংশ জমি হাট এর নামে লিপিবদ্ধ থাকলেও মূলত ৩৪ শতাংশ জমির উপর উক্ত কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৮ শতাংশ জমির উপর ব্যক্তিমালিকানাধীন ফেমিলি তালুকদারের একটি বাড়ী ব্যতীত বাকী ১.২০ একর জমিতে ব্রিটিশ আমল থেকে কাগমারীপাড়া বাজার হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কিন্তু এই বাজারটিকে ধ্বংস করার জন্য একটি মহল ষড়যন্ত্র করে আসছে। বাজারের মাঝখান দিয়ে বাজারের জমিতে অবৈধভাবে দেয়াল নির্মাণ হলে ৩০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী বাজারটি ধ্বংস হয়ে গেলে শতশত ব্যবসায়ী, শ্রমিক, দোকান মালিকগণ বিপুল ক্ষতির সম্মুখীন হবেন বলে বাজারের ব্যবসায়ীরা জানিয়ে আসছিলেন। গত ২০ মে বাজার বনিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ হাইকোর্টে সিনিয়র আইনজীবী হাসান আরিফের মাধ্যমে ডিমান্ড অফ জাষ্টিস নোটিশ পাঠান। নোটিশে কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় তিনি হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন।

এদিকে হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দেয়াল নির্মানের কাজ অব্যাহত রেখেছে কর্তৃপক্ষ। এ বিষয়ে ফাইলিং আইনজীবী ফয়সাল হাসান আরিফ সাংবাদিকদের জানান, “হাইকোর্টের আদেশ ইগনোর করলে তার বিরুদ্ধে কনডেম হবে। হাইকোর্ট দেয়াল নির্মানের বিষয়ে স্থিতাবস্থার আদেশ এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে রুল জারি করেছেন। ”

ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঝোটন চন্দ রিটের বিষয়ে বলেছেন, “ রিটের সার্টিফাইট কপি পেয়েছি। কাজ এখনো চলছে কিনা জানিনা। আমি এখন অর্জুনাতে আছি ।” রিট পিটিশনার মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ হাইকোর্টের আদেশে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন,“ এ আদেশের মাধ্যমে ৩০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী বাজারটি রক্ষা পেল।” তবে তিনি আদেশের পরেও নির্মান কাজ বন্ধ না হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করেন।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ