মির্জাপুরে টিএন্ডটির সংযোগ বিচ্ছিন্ন তারপরেও ভৌতিক বিল

প্রকাশিত : ৩১ জানুয়ারী, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

মির্জাপুর সংবাদদাতাঃ

প্রতীকী ছবি

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলায় প্রায় এক দশক সময় যাবৎ টিএন্ডটি ল্যান্ডফোন সংযোগগুলো চলছে সেবাহীন ও বায়বীয়ভাবে। সংযোগ খুঁটি, তার ও ক্যাবিনেটবিহীন অবস্থায় গ্রাহকসেবা না পেলেও যথারীতি তাদের নামে বিল হচ্ছে প্রতিমাসেই। অপরদিকে অর্ধযুগের বেশি সময় যাবৎ বিলের কপিও হাতে পাচ্ছেন না বেশিরভাগ গ্রাহকদের অভিযোগ।

জানা যায়, বিগত ২০০৭-৮ সালের দিকে তৎকালীন সরকার বিনা খরচে টিএন্ডটির সংযোগের ঘোষণা দিলে মির্জাপুর পৌরসভার অনেকেই উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে টিএন্ডটি সংযোগ নেন যা বর্তমানে ৩ শতাধিক সংযোগ রয়েছে। টিএন্ডটির সংযোগ নেয়ার পর খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে শুরু হয় গ্রাহক ভোগান্তি। কখনো লাইনে সমস্যা, আবার কখনো সংযোগ তাঁর বিচ্ছিন্ন। প্রাথমিক পর্যায়ে স্থানীয় টেলিফোন ভবনের কর্মকর্তারা সমস্যার সমাধান করলেও ধীরে ধীরে দেখা দেয় স্থবিরতা এবং বর্তমানে এই সেবা একেবারে শূন্যের কোঠায়। এরপরের ভোগান্তি আরও করুণ। সময়মতো বিলের কাগজ না পাওয়ায় সংযোগ নেয়ার ২-৩ বছর পর একপর্যায়ে কিছু গ্রাহক স্থানীয় টেলিফোন ভবন অফিসে দৌড়ঝাঁপ করে ময়মনসিংহ রাজস্ব অফিস থেকে বিলের যে কপি হাতে পেয়েছেন তাতে চোখ চড়ক গাছ হয়ে যাওয়ার উপক্রম। তাতে মোট বিলের যে আকার দাঁড়িয়েছে তা অধিকাংশ গ্রাহকের কাছেই আপিত্তকর বলে মনে হয়েছে। তাদের অভিযোগ ন্যূনতম বিল ৯২ টাকা হলেও সংযোগ তার বিচ্ছিন্ন থাকার পরও তাদের নামে গায়েবি বিল করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কোনো কোনো স্থানে তারবিহীন অবস্থায় টিএন্ডটির খুঁটি থাকলেও বেশিরভাগ স্থানে টিএন্ডটির খুঁটি থাকার চিহ্ন পর্যন্ত নেই। এ সময় কিছু গ্রাহকের সাথে কথা বললে তাঁরা ক্ষিপ্ত হয়ে অভিযোগের ভাষায় বলেন, কিসের টিএন্ডটি, খুঁটি নাই, তার নেই, সংযোগ নেই, কিসের টিএন্ডটি। টিএন্ডটি সংযোগ ব্যবহার না করতে পারলেও তাদের নামে বিল হচ্ছে প্রতিমাসেই এবং একদিন না একদিন তা গ্রাহককে পরিশোধ করতেই হবে জানালে তারা আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়েন। কিছু গ্রাহক ৩-৪ কিস্তিতে মোট বিলের টাকা পরিশোধ করে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দায় মুক্তি পেলেও অধিকাংশ গ্রাহক এ ব্যাপারে কোনো খবরই জানেন না। তাদের ধারণা যেহেতু তাদের টিএন্ডটি সংযোগ তারবিহীন অর্থাৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় আছে সেহেতু বিলের কোনো প্রশ্নই আসে না।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর টেলিফোন ভবনের সুপারভাইজার গিয়াসউদ্দিন বলেন, পর্যাপ্ত সংখ্যক লোকবল না থাকায় ও চাহিদা মোতাবেক লাইন মেরামত সামগ্রী না পাওয়ায় তারা গ্রাহকদের সেবা নিশ্চিত করতে পারছি না। এমনকি গ্রাহক বিলের কপিও তারা নিজেরাই দেয়ার চেষ্টা করেন বলে তিনি উল্লেখ করেন। গ্রাহকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, গ্রাহক যদি চায় তিনি তার সংযোগটি আর রাখবেন না সেক্ষেত্রে রাজস্ব অফিসের মাধ্যমে গ্রাহকের বকেয়া জেনে তা পরিশোধ পূর্বক তিনি তার সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে মোট বকেয়া বিলের টাকা ৩-৪ কিস্তিতে পরিশোধ করার সুযোগও আছে বলে তিনি জানান।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ