মধুপুরে অবৈধ করাতকলে শালবন উজার

প্রকাশিত : ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার:

দেশের অন্যতম বৃহত্তম প্রাকৃতিক বন ঐতিহ্যবাহী মধুপুর শালবন আজ চরম বিপন্ন দশায় পতিত হচ্ছে। এ বনের মোট পাঁচ ভাগের চার ভাগই উজাড় হয়ে গেছে। যেসব কারণে এই বৃহত্তর বন উজাড় হচ্ছে তার মধ্যে অবৈধ করাতকল অন্যতম। মধুপুরে সরকারি নিয়মনীতির কোন তোয়াক্কা না করেই ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে উঠেছে করাত কল (স-মিল)। প্রশাসনের নাকের ডগায় এসব অবৈধ করাত কল গড়ে উঠলেও। কখনো বা রহস্যজনক কারণে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে। সরকারি বিধিমালা না মেনেই পরিচালিত হচ্ছে করাত কলগুলো।

অভিযোগ রয়েছে, রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন, স্থানীয় প্রশাসন ও বন বিভাগ দুর্বৃত্তদের সহায়তা করে থাকে। কখনো রহস্যজনক কারণে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে স্থানীয় প্রশাসন। বন বিভাগের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা মিল মালিকদের নিকট থেকে মাসোয়ারা আদায় করে। এতে করে লাভবান হয় অসাধু কর্মকর্তা ও মিল মালিকরা। বনায়ন এলাকায় অবৈধভাবে স্থাপন করা হয়েছে শতাধিক অবৈধ করাত কল। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের ছত্রছায়ায় গড়ে ওঠা এই বনে রাতের আধারে নিমিষে সাফাই করা হচ্ছে সামাজিক বনায়নের গাছ।

বন অধিদপ্তর ও কয়েকটি সংশ্লিষ্ট গবেষণা প্রতিষ্ঠানের তথ্য অনুযায়ী, হাজার বছরের প্রাচীন ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন ও চট্টগ্রামের পাহাড়ি বনাঞ্চলের পর দেশের তৃতীয় বৃহত্তম প্রাকৃতিক বন মধুপুর শালবন। এ বনকে দেশের মধ্যাঞ্চলীয় বনভূমি হিসেবেও আখ্যায়িত করা হয়ে থাকে। এ বনের বিস্তৃতি গাজীপুর, টাঙ্গাইল ও মোমেনশাহীর অংশ জুড়ে। এক সময় রাজধানী ঢাকার কাটাবন পর্যন্ত এ বনের সীমানা থাকলেও আজ তা শুধুই অতীত, বইয়ের পাতায় লেখা ইতিহাস।

টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ জেলার অংশটুকু মধুপুর গড় বা শালবন নামে পরিচিত। শালগাছের মুল বা শিকড় থেকে গজানো চারায় গাছ হয় বলে স্থানীয়রা একে গজারী বনও বলে থাকে।

মধুপুর ডিগ্রী কলেজের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবদুস সালাম বলেন, এ বনে গজারী গাছ নেই। মধুপুরকে শালবন বলেই জানি। স্থানীয় ভাষায় গজারী বন বলা হয়।

মধুপুর বনের বর্তমান আয়তন সম্পর্কে সঠিক কোন তথ্য নেই বন বিভাগে। তবে সংশ্লিষ্ট বিভাগ ধারণা করে টাঙ্গাইলের মধুপুর, ঘাটাইল, সখীপুর, মির্জাপুর এবং মংমনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা, ফুলপুর ও ভালুকার কিছু অংশ নিয়ে প্রায় ৬২ হাজার ৫শ’ একর বনভূমি রয়েছে। এর মধ্যে কাগজ-কলমে মধুপুর শালবনের আওতায় রয়েছে ৪৫ হাজার ৫৬৫ দশমিক ৩৮ একর বনভূমি। এই বিশাল বনভূমির প্রায় ৩৫ হাজার একর এখন অবৈধ জবরদখলকারীদের হাতে চলে গেছে। বন উজাড় হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে নানা ছল-ছুঁতোয় বনাঞ্চলের ভূমিও বেদখল হয়ে গেছে।

বেসরকারি সংস্থা ঢাকা ইনস্টিটিউট অব কালচারাল অ্যাফেয়ার্স (ঢাকা আইসিএ) ও গ্লোবাল ফরেস্ট কোয়ালিশন নেদারল্যান্ডের (জিএফসি) তথ্য অনুযায়ী, মধুপুর শালবনের আয়তন ছিল প্রায় ৪৬ হাজার একর। এখন অস্তিত্ব রয়েছে মাত্র ৯ হাজার একরের। এ হিসেবে মোট বনভূমির পাঁচ ভাগের চার ভাগই উজার হয়ে গেছে ও এই বিশাল অংশ দখল করে রেখেছে বিমানবাহিনীসহ ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠান।

সরেজমিন পরিদর্শন ও অনুসন্ধানে জানা যায়, এ বন ধ্বংসের পেছনে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নদের সাথে অলিখিত সমঝোতায় টাকার বিনিময়ে দখলে সহায়তা করে একশ্রেণীর বন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। বন বিভাগের সৎ কর্মকর্তা কর্মচারীদের এখানে হয় ‘অবৈধ বাণিজ্যের’ ভাগ নিতে হয়, নয়তো চুপ থাকতে হয়। স্থানীয় ও পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধেও সংঘবদ্ধ গাছচোর ও ভূমিখেকোদের পাতিত্ব করার প্রচুর অভিযোগ রয়েছে।

স্থানীয়রা বলছে, পেশাদার গাছচোর ও কাঠ পাচারকারীরা দিনের চেয়ে রাতের আঁধারে তাদের অপকর্ম সারলেও এসব গাছ ও কাঠ নিয়ে মজুদ করা হয় বন এলাকার স’মিলগুলোতে। আইনের চোখকে ফাঁকি দিতে পুলিশ ও বন বিভাগের সাথে অলিখিত চুক্তির ভিত্তিতে গাছচোরেরা বিশেষ ধরণের টোকেন ব্যবহার করে থাকে। মধুপুর বনের গাছ লোপাটের ‘চক্র কাহিনী’ এখন সবারই জানা থাকলেও তা ভেঙ্গে স্থায়ী উদ্যোগ নেই।

জানা যায়, বর্তমান মহাজোট সরকারের আমলে মধুপুর বন নিয়ন্ত্রণ করছেন মধুপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার শফিউদ্দিন মনি ও সাধারণ সম্পাদক খন্দকার সরোয়ার আলম খান আবু। গত চার দলীয় জোট সরকারের সময় শালবন নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে ছিল বিএনপির সভাপতি জাকির হোসেন সরকার ও তার লোকজন। রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের সাথে সাথে নিয়ন্ত্রকও বদলায় বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পরিষদের চেয়ারম্যান সরোয়ার আলম খান আবুর যোগসাজশে অবৈধ করাতকলের মালিকরা নির্বিঘেœ তাদের মিল চালিয়ে যাচ্ছেন। করাতকলের মালিকরা সমিতির মাধ্যমে বছরে কয়েক মোটা অঙ্কের টাকা তুলে দিচ্ছেন ওই নেতার পকেটে।

তবে করাতকল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু এসহাক জানান, বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদিতে কিছু চাঁদা তুলে দেই তাকে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বন এলাকার মধ্যে কোনো প্রকার করাতকল না থাকার কথা থাকলেও উপজেলার চারটি বিটে শতাধিক করাতকল রয়েছে। শুধুমাত্র মহিষমারা বিটের মধ্যেই রয়েছে ৩৯টি কলাতকল। এই বিটের শালিকাবাজারে ৪টি, গারোবাজারে ৬টি, জয়নাতলীবাজারে ৪টি, চাপড়িবাজারে ২টি, নেদুরবাজারে ৩টি, মোটেরবাজারে ৬টি করাতকল রয়েছে।

শালিকাবাজারের করাতকলের মালিক মোতালেব হোসেন, মোহাম্মদ আলী ও আমজাদ আলী জানান,বন কর্মকর্তা ও নেতাদের টাকা-পয়সা দিয়ে মিল চালাতে হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন করাককল মিস্ত্রী জানান, প্রতি মাসে বিট কর্মকর্তাকে টাকা দিতে হয়।

কুড়ালিয়াবাজারের সোহেল রানা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীগের সভাপতি আহম্মদ আলীকে টাকা দিয়ে অবৈধভাবে সোহেল স’মিলে নামে ট্রেড লাইসেন্স নিয়েছেন। অবৈধ করাতকলকে ইউনিয়ন পরিয়দ ট্রেড লাইসেন্স দিতে পারে কিনা জানতে চাইলে কুড়ালিয়া ইউপি সচিব আনোয়ার হোসেন জানান, অবৈধ ব্যবসাকে লাইসেন্স দেয়ার নিয়ম নেই। এমনটি হয়েছে কিনা খোঁজ নিয়ে দেখবো।

মহিষমারা বিট কর্মকর্তা সুজাত আলীকে মিলপ্রতি ২ হাজার টাকা মাসোয়ারা দিতে হয় বলে সংশ্লিষ্ট অনেকেই জানিয়েছেন। এ অভিযোগ অস্বীকার করে মহিষমারা বিট কর্মকর্তা সুজাত আলী বলেন, ‘মিল চালাতে নিষেধ করি বলে মালিকরা মিথ্যে অভিযোগ করেছেন।’

জয়নাতলী বাজারের মিল মালিক নজরুল ইসলাম জানান, আমাদের মিল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু এসহাক উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সরোয়ার আলম খানের নাতি হয়।

মিল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু এসহাক সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘স্থানীয় এম.পি এবং ইউএনও একবার করাতকল বন্ধ করার চেষ্টা করেছিল কিন্তু পারেননি।’

মধুপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার সরোয়ার আলম খান আবু বলেন, ‘বন ধ্বংস হওয়ার পেছনে আওয়ামী লীগ নেতারা জড়িত নয়। মধুপুরের প্রশাসন ও বনকর্মকর্তারাদের যোগসাজশে মধুপুরবন উজাড় হচ্ছে।’

চাড়ালজানি বিট কর্মকর্তা আনিছুর রহমান অবৈধ করাতকল বন্ধ না করার অসহায়ত্ব প্রকাশ করে জানান, একবার ৫টি করাতকলের চাকা খুলে আনলে স্থানীয় নেতারদের নিকট লাঞ্ছিতও হয়েছেন বলে দাবি করেন।

সহকারি বন কর্মকর্তা (এসিএফ) এম.এ হাসান বলেন, ‘আমরা বনের ভিতর অবৈধ করাতকল বন্ধের চেষ্টা করছি। উপজেলার প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করে অচিরেই এর একটি ব্যবস্থা নেব।’

মধুপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রমেন্দ্র নাথ বিশ্বাস জানান, স্থানীয় নেতৃবৃন্দ সজাগ না হলে প্রশাসনের একার পক্ষে বন রক্ষা করা যাবে না। তিনি জানান এসিএফের সাথে আলোচনা করে দেখব কিভাবে এই ঐতিহ্যবাহী বনকে রক্ষা করা যায়।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল বন কর্মকর্তা হোসাইন মুহম্মদ নিশাদ বলেন, যদি কোনো বনকর্মকর্তা কর্মচারির বিরুদ্ধেও যদি কোনো বনঅপরাধের কোন অভিযোগ আসে আমরা তাৎক্ষিক ব্যবস্থা নিয়েছি এবং নিব এ বিষয়ে কেনো ছাড় নেই । তবে অবৈধ করাত কলের বিষয়ে আমি কিছুই জানি না । তবে অভিযোগের বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ