মির্জাপুরে কাঁচা সড়কের করুণ দশা

প্রকাশিত : ১৯ নভেম্বর, ২০২০

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার বাশতৈল ইউনিয়নের রাস্তাটি জনদুর্ভোগের শেষ নেই। অথচ এই রাস্তাটি সংস্কারের কোন পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছেনা দীর্ঘদিন ধরে। একটু বৃষ্টিতেই এ রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পরে।

জানা যায়, উপজেলার বাঁশতৈল ইউনিয়নের ৪ ও ৫ নং ওয়ার্ড সম্বলিত জোড়ান মার্কেট থেকে নয়েচ বাজার পর্যন্ত ছয় কিলোমিটার রাস্তা ৪০ বছরেও উন্নয়নের কোন ছোয়া লাগেনি। অথচ এ রাস্তা দিয়ে আমরাতৈল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দড়ানী পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়, খলিলুর রহমান ডিগ্রী কলেজের হাজারো শিক্ষার্থীর যাতায়াত। এ রাস্তার দুপাশে জোড়ান মার্কেট ও নয়েবাজারে সপ্তাহে চারদিন হাটবসে। এ রাস্তা দিয়ে যেতে হয় বাঁশতৈল হাট, পাথরঘাটার হাট, তক্তারচালার হাটে নিত্য প্রয়োজনীয় পন্য বিকিকিনি করতে। জরুরি চিকিৎসার জন্য রোগীদের প্রাচীন কৌশল ব্যবহার করায় তাদের জীবননাশের হুমকি বেড়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, চলাচলের এ সড়ক বৃষ্টি হলেই একেবারে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। বৃষ্টির ফোটা পড়ার পরেই কাঁদা পানিতে একাকার হয়ে যায়। প্রচন্ড এ কাঁদায় চলতে গিয়ে অনেকেই পড়ে গিয়ে গন্তব্যে যাবার আগেই বাড়িতে ফিরে আসতে বাধ্য হয়। কৃষি ফসল ধান, পাট মাথায় করে ছুটতে হয় বাজারের দিকে। বাচ্চারা সময় মতো স্কুলে যেতে পারে না। স্কুলে কমে যায় উপস্থিতি। অসুস্থ্য রোগীকে সময় মতো হাসপাতালে নিতে না পারায় বড় ধরণের ক্ষতির আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। দুর্ভোগ থেকে মুক্তির আশায় বছরের পর বছর ভোগান্তীর স্বীকার এসব লোকেরা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছে জানালেও রাস্তার কোনো উন্নয়ন হয়নি।

ভ্যান চালক মোখলেছ (৫৫) জানান, আমি ভ্যান চালায়ে খায়। যা উপার্জন হয় তাই দিয়ে মোটামুটি ভাবে সংসার চলে। কাদার কারণে রাস্তায় ভ্যান ঠেলে নেয়া যায় না। আর যেদিন ভ্যান চালাতে না পারি সেদিন পেটে ভাত যায়না।

দরানী পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মনিরুজ্জামান মিয়াজী ও আমরাতৈল সরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. রোস্তম হোসেন বলেন, বর্ষার সময় রাস্তার কারণে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি খুব কম হয়। এবং রাস্তার কাদায় মাখামাখি হয়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হতে হয় শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের।

বিএএফ শাহীন কলেজ পাহাড়কাঞ্চনপুরের হিসাব রক্ষক মো. আব্দুল করিম মিয়া ও ইউনিগ্লোরী প্যাকেজিং লি. এর জুনিয়র অফিসার মো. আব্দুর রহিম বলেন, রাস্তাটির পরিস্থিতি এতই খারাপ যে আমাদের বাড়ি কর্মস্থল থেকে মাত্র ৭-৮ কিঃ মিটার দুরে থাকলেও, আমাদের অফিসের পাসে ভাড়া করা বাসা থেকেই অফিস করতে হয়।

৪ ও ৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বার জনাব শাহজাহান ও মো. জোনাবআলী বলেন, রাস্তাটি অতিপ্রাচীন। রাস্তাটি সংস্কার হলে প্রায় ১০ হাজার মানুষের দুর্ভোগ থেকে রক্ষা পাবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া