মির্জাপুরে পালাক্রমে ধর্ষণ; চেয়ারম্যানের ছেলেসহ গ্রেপ্তার ২

প্রকাশিত : ২৬ নভেম্বর, ২০১৯
মির্জাপুর প্রতিনিধি
গণবিপ্লব

মির্জাপুর ২৬ নভেম্বর : টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে স্কুলছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান আসামিসহ ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় অপর ২ আসামি পলাতক রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। একই সঙ্গে ঐ ছাত্রীকে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার ফুলবাড়িয়া এলাকা থেকে উদ্ধার করে চিকিৎসা দিয়ে তার পরিবারকেও নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে।

সোমবার (২৫ নভেম্বর) রাতে মির্জাপুর থানা পুলিশ ও টাঙ্গাইল জেলা ডিবির যৌথ অভিযানে তাদের গ্রেফতার করা হয়। দেওহাটা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (উপ-পরিদর্শক) এসআই মো. রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- বংশাই স্কুল অ্যান্ড কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি এবং টাঙ্গাইল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক ও আজগানা ইউনিয়নের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আতিকুল ইসলাম সিকদারের ছেলে রাকিব সিকদার (২৪) ও আজগানা ইউপি চেয়ারম্যান এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম সিকদারের ছেলে মো. সোহান সিকদার (২২)।

এদিকে, অপর ২ আসামি বেলতৈল গ্রামের ইয়াকুব সিকদারের ছেলে জসিম সিকদার (২৫) ও তার স্ত্রী বিলকিছ বেগম (২০) পলাতক রয়েছে বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আজগানা ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সিকদার ও তার ভাই বংশাই স্কুল এন্ড কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আতিকুল ইসলাম সিকদারকে নেয়া হয়েছে।

মামলার তদন্তভার জেলা ডিবি (দক্ষিণ) কে দেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন মির্জাপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মোশাররফ হোসেন। ঘটনার ৭ দিন পর আজ মঙ্গলবার (২৬ নভেম্বর) ৪ জনকে আসামি করে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ছাত্রীর বাবা।

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার ওসি মো. সায়েদুর রহমান জানান, ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। একই সাথে তার পরিবারকে আইনী সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে মামলা দায়ের করা হয়েছে। খুব দ্রুত আসামিদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (২০ নভেম্বর) উপজেলার আজগানা ইউনিয়নের বংশাই স্কুল এন্ড কলেজের এসএসসি পরীক্ষার্থী এক ছাত্রীকে সকাল ৯টার দিকে স্কুলে যাওয়ার পথে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে অচেতন করে একদল বখাটে যুবক সংঘবদ্ধ হয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। কিন্তু ধর্ষকরা প্রভাবশালী ও ক্ষমতাসীন পরিবারের হওয়ায় ঘটনার পাঁচ দিন পেরিয়ে গেলেও ছাত্রীর অসহায় পরিবার ও দরিদ্র বাবা তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে ভয় পাচ্ছিলেন। এমনকি ঘটনা ধামাচাপা দিতে ছাত্রীর পরিবারকে টাকা দিয়ে মীমাংসার প্রস্তাব দেয়া হয়। নিরাপত্তা হীনতায় ভুগতে থাকা ওই ছাত্রী চিকিৎসা করাতে না পেরে তার মামার বাড়ি আশ্রয় নিয়েছিল। এ ঘটনায় বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে আসামিদের গ্রেফতার করে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ