ভূঞাপুরে ৫ কোটি টাকার গাইড বানিজ্য

প্রকাশিত : ৯ মার্চ, ২০২০

ভূঞাপুর ৯ মার্চ : সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া মিতুর বাবা ভ্যান চালিয়ে কোন রকমে সংসার চালিয়ে যাচ্ছেন। এবছর মিতু ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে উত্তীর্ণ হয়ে ভূঞাপুর উপজেলার ধুবলিয়া মোবারক মাহমুদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছে। কিন্তু গাইড বই কেনার কোন সামর্থ্য নেই তার বাবার। মিতুর মত নবম শ্রেণির আরেক শিক্ষার্থী হাবিবা আক্তার লিজার বাবাও একজন ভ্যান চালক। লিজার তিনবোন। এরমধ্যে দুই বোন পড়াশুনা করে। তাদের পড়াশুনা চালানোর খরচ বহন করতে ধারদেনা করতে হয় তার বাবাকে। এই অবস্থায় স্থানীয় সেচ্ছাসেবী প্রতিভা ছাত্র সংগঠনের পক্ষ থেকে ওই দুই শিক্ষার্থীকে গাইড বই কিনে দেয়া হয়েছে। শুধু ওই দুই শিক্ষার্থীই নয় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার সকল শিক্ষার্থী গাইড বই কিনতে বাধ্য হচ্ছে। প্রকাশ্যে গাইড বিক্রি হলেও জানেন না স্থানীয় প্রশাসন। তবে গাইড বই বিক্রির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থার কথা গণবিপ্লবকে বলেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. নাসরীন পারভীন।

জানা গেছে, এবছর উপজেলায় মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি থেকে অনুপম প্রকাশনী ও গ্র্যামারের জন্য অক্সফোর্ড এবং মাদরাসা সমিতি লেকচার পাবলিকেশনের গাইড নির্ধারণ করেছে। এরপর প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ওই দুইটি পাবলিকেশনের গাইড কিনতে অলিখিতভাবে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ৬ষ্ঠ শ্রেণির একজন শিক্ষার্থীর গাইড কিনতে খরচ হচ্ছে ১২৪০ টাকা, সপ্তম শ্রেণির ১৩০০টাকা, ৮ম শ্রেণির ১৭০০টাকা ও নবম শ্রেণি ৩৫০০টাকার মুল্যে গাইড কিনতে হচ্ছে। এতে উপজেলায় মাধ্যমিক ও মাদরাসার ১৮৪৪২জন শিক্ষার্থীকে প্রায় ৫ কোটি টাকার নোট গাইড কিনতে হচ্ছে। অথচ গাইড নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলেও উপজেলায় দেদারছে গাইড বিক্রি হচ্ছে। যদিও প্রশাসন থেকে এখন পর্যন্ত কার্যকর কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

অভিযোগ আছে, শিক্ষক সমিতিকে মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে গাইডগুলো বাজারজাত করছে লেকচার ও অনুপম পাবলিকেশন।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ হতে নবম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৫ হাজার ১৩২জন ও মাদরাসায় ৩হাজার ৩১০জন। এতে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে বাধ্যতামূলক গাইড কিনতে হচ্ছে।

উপজেলার ভারই গ্রামের আবুল কাশেম নামের এক অভিভাবক গণবিপ্লবকে জানান, ভ্যান চালিয়ে দুই মেয়েকে স্কুলে পড়িয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছি। এরমধ্যে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় অনেক টাকার মুল্যের গাইড বই কিনতে হবে। সংসার চালাবো নাকি মেয়ের পড়াশুনার জন্য গাইড কিনবো।

ধুবলিয়া গ্রামের আব্দুল হামিদ নামের আরেকজন অভিভাবক গণবিপ্লবকে জানান, গাইড বই সরকার নিষিদ্ধ করেছে কিন্তু বাধ্য হয়ে কিনতে হচ্ছে। বিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীরা গাইড ক্রয় করছে।

উপজেলার একটি কোচিং সেন্টারের শিক্ষক রেজওয়ানুল রানা গণবিপ্লবকে জানান, শিক্ষার্থীরা যেসব গাইড ক্রয় করছে সেগুলোর কাগজের মান নিম্নমানের। এছাড়া গাইডে অনেক ধরনের ভুল উত্তর দেয়া রয়েছে সেগুলো মূল পাঠ্য বইয়ের সাথে মিল নেই।

উপজেলা শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজী জহুরুল ইসলাম গণবিপ্লবকে জানান, শিক্ষার্থীরা তাদের পছন্দ অনুযায়ী গাইড ক্রয় করছে। এতে শিক্ষক সমিতি থেকে নির্দিষ্ট কোন গাইড নির্ধারণ করা হয়নি।

উপজেলা মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি আব্দুছ সোবহান গণবিপ্লবকে জানান, শুধু লেকচার গাইড নয় অন্য কোম্পানীর গাইডও ক্রয় করছে শিক্ষার্থীরা।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শাহীনুর ইসলাম গণবিপ্লবকে জানান, নোট গাইড বিক্রি ও বাজারজাত নিষিদ্ধ সারাদেশেই। উপজেলায় যদি গাইড বিক্রি ও বাজারজাত করা হয় তথ্য পেলে আইনগত ব্যবস্থাসহ উধ্বর্তন কর্মকর্তাদের বরাবর লিখিতভাবে জানানো হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. নাসরীন পারভীন গণবিপ্লবকে জানান, গাইড বই বিক্রি নিষিদ্ধ। যদি গাইড বই বিক্রির খবর পাই তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া