মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা; আসামীদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ

প্রকাশিত : ১৮ জানুয়ারী, ২০২১

বঙ্গবন্ধু হত্যার অন্যতম প্রতিবাদকারী টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদ হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে স্থানীয় শহীদ মিনারে ফারুক আহমদের ৭ম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় গোরস্থানে তার কবর জিয়ারত ও পুস্পঅর্পন করেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন টাঙ্গাইল-২ (ভূয়াপুর-গোপালপুর) আসনের সাংসদ তানভীর হাসান ছোট মনির, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদের স্ত্রী নাহার আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক জামিলুর রহমান মিরন, শহর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বড়মনি প্রমুখ।

এসময় জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মাতিনুজ্জামান খান সুখন, জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক তানভীরুল ইসলাম হিমেল, সদর থানা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি আবু সাইম তালুকদার বিপ্লব, শহর আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক নূর মোহাম্মদ মানিক সিকদার, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি রাতে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ফারুক আহমদের গুলিবিদ্ধ লাশ তার কলেজপাড়া এলাকার বাসার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার তিন দিন পর তার স্ত্রী নাহার আহমেদ বাদি হয়ে সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে গোয়েন্দা পুলিশ রাজা ও মোহাম্মদ আলীর নামক দুইজনকে ২০১৪ সালে গ্রেফতার করে। ওই দুই আসামির জবানবন্দিতে এই হত্যার সাথে টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের তৎকালীন সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা এবং তার অপর তিন ভাই পৌরসভার তৎকালীন মেয়র শহিদুর রহমান খান মুক্তি, ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান কাকন ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সানিয়াত খান বাপ্পার জড়িত থাকার বিষয়টি বের হয়ে আসে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া