ভূঞাপুরে হিন্দু শিক্ষার্থীদের গরুর মাংস খাওয়ানোর অভিযোগ

প্রকাশিত : ২৯ জানুয়ারী, ২০১৯

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা রামসুন্দর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে হিন্দু শিক্ষার্থীদের গরুর মাংস খাওয়ানোর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় সোমবার (২৮ জানুয়ারি) ক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা ক্লাশ বর্জন করেছে এলাকাবাসী প্রথমে স্কুল ঘেরাও করে প্রতিবাদ করে। পরে স্কুল বন্ধ করে দেয় তারা।

স্কুলের কয়েকজন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শনিবার (২৬ জানুয়ারি) উপজেলার ফলদা রামসুন্দর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের নিয়ে গাজীপুরের সাফারি পার্কে বার্ষিক বনভোজনের আয়োজন করেন। স্কুলের দুই শতাধিক শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে চাঁদা তুলে এ বনভোজন করা হয়। বনভোজনে যাওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে হিন্দু ধর্মাবলম্বী ২২ জন শিক্ষার্থী ছিল। 

হিন্দু শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা জানান, বনভোজনে দুপুরে খাওয়ার জন্য গরুর মাংসের আয়োজন করে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সেখানে হিন্দু শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা কোনো খাবারের ব্যবস্থা ছিল না। আগে থেকে তাদের বিষয়টা জানানোও হয়নি। হিন্দু শিক্ষার্থীরা খাওয়ার পর জানতে পারে তাদের গরুর মাংস খাওয়ানো হয়েছে। পরে বিষয়টি স্কুলের প্রধান শিক্ষক জাফর ইকবালকে জানানো হলে তিনি বলেন, একদিন খেলে কিছু হবে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক হিন্দু শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলে, গাজীপুরের সাফারি পার্কে পিকনিকে যাওয়ার জন্য আমরা ৩০০ টাকা করে চাঁদা দিয়েছি। গরুর মাংসের কথা প্রধান শিক্ষক স্যারকে জানালে তিনি বলেন, একদিন খেলে কিছু হবে না, খাবি না তো আসলি কেন? পরে বিষয়টি আমাদের অভিভাবকদের অবহিত করি। এ ঘটনায় আজ  প্রধান শিক্ষকের শাস্তি দাবি করে আমরা ক্লাশ বর্জন করেছি। এ ছাড়া এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে বিদ্যালয় বন্ধ করে দেয়।

উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি সরন দত্ত গণবিপ্লবকে বলেন, পিকনিকে যদি হিন্দু শিক্ষার্থীদের গরুর মাংস খেতে দেওয়া হয় তাহলে ঠিক হয়নি। শুনেছি প্রধান শিক্ষক হিন্দু শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা খাবারের ব্যবস্থা করেননি। এতে এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। উত্তেজিত এলাকাবাসী বিদ্যালয় ঘেরাও করে এর প্রতিবাদ করেছে।

ওই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি তাহেরুল ইসলাম তোতা গণবিপ্লবকে বলেন, বিষয়টি নিয়ে মঙ্গলবার ইউএনও, ওসিসহ এলাকার লোকজন নিয়ে জরুরি মিটিং করব। সেদিন এর একটি সুষ্ঠু সুরাহা করা হবে।

ভূঞাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রাশিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে গণবিপ্লবকে বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এখন বিদ্যালয় এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

ফলদা রামসুন্দর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাফর ইকবাল বনভোজনে হিন্দু শিক্ষার্থীদের গরুর মাংস খাওয়ানোর বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তবে তিনি এলাকায় উত্তেজনার কথার স্বীকার করে বলেন, ‘এ বিষয় নিয়ে আগামীকাল বসা হবে।’

এ বিষয়ে ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ গণবিপ্লবকে বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি। বিদ্যালয়ের পিকনিকে হিন্দু শিক্ষার্থীদের গরুর মাংস খেতে দিতে পারেন না। সরেজমিনে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেলে অবশ্যই দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া