সখীপুরে বাল্য বিয়ের দায়ে বর-কনের দন্ড ॥ কাজী অফিসে তালা

প্রকাশিত : ২২ নভেম্বর, ২০১৫
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

সখীপুর প্রতিনিধিঃ

তালা

টাঙ্গাইলের সখীপুরে বাল্য বিয়ের দায়ে বর ও কনেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে বিয়ে রেজিস্ট্রি করার দায়ে নিকাহ রেজিস্ট্রিার (কাজী অফিস) কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন একই আদালত। গত শুক্রবার(২০ নভেম্বর) রাতে উপজেলা নির্বার্হী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম রফিকুল ইসলাম ওই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এতে উপজেলার নলুয়া গ্রামের মোনায়েম খানের ছেলে বর শাকিব খানকে (১৮) এক বছর ও কনে ওই গ্রামের খন্দকার লেবু মিয়ার মেয়ে হেনা আক্তার লিজাকে (১৩) ১৫ দিনের কারাদন্ডের আদেশ দেয়া হয়।
জানা যায়, নলুয়া বাছেত খান উচ্চ বিদ্যালয়ের জেএসসি পরীক্ষার্থী হেনা আক্তার লিজা গত ১৯ নভেম্বর(বৃহস্পতিবার) পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে নলুয়া গ্রামের মোনায়েম খানের বখাটে ছেলে শাকিব খান তার সহযোগীদের নিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায় এবং বিয়ে করে। গত ২০ নভেম্বর(শুক্রবার) বিকালে ওই ছাত্রীর মা লাভলী আক্তার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করলে নির্বাহী অফিসার পুলিশ নিয়ে নলুয়া গ্রামের বখাটে শাকিব খানের চাচা আইয়ুব খানের বাড়ি থেকে বর-কনেকে আটক করেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বরকে এক বছর ও কনেকে ১৫ দিনের কারাদন্ড দেয়া হয়। বাল্য বিয়ে রেজিস্ট্রি(কাবিন) করার দায়ে যাদবপুর ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী কেএম হেলাল উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করতে বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। তাকে না পেয়ে নলুয়া বাজারের নিকাহ রেজিস্ট্রার অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়।
মেয়ের মা লাভলী আক্তার জানান, তার নাবালক মেয়েকে জোর পূর্বক তুলে নিয়ে বখাটে শাকিব খান বিয়ে করে অজ্ঞাত স্থানে আটকে রাখে। পরে তিনি মেয়েকে উদ্ধারের জন্য ইউএনও’র কাছে অভিযোগ করেন।
সখীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম রফিকুল ইসলাম জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে বাল্য বিয়ের দায়ে বর-কনেকে কারাদন্ড ও নিকাহ রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে তালা দেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে নিকাহ রেজিস্ট্রার কাজী কেএম হেলাল উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, ওই বিয়ে তিনি রেজিস্ট্রি করেননি। তবে তার নিকাহ রেজিস্ট্রি কার্যালয় ভ্রাম্যমাণ আদালতের তালা দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন তিনি।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ