মির্জাপুরে ১০ সিএনজি উদ্ধার করে ‘বিপাকে’ পুলিশ

প্রকাশিত : ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৯

মির্জাপুর ২৯ ডিসেম্বর : নরসিংদী ও গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাক এলাকা থেকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানা পুলিশ চুরি যাওয়া ১০টি অটোরিকশা উদ্ধার করে ‘বিপাকে’ পড়েছে।

জানা যায়, ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে চোরাই সিএনজি চালিত অটোরিকশার বৈধতা দিচ্ছে নরসিংদী বিআরটিএ অফিস। একটি দুইটি নয়, এভাবে চোরের সিন্ডিকেটকে ১০টি চোরাই অটোরিকশার রেজিস্ট্রেশন দিয়েছে বলে ওই অফিসের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। থানা পুলিশ চুরি যাওয়া ১০টি অটোরিকশা উদ্ধারের পর এ তথ্য বেরিয়ে আসে।

এদিকে বিআরটিএ অফিসের দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে চুরি যাওয়া অটোরিকশা উদ্ধারের তিন মাস অতিবাহিত হওয়ার পরও প্রকৃত মালিকদের কাছে এগুলো বুঝিয়ে দিতে পারছেন না মির্জাপুর থানা পুলিশ।

পুলিশ এবং ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে জানা গেছে, গত ৮ জুলাই রাতে মির্জাপুর পৌরসভার পুষ্টকামুরী গ্রামের বেল্লাল মিয়ার বাড়ি থেকে নতুন তিনটি অটোরিকশা চুরি হয়। এ বিষয়ে অটোরিকশার মালিক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ৩০ জুলাই মির্জাপুর থানায় মামলা করেন। পরে ঢাকার সিআইডি পুলিশ তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে সিএনজিগুলোর সন্ধান পান।

সিআইডি পুলিশের দেয়া তথ্যে মির্জাপুর থানা পুলিশ ৩০ জুলাই শুক্রবার রাতে নরসিংদীর উত্তর কারারচর বড়ইতলা বাসস্ট্যান্ড থেকে দুটি এবং ২৪ সেপ্টেম্বর কালিয়াকৈরের মৌচাক এলাকা থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি অটোরিকশা উদ্ধার করে।

পরবর্তীতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে টাঙ্গাইল সদর, বাসাইল ও সাটুরিয়া থেকে চুরি যাওয়া আরও সাতটি সিএনজি চালিত অটোরিকশা নরসিংদী থেকে উদ্ধার করেন। পরে অটোরিকশার মালিক জাহাঙ্গীর হোসেন টাঙ্গাইল বিআরটিএ অফিসে রেজিস্ট্রেশন করতে ব্যাংকে টাকা জমা দিতে যান। কিন্তু সেখানে জানতে পারেন অটোরিকশা তিনটি নরসিংদী বিআরটিএ থেকে জনৈক আলেয়া বেগমের নামে রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে।

উদ্ধার হওয়া অন্য সাতটি অটোরিকশাও একইভাবে নরসিংদী বিআরটিএ অফিস থেকে বিভিন্ন নামে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে রেজিস্ট্রেশন করিয়েছেন। এ কাজে নরসিংদী বিআরটিএ এর সহকারি পরিচালক, মোটরযান পরিদর্শক, পিয়ন এবং আলেয়া বেগমের ভাই ফরিদপুরের কতোয়ালী উপজেলার ভাবখন্ড গ্রামের বাবু ও লিটনসহ কয়েকজন জড়িত বলে পুলিশ জানিয়েছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মির্জাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মজিবুর রহমান বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এ কাজের সাথে জড়িত ছয় জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন নরসিংদীর রায়পুরার পূর্বহরিপুর গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুল্লাহ, আলেয়া বেগম, যশোরের চৌগাছা উপজেলার কুলিয়া গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে পারভেজ মিয়া, নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার মুন্সিবারচর গ্রামের আসাদ মিয়ার ছেলে মোশারফে হোসেন, নারায়নগঞ্জের বন্দর এলাকার মিনারবাড়ি গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে নাছির উদ্দিন, নেত্রোকোনার দুর্গাপুর উপজেরার বানিয়াপাড়া গ্রামের আইয়ুব আলীর ছেলে সাইদুল ওরফে হাফিজুর। এদের অধিকাংশই টাঙ্গাইল জেল হাজতে রয়েছেন।

তদন্তকারী কর্মকর্তা অটোরিকশার মালিক নিশ্চিত করে নরসিংদী বিআরটিএ রেজিস্ট্রেশন বাতিল করার জন্য একাধিকবার পত্র পাঠিয়েছেন। কিন্তু নরসিংদী বিআরটিএ কর্মকর্তারা ওই পত্র গ্রহণ করেননি। একইভাবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা টাঙ্গাইল বিআরটিএ কর্মকর্তা বরাবর পত্র দেন। টাঙ্গাইল বিআরটিএ কর্মকর্তা নরসিংদী বিআরটিএ কর্মকতাকে রেজিস্ট্রেশন বাতিলের জন্য পত্র পাঠানোর কথা থাকলেও অজ্ঞাত কারণে তা পাঠাননি বলে জানা গেছে। অটোরিকশার মালিকরা টাঙ্গাইল ও নরসিংদী বিআরটিএ অফিসে বার বার ধরনা দিয়েও রেজিস্ট্রেশন বাতিল করাতে পারছেন না। থানায় পরিত্যক্ত অবস্থায় এগুলো নষ্ট হচ্ছে বলে মালিকরা জানিয়েছেন।

ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে নরসিংদী বিআরটিএ কর্মকর্তারা রেজিস্ট্রেশন দিলেও প্রকৃত মালিককরা তাদের নামে রেজিস্ট্রেশন করাতে পারছেন না।

এছাড়া বিআরটিএ কর্মকর্তাদের আন্তরিকতা না থাকায় চুরি যাওয়া ১০টি অটোরিকশ উদ্ধার করে এখন বিপাকে পড়েছে পুলিশও।

অটোরিকশার মালিক জাহাঙ্গীর হোসেন গণবিপ্লবকে জানান, তিনি কয়েকটি এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে প্রায় ১১ লাখ টাকা দিয়ে তিনটি অটোরিকশা কিনেছিলেন। কেনার একমাসের মধ্যেই চুরি হয়। পরে সিআইডি ও পুলিশের সহায়তায় অটোরিকশা তিনটি উদ্ধার হলেও নরসিংদী বিআরটিএ কর্মকর্তাদের কারণে তা নিতে পারছেন না। টাঙ্গাইল ও নরসিংদী বিআরটিএ কর্মকর্তারা একেক সময় একেক কথা বলে হয়রানি করছেন বলে তিনি জানান।

সাটুরিয়া এলাকার অটোরিকশা মালিক তমছের গণবিপ্লবকে জানান, কিস্তিতে গাড়ি কিনেছিলাম। মির্জাপুর থানা পুলিশ ১০টি অটোরিকশা উদ্ধার করেন। তার নিজের একটি অটোরিকশার রেজিস্ট্রেশনের টাকা জমা দিতে গিয়ে নরসিংদী ও টাঙ্গাইল বিআরটিএ অফিসে গিয়ে বার বার হয়রানি হতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমার গাড়ি ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করানো হয়েছে। আর আমরা প্রকৃত মালিক হয়েও কাগজপত্র জমা দিয়েও রেজিস্ট্রেশন করাতে পারছি না।

এ বিষয়ে নরসিংদী বিআরটিএ অফিসের সহকারি পরিচালক গোলাম হায়দারের সঙ্গে বার বার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

টাঙ্গাইল বিআরটিএ অফিসের সহকারি পরিচালক আবু নাইমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি গণবিপ্লবকে বলেন, মামলার তদন্ত কর্মকর্তার পত্র পাওয়ার পর রেজিস্ট্রেশন বাতিলের জন্য নরসিংদী বিআরটিএ কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. মজিবর রহমানের সঙ্গে কথা হলে তিনি গণবিপ্লবকে বলেন, রেজিস্ট্রেশন বাতিলের জন্য নরসিংদী বিআরটিএ কর্মকর্তাকে একাধিকবার পত্র দেয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি তা গ্রহণ করেননি।

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সায়েদুর রহমান গণবিপ্লবকে বলেন, রেজিস্ট্রেশন বাতিলের জন্য তিনি নিজেও নরসিংদী ও টাঙ্গাইল বিআরটিএ অফিসের সহকারি পরিচালকের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলেছেন।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া