যুদ্ধাপরাধী সাকা-মুজাহিদের দন্ড

প্রকাশিত : ২২ নভেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরী ও জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনার পৃথক আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত। এতে দুজনেরই ফাঁসির আদেশ বহাল থাকল। গত ১৮ নভেম্বর পৃথক এ দুটি আদেশ দেন আদালত। এটি সাকা চৌধুরী ও মুজাহিদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার চূড়ান্ত রায়। দুজনের সামনে আর একটি সুযোগ আছে, তা হলো রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়া। এরপরই আসবে দন্ড কার্যকরের বিষয়টি। আপিল বিভাগে এই পর্যন্ত মোট ৫টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। এর মধ্যে কাদের মোল্লা ও মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের দন্ড কার্যকর করা হয়েছে। দেলাওয়ার হোসাইন সাইদীকে মৃত্যুদন্ড কমিয়ে আমৃত্যু কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। ১৯৭১ সালে চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর সাকা চৌধুরীকে ফাঁসির আদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। পরে ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করেন সাকা চৌধুরী। আপিলের রায়ে তার মৃত্যুদন্ডাদেশ বহাল থাকে। মুক্তিযুদ্ধকালে বুদ্ধিজীবী হত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সে সময়কার আলবদর বাহিনীর নেতা মুজাহিদকে ২০১৩ সালের ১৭ জুলাই ফাঁসির আদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যনাল-২। এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন মুজাহিদ। চলতি বছরের ১৬ জুন ট্রাইব্যুনালের দেয়া ফাঁসির আদেশ বহাল রেখে রায় ঘোষণা করেন আপিল বিভাগ। ৩০ সেপ্টেম্বর সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে মুজাহিদের আপিলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। এরপর ওই রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে আবেদন করেন মুজাহিদ। যা গত ১৮ নভেম্বরই খারিজ হলো।
‘বাংলাদেশে কোনো যুদ্ধাপরাধী নেই’ বলে দাম্ভিকতা দেখিয়েছিলেন মুজাহিদ। বলেছিলেন, একাত্তরে কী করেছেন তা তিনি ভুলে গেছেন। স্বাধীন বাংলাদেশে পরাজিত শক্তির অন্যতম এই নায়ক ক্ষমতার জোরে ভুলতে চেয়েছিলেন একাত্তরকে। ভুলতে চেয়েছিলেন সব অন্যায়, অপকর্ম। তবে মুজাহিদ ভুলে গেলেও জাতি ভুলতে পারেনি। আর ভুলতে পারেনি বলেই মুক্তিযুদ্ধের সুদীর্ঘ ৪৪ বছর পর কুখ্যাত খুনির ফাঁসির দন্ড চূড়ান্ত হয়েছে। আর সাকা চৌধুরী একাত্তরে তার ভূমিকার জন্য অনুশোচনা বা দুঃখ প্রকাশ তো দূর হওয়া বিভিন্ন সময় এ সম্পর্কে অশ্লীল দাম্ভিক উক্তি করেই তিনি আলোচনায় থেকেছেন। এমনকি বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে বিচার সম্পর্কে কটূক্তি এমনকি ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটরদেরও হুমকি পর্যন্ত দিয়েছেন। চট্টগ্রামের রাউজান এলাকায় এখনো ত্রাসের রাজত্ব বহাল রেখেছে তার লোকজন। দেরিতে হলেও এসব ঘৃণ্য অপরাধীর অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে, তাদের সর্বোচ্চ দন্ড চূড়ান্ত হয়েছে- এটা স্বস্তির।
একাত্তরে যেসব নরপশু বাঙালির সংগ্রাম-ত্যাগ-তিতিক্ষার বিপক্ষে গিয়ে দেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে, গণহত্যায় পাকিস্তানিদের সহযোগিতা করেছে, এমনকি নিজেরা দলগতভাবে হত্যা, ধর্ষণ, লুণ্ঠনের মতো মানবতাবিরোধী সব অপরাধকর্মে নেতৃত্ব দিয়েছে, অংশ নিয়েছে, তাদের সর্বোচ্চ দন্ডই প্রত্যাশিত। সাকা ও মুজাহিদের মৃত্যুদন্ডের রায় চূড়ান্তভাবে বহাল থাকা নিশ্চয়ই একাত্তরের শহীদ বুদ্ধিজীবীসহ অগণিত শহীদের স্বজন, মুক্তিযোদ্ধা ও দেশপ্রেমিক জনতার প্রত্যাশা পূরণ করেছে। এই বিচার, এই রায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ফেরা ও দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখবে বলেও আমাদের বিশ্বাস। জাতি এখন এই দুটো রায় কার্যকর দেখার অপেক্ষায়। দ্রুত রায় কার্যকর করা হয়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ