ভূঞাপুরে হাজার হাজার একর জমির ফসল পানির নিচে

প্রকাশিত : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

Dan photo 2ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদীর পানি ১৩ সে.মি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৬২ সে.মি উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে উপজেলার হাজার হাজার একর জমির ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। বন্যা কবলিত এলাকায় খাদ্য-শিশু খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানীয় সংকট দেখা দিয়েছে।
জানা গেছে, উপজেলার চারটি ইউনিয়নের হাজার হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। যমুনা নদীর পানি আবার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এ সকল গ্রামে নতুন করে পানি উঠতে শুরু করেছে। চরম দুর্ভোগে পড়া এ অঞ্চলের মানুষগুলো নিরাপদ স্থানে সরে যেতে শুরু করেছে। বাড়িঘর ছাড়ার কারণে তাদের ভোগান্তি এখন চরমে। একদিকে উপজেলায় ৩৭টি বিদ্যালয়ে পানি ওঠায় বিপাকে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। অন্যদিকে উপজেলার চরাঞ্চল ছাড়াও ফলদা ইউনিয়নের মাইজবাড়ি, ঝনঝনিয়া, ঢেপাকান্দি, আগতেরিল্যা, ফলদা, ধুবলিয়া, পাছতেরিল্যা, মমিনপুর সহ বিভিন্ন এলাকায় পানি ঢুুকে পড়ায় হাজার হাজার একর জমির আউশ, আমন ধান ও সবজি খেত পানিতে তলিয়ে গেছে। জমির আবাদী ফসল নষ্ট হওয়ার আশঙ্কায় কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

11954680_145316255811654_4712955649588939601_nআগতেরিল্যা গ্রামের বর্গা চাষি বাদল মিয়া জানান, তিনি সারা বছর খাওয়ার সিদ্ধ ধান বিক্রি করে ৬ বিঘা জমিতে ধান লাগিয়েছেন। সব ধান পানিতে ডুবে যাওয়ায় এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। মাইজবাড়ি গ্রামের কৃষক মঙ্গল শেখ জানান, তিনি এবার ৫০শতাংশ জমিতে ধানের চারা লাগিয়েছেন, কিন্তু পানি বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে জমির ধান একেবারে তলিয়ে গেছে। যদি পানি দুই এক দিনের মধ্যে না কমে তাহলে ধান গাছ পানির নিচে থাকায় পঁচে বিনষ্ট হয়ে যাবে। এসব এলাকায় শুকনো খাবার আর বিশুদ্ধ পানির সংকট ছাড়াও বিভিন্ন ধরণের পানিবাহিত রোগ দেখা দিয়েছে।

9202133_nএ বিষয়ে ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল আওয়াল বলেন, উপজেলার চারটি ইউনিয়নের জন্য ত্রাণ হিসেবে ২০ মে.টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। আরো ৪০ মে.টন চালের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে। পেলে পানিবন্দি পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হবে। এসব এলাকায় মেডিকেল টিম পাঠানো হয়েছে। তারা স্যালাইন, পানি  বিশুদ্ধ করণ ট্যাবলেট সহ বিভিন্ন জীবন রক্ষাকারী ওষুধ বিতরণ করছে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ