মির্জাপুরে সরিষা আবাদে ক্ষতির আশঙ্কা

প্রকাশিত : ৪ জানুয়ারী, ২০২০

মির্জাপুর ৪ জানুয়ারি : টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বৃষ্টি, শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশার কারণে সরিষা আবাদের মারাত্মক ক্ষতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। কৃষকেরা চলতি বছর সরিষা ফলন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র মতে, এ বছর উপজেলার প্রায় ৮ হাজার ৯০০ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। তবে বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার কারণে ৮ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়। এর মধ্যে উফশী জাতের প্রায় ৪ হাজার ও স্থানীয় জাতের ৪ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি রয়েছে।

এলাকাবাসী জানান,বৃহস্পতিবার রাত থেকে হঠাৎ গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি শুরু হয়। শুক্রবার সকাল পৌনে আটটা থেকে আধঘন্টারও বেশি সময় মূষলধারে বৃষ্টি হয়। এরপর বেলা ১১ টা পর্যন্ত চলে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি। এতে ফুল থাকা স্থানীয় জাতের সরিষার গাছ মাটিতে নুইয়ে পড়ে।

প্রায় ১০ দিন আগে মির্জাপুরে সপ্তাহ ব্যাপী শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশা পড়ে। ওই সময় সূর্যেরও খুব একটা দেখা মেলেনি। ফলে খেতে সরিষার ফুলে মধু আহরণকারী মৌমাছি বা পতঙ্গ না আসায় ফুলে পরাগায়ন ব্যহত হওয়ার পাশাপাশি অনেক স্থানে পাঁপড়িও পচে ঝড়ে যায় বলে জমির মালিকেরা জানান।

সরেজমিনে উপজেলার বাওয়ার কুমারজানী, বাইমহাটী, কোর্টবহুরিয়া বুড়িহাটী, ঘুগী, ভাওড়া, কুতুববাজার, পোষ্টকামুরীসহ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে ক্ষেতের মধ্যে সরিষা গাছ নুইয়ে পড়েছে। অনেক স্থানে বৃষ্টির কারণে ফুলও ঝড়ে গেছে।

বাওয়ার কুমারজানী গ্রামের নুরুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার রাতের বৃষ্টির ফলে এলাকার ক্ষেতের অধিকাংশ সরিষা গাছই মাটিতে নুইয়ে পড়েছে। এর আগে শৈত্যপ্রবাহ ও ঘুন কুয়াশার কারণে সূর্যের দেখা মিলছিলনা।ফলে মৌমাছি কিংবা পতঙ্গ ফুলে না বসায় পরাগায়নও হয়নি বলে ধারণা করা হচ্ছিল।এ অবস্থা চলতে থাকলে সরিষা আবাদ মারাত্মকভাবে ব্যহত হবে।

গোড়াইল গ্রামের আনোয়ার হোসেন বলেন, এ বছর যারা আগাম সরিষার আবাদ করেছেন তাঁদের ক্ষতির সম্ভাবনা বেশি রয়েছে।

চাকলেশ্বর গ্রামের ফরিদ মিয়া বলেন, ‘আমরা প্রায় সাড়ে ৪ পাকি (৫৬ শতকে ১ পাকি) খ্যাতে সরিষা বুনেছি। বৃষ্টির আর কুয়াশার যে অবস্থা। আমরা সরিষা ঠিকমত ঘরে আনা পারুম কিনা তা নিয়া শঙ্কায় আছি।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ মশিউর রহমান বলেন, ‘বৃষ্টি ও বৈরি আবহাওয়ার কারণে উফশী জাতের সরিষার ক্ষতি হবে না। তবে স্থানীয় জাতের সরিষার পরাগায়ন ব্যাহত হবে। ঠিকমত সূর্যের আলো না পেলে ফলন কমে যেতে পারে। এতে কৃষকেরা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন।’

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া