মির্জাপুরে সূর্যমুখীতে স্বপ্ন বুনছেন কৃষকরা

প্রকাশিত : ৩ মার্চ, ২০২০

মির্জাপুর ৩ মার্চ : টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে এবার প্রথমবারের মতো সূর্যমুখী ফুলের চাষ করা হয়েছে। সূর্যমুখী চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান ও সফল হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন লতিফপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের মো. জাকির হোসেন সহ ৫ জন কৃষক।

সরেজমিনে দেখা যায়, মির্জাপুর উপজেলা সদর থেকে ২ কি.মি. দূরে বংশাই ব্রীজের উত্তর পাশে তরফপুর-পাথরঘাটা সড়ক ঘেঁষে গড়ে উঠেছে এ সুবিশাল বাগান। ইতোমধ্যেই গাছে ফুল ধরতে শুরু করেছে। এক একটি ফুল যেন হাসিমুখে সূর্যের আলো ছড়াচ্ছে। চারিদিকে হলুদ ফুল আর সবুজ গাছে সে এক অপরূপ দৃশ্য। প্রতিদিন আশপাশের এলাকা থেকে সৌন্দর্য প্রিয়াসি মানুষ সূর্যমুখী ফুলের ক্ষেত দেখতে আসছে। অনেকেই ফুলের সঙ্গে দাঁড়িয়ে ছবি তুলছেন।

প্রথমবারের মতো এ উপজেলায় সূর্যমুখীর চাষ করা হয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় মির্জাপুর উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়নে পাঁচজন কৃষক সরকারিভাবে প্রতি বিঘা জমিতে চাষের জন্য ১.৫ কেজি বীজ, ২০ কেজি ডিএপি সার, ১০ কেজি এমওটি সার বিনা মূল্যে সরবরাহ করেছে।

লতিফপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন গণবিপ্লবকে জানান, এই ফসলটি মির্জাপুর উপজেলার চাষিদের জন্য সুখবর বয়ে আনতে যাচ্ছে। খুব অল্প টাকায় বেশি মুনাফা সম্ভব এই চাষের মাধ্যমে। এই ফুলের বীজ থেকে আমরা যে তেল পাব সেটায় ক্ষতিকর কোলেস্টেরল নেই। পরীক্ষামূলকভাবে সূর্যমুখী ফুল চাষের জন্য কৃষকদের মাঝে বিনা মূল্যে বীজ ও সার সরবরাহ করা হয়েছে। বাজারে সরিষা ভাঙানোর মেশিনের মাধ্যমেই এই বীজ ভেঙে আমরা খাবার তেল পেতে পারি। পরীক্ষামূলক পাঁচ বিঘা জমিতে সূর্যমুখী চাষে আমরা ১৫০০-১৬০০ কেজি বীজ আশা করছি। এই সবকিছু কৃষক বুঝতে পারলেই এই ফসল চাষ করতে তারা উৎসাহিত হবে।

মির্জাপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোহাম্মদ মশিউর রহমান গণবিপ্লবকে জানান, আমাদের প্রতিদিনের খাবার তৈরি করতে যে তেল (সয়াবিন/সরিষা) আমরা ব্যবহার করি সেই তেলে ইরোসিক অ্যাসিড থাকে যেটা আমাদের দেহের জন্য খারাপ। পক্ষান্তরে সূর্যমুখী ফুলের বীজ থেকে যে তেল উৎপাদন হয় সেই তেলে লিনোলিক অ্যাসিড আছে যা আমাদের হাটের্র জন্য খুব ভালো। সূর্যমুখী আমাদের দেশের একটি তেল ফসল। এই প্রথমবারের মতো মির্জাপুরে চাষিরা সূর্যমুখী ফুলের চাষ শুরু করেছেন। আমরা এবার প্রতি হেক্টর জমিতে ২.৫ টন বীজের আশা করছি।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া