মধুপুর ও ধনবাড়ীতে গো-খাদ্যের সংকটে খড়ের ব্যবসা জমজমাট

প্রকাশিত : ২৫ অক্টোবর, ২০১৭
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

ধনবাড়ী (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা:

টাঙ্গাইলের মধুপুর ও ধনবাড়ী উপজেলায় গো-খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। প্রতি কেজি খড় কিনতে গুনতে হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। এতে গো-খামারিরা পড়েছে চরম বিপাকে। প্রতি ভ্যান রিক্সায় ভর্তি ওজনে আনুমানিক এক মণ (৪০ কেজি) খড় কিনতে তাদের গুণতে হচ্ছে ২ হাজার থেকে ২২শ’ টাকা। কেজি হিসেবে যা ৫০ থেকে ৫৫ টাকার বেশি। কেজির এ হিসেব টা নিয়েই এলাকায় এখন কৃষক পর্যায়ে বেশ আলোড়ন।
ধনবাড়ী উপজেলার ভাইঘাট চেরাভাঙ্গা ব্রিজ পাড়ের মামুন তার ৭টি গরুর খাদ্য যোগাড় নিয়ে বেশ বিপাকে পড়েছিলেন। খুঁজে খুঁজে অবশেষে ৬০/৭০ কি.মি দূরে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া এলাকার মোবারক হোসেনের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকায় এক গাদি খড় কিনেন। সব খরচ মিলে এ খড়ের দাম পড়ে ৩৪ হাজার টাকা। গোপালপুর উপজেলার সাজনপুর গ্রামের শফিকুল ইসলাম আকন্দ তপনের খামারে ১০টি গরু। তিনি তার গরুর খাদ্যের জন্য পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে ৩০ হাজার টাকা ব্যয়ে খড় সংগ্রহে রেখেছেন। মামুন আর তপনের মতো এসব এলাকার সাধারণ কৃষক ও গরু খামারিগণ যারা তাদের গরুর জন্য খড় আগে থেকে সংগ্রহে রাখেননি। এবার অনিয়মিত বন্যা পরবর্তী এ সময়টায় তারাই পড়েছেন মহাবিপাকে। অন্যান্য বছর অগ্রিম ধান কাটায় খড়ের অভাব তেমন পড়ে না। এবার বেশ সংকট খড়ের।
চলতি বছরের কয়েক দফা বন্যায় টাঙ্গাইলের মধুপুর, গোপালপুর, ধনবাড়ী ও তার আশপাশের এলাকায় পানিতে নিমজ্জিত হয়ে রোপা ধান নষ্ট হয়ে গেছে। বন্যায় সবুজ ঘাসের সংকট হয়েছে। কৃষকের জমানো খড়ও শেষ হয়ে যাচ্ছে। অনেক জমি অনাবাদি থাকায় সামনে খড়ের ঘাটতি দেখা দিবে। মধুপুর গড়াঞ্চলের আনারস, কলা, পেঁপে, হলুদ, আদা চাষেও খড় লাগে। তার জন্যও একটা সংকট হতে পারে। ওইসব ফসল চাষি ও গো-খাদ্যের সংকটের শঙ্কায় অনেক গো-চাষী আগে থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
মধুপুর পৌর শহরের ময়মনসিংহ সড়কের পাশে এবং ধনবাড়ী উপজেলার কদমতলীর জয়বাংলা হাট. পাটাদহ বাজার, ভাইঘাট বাজার, মুশুদ্দি, কেন্দুয়া, খড়ের বড় বাজার। মধুপুর বাজারে গিয়ে দেখা গেল শাহাজাহান মিয়া নামের এক বিক্রেতা এক ভ্যান খড় ১৭শ’ টাকায় বিক্রি করেন। মুশুদ্দি বাজারে গিয়ে দেখা যায়, জমির উদ্দিন, আলমঙ্গীর হোসেন নামে ২ ক্রেতা এক মন ওজনের প্রতি ভ্যান খড় ২ হাজার টাকা করে ক্রয় করেছেন। গোপালপুরের মিজান, ঘাটাইলের দেওলাবাড়ী গ্রামের আমিনুল, নাজিম উদ্দিন, শহিদুল ইসলাম, মধুপুর উপজেলার কালমাঝি গ্রামের খোরশেদ, শাহজাহন, হাসমত সাংবাদিক কে জানান, জানান, তারা এলাকা ঘুরে কৃষকদের কাছ থেকে খড়ের গাদা কিনে ভ্যানে ভরে বিভিন্ন বাজারে তুলে প্রতিমণ খড় ২ হাজার থেকে ২২শ’ টাকায় বিক্রি করছেন। এদিকে খড়ের সংকটে পড়ে ছোট ও মাঝারি কৃষক মহাবিপাকে পড়েছেন। তারা না পারছেন গরু পালতে না পারছেন ছাড়তে। মধুপুর আদালত পাড়ার উন্নত জাতের গরু খামারি শাহীনুর রহমান সাংবাদিক কে জানান, গরু পালতে খড়ের দামের কারণে ব্যয় বেড়ে গেছে। মধুপুরের আড়ালিয়া গ্রামের লুৎফর রহমান জানান, খড়ের অভাবে গরুই বিক্রি করে দিয়েছেন তিনি।
মধুপুর উপজেলা প্রণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শহিদুল ইসলাম সাংবাদিক কে জানান, খড়ের এ সংকট সাময়িক। নতুন আমন ফসল এ সংকট চলে যাবে। তাছাড়া গো-খাদ্যের সংকট দূর করতে ঘাসের আবাদও করা হচ্ছে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ