ভ্রাম্যমাণ আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি, বালু উত্তোলনের মহোৎসবে হযরত চেয়ারম্যান

প্রকাশিত : ২৪ নভেম্বর, ২০১৬
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

স্টাফ রিপোর্টারঃ

tangail-bangobondu-setu-04

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব এলাকায় অবৈধ ড্রেজার মেশিন উচ্ছেদে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করলেও বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ও ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে অবৈধভাবে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন ও প্রতিদিন শত শত ট্রাক বালু বিক্রি করছে সরকার দলীয় চেয়ারম্যান হযরত আলী তালুকদার।
বুধবার (১৬ নভেম্বর) দুপুরে কালিহাতী উপজেলার বঙ্গবন্ধু সেতু সংলগ্ন বেলটিয়া গ্রামে যমুনা নদী থেকে অবৈধ ভাবে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করার সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তা বন্ধ করে দেয়া হয়। সহকারি কমিশনার মো. আসাদুজ্জামানের নেতৃতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এসময় গোহালিয়াবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান হযরত আলী তালুকদারের ছেলে ওবায়েদুরকে(২৫) ৩ মাস ও ভাগ্নি জামাতা বেল্লালকে এক মাসের কারাদন্ড এবং করিম আকন্দর ছেলে সাইফুল আকন্দ (৩৫), আ. রাজ্জাক আকন্দের ছেলে কবিরকে সাড়ে চার লক্ষ্য টাকা জরিমানা করা হয়। পরে তারা জামিনে বেড়িয়ে আসে। এদিকে, ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট চলে আসার পরপরই বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বালু উত্তোলন ও শত শত ট্রাক বালু পরিবহন করেই চলেছে হযরত আলী চেয়ারম্যান।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বঙ্গবন্ধু সেতু পুর্ব সংযোগ সড়কের পুর্ব থানার পশ্চিম পাশের হাতিয়া, বেলটিয়া, এলেঙ্গা ও বিনোদলুহরিয়ায় ও বঙ্গবন্ধু সেতু কর্তৃপক্ষের (বাসেক) এর জায়গায় অবৈধভাবে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন ও পরিবহন করা হচ্ছে। আর সেখানে থেকে শতশত ট্রাক বালু যাচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। ফলে নদী ভাঙ্গনের সাথে চরম হুমকির মুখে রয়েছে ট্রাক যাতায়াতকারী রাস্তার উপর দিয়ে যাওয়া গ্যাস পাইপগুলো। সেখানে কয়েকজন এলাকাবাসীর সাথে কথা হলে নাম প্রকাশের না করার শর্তে জানান, তাদের বাড়ি ছিল নদী থেকে এক থেকে আধা কিলোমিটার দূরে। বালু উত্তোলন করার কারণে নদী একেবারে বাড়ির কাছে এসে পড়েছে। হযরত আলী তালুকদারের বিরুদ্ধে কেও কিছু বলতে পারে না। উল্টো হুমকির সম্মুখিন হতে হয়। তিনি প্রশাসন ম্যানেজ করে ও আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতার ছত্রছায়ায় এই বালু ব্যবসা পরিচালনা করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত তার ছেলেকে ধরে নিয়ে গেলে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে ছারিয়ে নিয়ে আসে।
গোহালিয়াবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান হযরত আলী তালুকদারের সেলফোনে যোগাযো করা হলে উচ্চস্বরে তিনি বলেন বালুঘাট আপনারা চালান আমি কোন অবৈধ বালুঘাট চালাই না। এইবলে লাইন কেটে দেয়।
এবিষয়ে, কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু নাসার উদ্দিন বলেন, জেলায় থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়ে। এর পরে আবার বালু উত্তোলন করা হচ্ছে কিনা আমার জানা নেই। আমি গ্রামের বাড়ি আছি এসে বিষয়টি দেখবো।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ