শীতের সবজিতে ভরে উঠছে বাজার

প্রকাশিত : ২ নভেম্বর, ২০১৮
আব্দুল্লাহ আল মাসুদ
স্টাফ রিপোর্টার

শীতের সবজিতে ভরে উঠছে টাঙ্গাইলের বাজারগুলো। সরবরাহ বাড়ায় ক্রেতারা চাহিদা মতো সবজি পাচ্ছেন। লাশ শাক, ফুল কপি, বাধা কপি, টোমেটু, বেগুন, বটবটি, শিম, কচু, মুখি, লাউ, শসা, চিনিঙ্গা, ঢেড়স, মুলা, পালন শাক, গাজর, ধনে পাতার দাম রয়েছে ক্রয়ক্ষমতার মধ্যেই। এছাড়া চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি এবং আটার মতো ভোগ্যপণ্যের দাম স্বাভাবিক রয়েছে। বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে মাছ, আদা ও রসুন। গরু-খাসির মাংস এবং ব্রয়লার মুরগির দাম স্থিতিশীল রয়েছে।
সোমবার (২৯ অক্টোবর) থেকে বাজারে এসেছে নতুন ইলিশ। সোমবার থেকেই ইলিশ ধরা ও বিক্রির উপর থেকে সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হয়েছে। শুক্রবার (২ নভেম্বর) টাঙ্গাইলের পার্ক বাজার, ছয়আনি বাজার, বটতলা বাজার, সন্তোষ বাজার ঘুরে নিত্যপণ্যের দরদামের এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
এদিকে, ২০-৩০ টাকা দাম বেড়ে প্রতিকেজি আদা বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৭০ টাকায়। ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি রসুন। দেশি জাতীয় পেঁয়াজ ৪০-৫০ এবং ভারত থেকে আমদানিকৃতটি ৩০-৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মসুর ডাল পাওয়া যাচ্ছে ৫০-১০০ টাকায়। পাঁচ লিটার ভোজ্যতেলের বোতল ৪৬৫-৫১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া চিনি ৪৮-৫৪, আটা ২৬-৩৬, সরু চাল নাজিরশাইল ও মিনিকেট ৫৬-৬৬, মাঝারি মানের পাইজাম ও লতা ৪৮-৫৫ এবং মোটা মানের স্বর্ণা ও চায়না ইরি বিক্রি হচ্ছে ৪০-৪৫ টাকায়। প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১২০-১৪০, খাসির মাংস ৭০০-৮০০ এবং প্রতিকেজি গরুর মাংস ৪৫০-৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে।
অপরদিকে, বাজারে ইলিশ থাকালেও বিক্রি হচ্ছে বাড়তি দামে। বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের দেশী জাতীয় মাছ। প্রতিকেজি রুই মাছ ২৩০-৪০০, চিংড়ি ৬০০-১২০০, পাবদা ৪৫০-৬০০, পুঁটি মাছ ২৫০-৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাছ বিক্রেতারা জানান, ইলিশের সরবরাহ শুরু হলেও দেশী জাতীয় সব ধরনের মাছ বেশি দামে কিনতে হবে ভোক্তাদের। পার্ক বাজারের মাছ ব্যবসায়ী সোহেল জানান, গত রবিবার (২৮ অক্টোবর) থেকে ইলিশ ধরার উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে গেছে বাজারে। ইলিশ উঠলেও দাম কমেনি। আগামী সপ্তাহ নাগাদ বাজারে পাওয়া যাবে পর্যাপ্ত ইলিশ মাছ। ওই সময় মাছের দাম কিছুটা কমতে পারে।
উল্লেখ, গত (৭ অক্টোবর) থেকে (২৮ অক্টোবর) পর্যন্ত মোট ২২ দিনের জন্য বন্ধ থাকে দেশের ৩৭ জেলার সাত হাজার কিলোমিটার নদীতে মাছ ধরা। এই ২২ দিন ইলিশ মাছ ধরা, বিক্রি, বাজারজাত, মজুতসহ সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ থাকে। ইলিশের মা মাছ রক্ষা এবং ডিম ছাড়ার সুযোগ দিতেই প্রতি বছর এই সময়ে ইলিশ ধরা বন্ধ রাখা হয়।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ