সংবিধানের মূলনীতির ভিত্তি যে ভাষণ

প্রকাশিত : ১১ মার্চ, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন

প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন

বাঙালির জাতীয় জীবনে একাত্তরের ৭ মার্চ অন্য যেকোনো দিনের মতো ছিলো না। দিনটি ছিলো ফাল্গুনের অন্যান্য দিনগুলোর মতোই পাতা ঝরার। না ছিল শীত, না গরম। পরিস্কার আকাশে রোদের মাত্রা ছিল সহনীয়। রেসকোর্স ময়দানে সেদিন যে সমাবেশ হয়, সেটি অতীতের কোনো সমাবেশের সঙ্গেও তুলনীয় নয়। শেখ মুজিবুর রহমান অতীতে বহু সমাবেশে ভাষণ দিয়েছেন, কিন্তু সেদিন তিনি ১৮ মিনিটের যে ভাষণ দেন, সেটি ছিলো তাঁর জীবনের অনন্য এক ভাষণ। এ ভাষণের কারণেই মার্কিন সাময়িকী নিউজউইক বঙ্গবন্ধুকে ‘রাজনীতির কবি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।
সত্তরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পাকিস্তান জাতীয় পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করলেও পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী দলটির কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে দেরি করে। তাদের উদ্দেশ্য ছিলো যেকোনো উপায়ে ক্ষমতা পশ্চিম পাকিস্তানিদের হাতে কুক্ষিগত করে রাখা। এমন পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান ৩ মার্চ জাতীয় পরিষদের অধিবেশন ডাকেন। অপ্রত্যাশিতভাবে ১ মার্চ এই অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য মুলতবি ঘোষণা করে পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী। এমন সংবাদে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ বিক্ষোভ ফেটে পড়ে। আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ২ মার্চ ঢাকায় এবং ৩ মার্চ সারাদেশে একযোগে হরতাল পালিত হয়। ৩ মার্চ পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত এক জনসভায় তিনি সমগ্র পূর্ব বাংলায় সর্বাত্মক অসহযোগ আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
এই পটভুমিতে ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানের সমাবেশে বিপুল সংখ্যক লোক একত্রিত হয়। পুরো ময়দান পরিণত হয় এক জনসমুদ্রে। ৭ মার্চ ঢাকা মিছিলের শহরে পরিণত হয়। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলে দলে লোকজন পায়ে হেঁটে, বাস, লঞ্চ কিংবা ট্রেনে চেপে রেসকোর্স ময়দানে সমবেত হয়। ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে লাখ লাখ মানুষে পরিপূর্ণ হয়েছিল রেসকোর্স ময়দান। মুহুর্মুহু গর্জনে ফেটে পড়েছিল উত্থিত বাঁশের লাঠি হাতে সমবেত বিক্ষুব্ধ জনতা। বাতাসে উড়ছিল বাংলাদেশ মানচিত্র আঁকা লাল-সূর্যের অসংখ্য পতাকা। বিকাল ৩টা ২০ মিনিটে সাদা পাজামা-পাঞ্জাবি আর হাতাকাটা কালো কোট পরে বাঙালির প্রাণপুরুষ বঙ্গবন্ধু সেদিন দৃপ্তপায়ে উঠে আসেন রেসকোর্সের সমাবেশ মঞ্চে। মাইকের সামনে দাঁড়িয়ে গগন বিদারী স্লোগান আর অসংখ্য করতালির মধ্যে হাত নেড়ে অভিনন্দন জানান অপেক্ষমান জনতাকে। তারপর শুরু করেন ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ। “ভাইয়েরা আমার, আজ দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। …… আর যদি একটা গুলি চলে, আর যদি আমার লোককে হত্যা করা হয়, তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ রইল, প্রত্যেক ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলো। তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবিলা করতে হবে এবং জীবনের তরে রাস্তাঘাট যা যা আছে সবকিছু, আমি যদি হুকুম দেবার নাও পারি তোমরা বন্ধ করে দেবে। আমরা ভাতে মারবো। আমরা পানিতে মারবো। তোমরা আমার ভাই, তোমরা ব্যারাকে থাকো, কেউ তোমাদের কিছু বলবে না। কিন্তু আর আমার বুকের ওপর গুলি চালাবার চেষ্টা করো না। ভালো হবে না। সাত কোটি মানুষকে দাবায়া রাখতে পারবা না। আমরা যখন মরতে শিখেছি তখন কেউ আমাদের দাবাতে পারবে না”। তারপর বঙ্গবন্ধু বলেন, “প্রত্যেক গ্রামে, প্রত্যেক মহল্লায়, প্রত্যেক ইউনিয়নে, প্রত্যেক সাবডিভিশনে, আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোল। এবং তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো। মনে রাখবা রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরো দেবো। এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। জয় বাংলা।”
ভাষণটি বিচার বিশ্লেষণ করলে আমাদের সামনে ফুটে ওঠে- তখনকার সামগ্রিক পরিস্থিতির পর্যালোচনা; নিজ ভূমিকা ও অবস্থান ব্যাখ্যা; পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনীতিকদের ভূমিকার ওপর আলোকপাত; সামরিক আইন প্রত্যাহারের আহ্বান; অত্যাচার ও সামরিক আগ্রাসন মোকাবিলার হুমকি; দাবি আদায় না-হওয়া পর্যন্ত পূর্ব পাকিস্তানে সার্বিক হরতাল চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা; নিগ্রহ ও আক্রমণ প্রতিরোধের আহ্বান।
৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতিকে তুলে দেন হিমালয়সম এক উচ্চতায়। ভাষণে সামরিক আইন প্রত্যাহার, সৈন্যবাহিনীর ব্যারাকে ফিরে যাওয়া, শহীদদের জন্য ক্ষতিপূরণ ও জনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের চার দফা দাবিও উত্থাপন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধুর ওই ভাষণ সমগ্র বাঙালি জাতিকে করে উদ্দীপ্ত ও অনুপ্রাণিত।
ব্রিটেনের বাম বুদ্ধিজীবি জ্যাক ওয়াডিস বলেছেন, “চারটি ঘোষণা মানবসভ্যতার সড়ক নির্মাণে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। প্রথমটি মহানবী হজরত মুহাম্মদের (সা.) আরাফাতের ময়দানে প্রদত্ত বিদায় হজ্বের ভাষণ। যেখানে তিনি ঘোষণা করেন, ‘তোমরা ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করো না; তোমাদের পূর্বে বহু জাতি ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করে ধ্বংস হয়েছে। “দ্বিতীয়টি আমেরিকার গেটিসবার্গে প্রদত্ত প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিঙ্কনের ঘোষণা। যেখানে তিনি জনগণের জন্য, জনগণের দ্বারা, জনগণের সরকার গঠনের আহ্বান জানিয়েছেন। তৃতীয়টি কার্ল মার্কসের সাম্যবাদী কমিউনিস্ট মেনিফেস্টো, যাতে কার্ল মার্কস সর্বহারার একনায়কত্ব প্রতিষ্ঠার কথা ঘোষণা করেন।” অতঃপর তিনি নির্র্দ্বিধায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘যদিও এই ভাষণটিতে বাংলাদেশের মানুষকে মুক্তিসংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। আসলে এটি তার সমকালিন বিশ্বে সকল নির্যাতিত, নিপীড়িত ও শোষিত-বঞ্চিত মানুষের মুক্তিসংগ্রামের দিকনির্দেশনা।’ ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের হত্যার পর যখন জ্যাক ওয়াডিস লন্ডনের বিখ্যাত ‘সোস্যালিস্ট ওয়ার্কার্স’ পত্রিকায় এই কথাগুলো লেখেন, তখন বাংলাদেশি কোনো কোনো বুদ্ধিজীবি বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণটির অতি মূল্যায়ন করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছিলেন। তার কিছুকাল পরেই দক্ষিণ আফ্রিকার অবিসংবাদিত নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রাম এবং বঙ্গবন্ধুর জীবন সম্পর্কে প্রকাশ্যে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। ফিলিস্তিনের অবিসংবাদিত নেতা ইয়াসির আরাফাত বলছেন, ‘সন্ত্রাসের পথ নয়, শেখ মুজিবের জনযুদ্ধের পদ্ধতির মধ্যেই রয়েছে নির্যাতিত প্যালেস্টাইনিদেরও মুক্তির পথ।’ শেষ পর্যন্ত লন্ডন থেকে প্রকাশিত জ্যাকব এফ ফিল্ড কর্তৃক সংকলিত ও সম্পাদিত ‘‘’ÔWe shall fight on the beaches: the speeches that inspired history’ ‘নামক গ্রন্থে খ্রিস্টপূর্ব ৪৩১ থেকে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত সংগৃহীত ইতিহাসের অগ্রযাত্রার সহায়ক ঘোষণাগুলোর মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঘোষণাও স্থান পেয়েছে। ২০১৭ সালের অক্টোবরের শেষে ৭ মার্চের ভাষণকে ‘ওয়াল্ড ডকুমেন্টারি হেরিটেজ’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে ইউনেস্কো। এই ভাষণটিসহ মোট ৭৭টি গুরুত্বপূর্ণ নথিকে একইসাথে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। ইউনেস্কো পুরো বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ দলিলকে সংরক্ষিতকরে থাকে। ‘মেমোরি অফ দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে (এমওডব্লিউ)’ ৭ মার্চের ভাষণসহ এখন পর্যন্ত ৪২৭টি গুরত্বপূর্ণ নথি সংগৃহীত হয়েছে। ৭ মার্চের ভাষণ ‘ওয়াল্ড ডকুমেন্টারি হেরিটেজ’ স্বীকৃতি পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় জননেত্রী শেখ হাসিনা একে ইতিহাসের প্রতিশোধ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। জনপ্রিয় বিজ্ঞান লেখক অধ্যাপক জাফর ইকবাল ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যে’র স্বীকৃতি পাওয়া উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত নাগরিক সমাবেশে বলেন, ‘আমি সেই উদ্যানে দাঁড়িয়েছি, যেখানে বঙ্গবন্ধু তাঁর ৭ মার্চের ভাষণ দিয়েছিলেন। পৃথিবীতে খুব কম জাতি আছে, যারা দাবি করতে পারবে, একটি দেশ ও একটি মানুষ সমার্থক। আমরা বাংলাদেশের মানুষেরা তা দাবি করতে পারি। কারণ বাংলাদেশ এবং বঙ্গবন্ধু সমার্থক। যদি বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হতো আমরা এই বাংলাদেশ পেতাম না। আমাদের খুব সৌভাগ্য যে, এই দেশের মাটিতে বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল। তিনি সমস্ত বাঙালিকে একত্র করেছিলেন। তিনি আমাদের বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। যেই স্বপ্ন দেখে আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধ করে আমাদের এই দেশ উপহার দিয়েছেন।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমি শিক্ষক মানুষ, আমি আমার ছাত্রদের বলি তোমরা দেশকে ভালোবাসো। দেশকে ভালোবাসার সোজা রাস্তা কী? সোজা রাস্তা হলো দেশের ইতিহাসকে জানো। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসটি জানো, তাহলে তুমি অবশ্যই দেশকে ভালোবাসবে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস যদি জানতে হয়, আমাদের সবাইকে ৭ মার্চের ভাষণকে জানতে হবে।’ বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ৭ মার্চের ভাষণ সম্পর্কে বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে ওই ভাষণ দিয়েছিলেন। একদিকে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দেন, অন্যদিকে তাকে যেন বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসেবে অভিযুক্ত করতে না পারে, সেদিকেও তাঁর সতর্ক দৃষ্টি ছিল। তার এই সতর্ক কৌশলের কারণেই জেনারেল ইয়াহিয়া খানের নির্দেশে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী এই জনসভার ওপর হামলা করার প্রস্তুতি নিলেও তা করতে পারেনি। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনে শেখ মুজিবকে ‘চতুর’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। প্রতিবেদনে এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, শেখ মুজিব কৌশলে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে গেলো, কিন্তু আমরা কিছুই করতে পারলাম না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, “২০১৫ সালে কানাডার একজন অধ্যাপক সারা বিশ্বের ঐতিহাসিক ভাষণ নিয়ে একটি গ্রন্থ প্রকাশ করেছিলেন। সেখানেও বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ছিলো। তখন ভাষণটি অ্যাকাডেমিক স্বীকৃতি পেলেও এবার পেলো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি।”
বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণে বাংলাদেশের সংবিধানের চার মূলনীতি গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও জাতীয়তাবাদ সম্পর্কে সুস্পষ্ট বক্তব্য উত্থাপন করেন। যদি তৎকালীন পাকিস্তানে গণতন্ত্রের বিজয় প্রতিষ্ঠিত হতো তাহলে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের প্রয়োজন হতো না। ৭ মার্চের ভাষণে বাঙালির গণতান্ত্রিক অধিকারের ন্যায্য দাবি তুলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিয়েছিলেন তার মূল উদ্দেশ্যই ছিলো বাংলাসহ বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করা। আবার এটাও সত্য যে, বঙ্গবন্ধু তাঁর ভাষণে গণতন্ত্রের পূর্ণ বিকশিত রূপ দিয়েছেন। গণতন্ত্রের সংখ্যাগত দৃষ্টিভঙ্গী নয়, বরং তাঁর কাছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিলো গণতন্ত্রের গুণগত দৃষ্টিভঙ্গী। ৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু গণতন্ত্রের অধিকার প্রতিষ্ঠায় দৃপ্তকণ্ঠে উচ্চারণ করেন, “আমি বললাম অ্যাসেম্বলির মধ্যে আলোচনা করব এমনকি আমি এ পর্যন্তও বললাম, যদি কেউ ন্যায্য কথা বলে, আমরা সংখ্যায় বেশি হলেও একজন যদিও সে হয় তার ন্যায্য কথা আমরা মেনে নেব।”
৭ মার্চের ভাষণে সমাজতন্ত্রকে ধারণ করেছেন বঙ্গবন্ধু। কিন্তু তাঁর সমাজতন্ত্র ভাবনায় শাস্ত্রীয় সমাজতন্ত্র ছিলো না। বরং তিনি সমাজতন্ত্রকে তত্ত্বের বেড়াজাল থেকে মুক্ত করে শোষণহীন, ন্যায়ানুগ ও সাম্যবাদী সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে কাজ করেছেন। এমন প্রমাণ পাওয়া যায় বঙ্গবন্ধুর অন্যান্য ভাষণেও। ৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু বাঙালির অর্থনৈতিক মুক্তি ও শোষণমুক্ত সমাজের দাবি জানান। ভাষণে বঙ্গবন্ধু যে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিয়েছিলেন সেখানেও খেটেখাওয়া মানুষের ওপর তাঁর বিশেষ দৃষ্টি ছিলো। তিনি ৭ মার্চের ভাষণে অসহযোগ আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করার সময় বলেছিলেন, “গরিবের যাতে কষ্ট না হয়, যাতে আমার মানুষ কষ্ট না করে সেইজন্য যে সমস্ত অন্যান্য জিনিসগুলো আছে সেগুলোর হরতাল কাল থেকে চলবে না। রিকশা, ঘোড়ার গাড়ি, রেল চলবে, লঞ্চ চলবে। ২৮ তারিখে কর্মচারীরা যেয়ে বেতন নিয়ে আসবেন। আর এই সাত দিন হরতালে যে সমস্ত শ্রমিক ভাইয়েরা যোগদান করেছে, প্রত্যেকটা শিল্পের মালিক তাদের বেতন পৌঁছে দেবেন।” এমন প্রতিকূলতার মধ্যে থেকেও বঙ্গবন্ধু গরিব দুঃখী ও খেটেখাওয়া মানুষের কথা চিন্তা করেছেন।
৭ মার্চের ভাষণ বঙ্গবন্ধুর ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ নীতির বহিঃপ্রকাশের একটি অনন্য উদাহরণ। বঙ্গবন্ধু তাঁর ৭ মার্চের ভাষণে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ সম্পর্কে বলেছেন, “এই বাংলায় হিন্দু, মুসলমান, বাঙালি, অবাঙালি যারা আছে তারা আমাদের ভাই, তাদের রক্ষার দায়িত্ব আপনাদের উপর, আমাদের যেন বদনাম না হয়।” তবে এখানে বলতে হয় দ্বিজাতিতত্ত্বের ওপর ভিত্তি করে ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান নামক যে রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল সেটি যে একটি ঐতিহাসিক ভুল ছিলো তার বড় প্রমাণ হলো বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা। বাংলাদেশ জন্মের অন্যতম মূল উদ্দেশ্যই ছিলো ধর্মনিরপেক্ষ একটি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। তবে বঙ্গবন্ধুর ধর্মানিরপেক্ষতা নিয়ে বলতে গেলে তার একটি কথা সর্বাগ্রে মনে পড়ে “…. আমি মুসলমান। আমি ইসলমাকে ভালোবাসি। বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তি চরিত্রে ধর্মের প্রতি অগাধ বিশ্বাস, শ্রদ্ধা ও ধর্মনিরপেক্ষতার অপূর্ব সংমিশ্রণ ছিল। ধর্মনিরপেক্ষতার ব্যাপারে অনেকে প্রশ্ন তুললে তিনি স্পষ্ট অক্ষরে জবাব দিতেন “ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। হিন্দু তার ধর্ম পালন করবে; মুসলমান তার ধর্ম পালন করবে; খ্রিস্টান, বৌদ্ধ যে যার ধর্ম পালন করবে। কেউ কারো ধর্মে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না, বাংলার মানুষ ধর্মের ব্যাপারে হস্তক্ষেপ চায় না।” যদিও বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণার পূর্বে প্রদান করা হয়েছিল তথাপি এ ভাষণের যে বক্তব্য তার মাধ্যমে আমরা তাঁকে একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের রূপকার হিসেবে দেখতে পাই।
৭ মার্চের ভাষণে বাঙালি জাতীয়তাবাদের কথা সুচিন্তিতভাবে উল্লেখ করেছেন বঙ্গবন্ধু। ভাষণে তিনি বাংলার মানুষের আর্থ-সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক মুক্তির কথা বলেছেন; বাঙালি জাতির উপর তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকদের নির্যাতনের করুণ ইতিহাসের বর্ণনা দিয়েছেন এবং বাঙালি জাতির গণতান্ত্রিক অধিকারের দাবি তুলেছেন। শোষণমুক্ত সমাজ গঠনের প্রতিফলনও আমরা দেখতে পাই বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণে। তিনি তাঁর ভাষণে বাঙালি জাতীয়তাবাদকে যেভাবে তুলে ধরেছেন, তা আজ পর্যন্ত বিশ্বে অনুকরণীয় দৃষ্টান্তও বটে।
৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু জাতীয়তাবাদ সম্পর্কে বলেছেন, “আজ বাংলার মানুষ মুক্তি চায়, বাংলার মানুষ বাঁচতে চায়। তারা অধিকার পেতে চায়। নির্বাচনে আপনারা সম্পূর্ণভাবে আমাকে এবং আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করেছেন শাসনতন্ত্র রচনার জন্য। আশা ছিল জাতীয় পরিষদ বসবে, আমরা শাসনতন্ত্র তৈরি করব এবং এই শাসনতন্ত্রে মানুষ তাদের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক মুক্তি লাভ করবে। কিন্তু ২৩ বছরের ইতিহাস বাংলার মানুষের রক্ত দিয়ে রাজপথ রঞ্জিত করার ইতিহাস। ২৩ বছরের ইতিহাস, বাংলার মানুষের মুমূর্ষু আর্তনাদের ইতিহাস, রক্তদানের করুণ ইতিহাস। নির্যাতিত মানুষের কান্নার ইতিহাস।” এ থেকে এটা প্রতীয়মান হয় যে, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বাঙালি জাতীয়তাবাদের আলোকে উদ্ভাসিত।
১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ভাষণের মধ্যদিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন। যার সামনে টিকতে পারেনি শক্তিশালী পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশিয় দোসরেরা। ১৯৭১-এর ৭ মার্চ থেকে ২৫ মার্চ এই ১৮ দিনে এই ভাষণ বাংলাদেশের সাত কোটি মানুষকে প্রস্তুত করেছে মুক্তির সংগ্রামে ও স্বাধীনতার সংগ্রামে। এই ভাষণ ছিল আমাদের সেই সময়ে দিশেহারা জাতির জন্য এক গ্রিন সিগন্যাল। যা লিখেছেন মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান লিখেছেন তাঁল ‘একটি জাতির জন্ম’ নামক প্রবন্ধে। তিনি লিখেন, “৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ঘোষণা আমাদের কাছে একটি গ্রিন সিগন্যাল বলে মনে হলো।” এখানে গ্রিন সিগন্যাল বলতে জিয়াউর রহমান মূলত বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণে ‘বাংলাদেশের স¦াধীনতার ঘোষণা’কেই ইঙ্গিত করেছেন। এখন ৭ মার্চের ভাষণ শুধু বাঙালি জাতির ঐতিহ্য নয়, বিশ্বমানবতারও ঐতিহ্য। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণকে ইউনেস্কো কর্তৃক ‘বিশ্ব প্রামাণ্য দলিলের’ অন্তর্গত করার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হলো বিশ্বমানবতার বিজয় । এগিয়ে যাক বিশ্ব মানবতা। জয় হোক জনতার। জয় হোক মনবতার।
প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন,উপাচার্য
মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় টাঙ্গাইল।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ