মহান বিজয় দিবস

প্রকাশিত : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

আগামী বুধবার ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস। জাতির শ্রেষ্ঠ গৌরব, অহঙ্কার ও আনন্দ উজ্জ্বলতার স্বাক্ষর একটি অনন্য দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে ৩০ লাখ বাঙালির বুকের রক্তে, ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমহানি ও অগণিত মানুষের সীমাহীন দুঃখ-দুর্ভোগের বিনিময়ে বাঙালির সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন এই বিজয় মুকুট শিরে পরেছিল বাংলাদেশ। সুদীর্ঘ ২৩ বছরের পাকিস্তানিদের অত্যাচার-নিপীড়ন আর সীমাহীন বঞ্চনার শৃঙ্খল ভেঙে বেরিয়ে আসার অমোঘ বাণী বজ্রনির্ঘোষ কণ্ঠে ঘোষণা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান : ‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ স্বাধীনতার সেই মহানায়কের প্রতি বিজয়ের এই দিনে আমাদের অকুণ্ঠ শ্রদ্ধা ও সালাম। তার সঙ্গে পরম শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি তাদের, যাদের অমূল্য সংগ্রামী জীবনের বিনিময়ে আজ আমরা স্বাধীন জাতি হিসেবে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচুু করে দাঁড়াতে পেরেছি। বাস্তবিক পক্ষেই এক সাগর রক্তের বিনিময়ে আমরা মুক্ত স্বাধীন স্বদেশভূমি পেয়েছি। মুক্তিযুদ্ধের একেবারে শেষপ্রান্তে পাকিস্তান বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আল-বদর, আল-শামসরা বেছে বেছে এ ভূখন্ডের কবি, সাহিত্যিক, শিল্পী, দার্শনিক, চিকিৎসক, বুদ্ধিজীবী হত্যার যে তান্ডবে মেতে উঠেছিল সেই ক্ষতি কোনো কিছু দিয়েই পূরণ করা সম্ভব নয়। স্বজন হারানোর স্মৃতি এ বিজয়ের দিনেও আমাদের বিষাদগ্রস্ত করে।
সন্দেহ নেই, মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে অনেক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করেছে বাংলাদেশ। স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতাকে হত্যা করেছে পরাজিত ঘাতকরা। মুক্তচিন্তা ও প্রগতিশীলতার অগ্রযাত্রাকে খাঁমচে ধরেছে পশ্চাৎপদ মানসিকতার ধারক ও বাহক ক্ষমতালিপ্সু মৌলবাদের দোসররা। গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা, সমাজতন্ত্র এবং জাতীয়তাবাদের যে চেতনায় পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছিল, স্বাধীন দেশে সে অর্জন থেকে দিনে দিনে পিছিয়ে গেছি আমরা। বঙ্গবন্ধু হত্যার সুবিধাভোগী মহলের পৃষ্ঠপোষকতায় একাত্তরের ঘাতকচক্র রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অংশীদার পর্যন্ত হতে পেরেছে। যা কখনই কাম্য ছিল না। তাই এই বিজয়ের দিন শুধু আনন্দ আর উদযাপনের নয়, এই খুনিদের, আর যারা তাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়ে সমাজে রাজনীতিতে পুনর্বাসিত করেছে- তাদের ধিক্কার জানানোর দিন। শহীদের রক্তে ভেজা মাটি থেকে স্বাধীনতার শত্রু, গণতন্ত্রের শত্রু, মানবতার শত্রুদের এবং তাদের সব অপতৎপরতা উৎখাত করার দৃঢ় শপথ নেয়ার দিন।
আমরা দেখতে পাচ্ছি, পূর্ব দিগন্তে নৈরাশ্য-গ্লানির আঁধার কেটে আলোর রেখা দেখা দিতে শুরু করেছে। স্বাধীনতার শত্রুরা আজ বিচারাধীন। বিশেষ ট্রাইব্যুনালে একাত্তরের ঘাতকদের বিচার চলছে। একে একে দন্ডিত হচ্ছে একাত্তরের ঘৃণ্য যুদ্ধাপরাধীরা। একাত্তরের ঘাতকদের ফাঁসিও হচ্ছে এই বাংলার মাটিতে। চার দশক পর হলেও স্বাধীন দেশে স্বাধীনতাবিরোধী ঘাতকের শাস্তি হওয়া অবশ্যই তাৎপর্যময় ঘটনা। আমরা প্রত্যাশার প্রহর গুনছি একে একে সব যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও উপযুক্ত শাস্তি হবে। স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি ও তাদের দোসররা শক্তি প্রয়োগ করে, টাকা ঢেলে দেশ-বিদেশে প্রচার চালিয়ে বিচারকে বাধাগ্রস্ত করতে সর্বশক্তি নিয়োগ করছে। সন্ত্রাস-সহিংসতা চালিয়ে তারা দেশে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে। এসব অপতৎপরতার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে সোচ্চার হতে হবে। তাই এবারের বিজয় দিবসে আমাদের শপথ হোক সকল ষড়যন্ত্রের অর্গল ভেঙে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ার। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাসম্পন্ন- গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, সুখী-সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ গড়ার মাধ্যমেই অর্জিত হবে আমাদের প্রকৃত বিজয়।
এদিকে, আগামীকাল ১৪ ডিসেম্বর, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে ৯ মাসব্যাপী রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের বিজয় যখন দ্বারপ্রান্তে ঠিক সেই সময় পরাজয় নিশ্চিত জেনে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনী দেশের প্রথিতযশা সাহিত্যিক, সাংবাদিক, শিক্ষক, বিজ্ঞানী, দার্শনিক, শিক্ষাবিদ ও চিকিৎসকদের হত্যা করে বাঙালি জাতির ওপর চরম আঘাত হানে। জাতিকে মেধাশূন্য করার নীলনকশা বাস্তবায়ন করতে তারা বাড়ি বাড়ি থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রের মেধাবী মানুষদের ধরে এনে ঢাকার রায়েরবাজার, কাটাসুর ও মিরপুরসহ দেশের অসংখ্য বধ্যভূমিতে নিয়ে গিয়ে নির্মম পৈশাচিকতার সঙ্গে হত্যা করে। এ দিনে আমরা ওই সব বুদ্ধিজীবীকে স্মরণ করি গভীর শোক ও শ্রদ্ধায়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ