সখীপুরে সুইচ গেটের পানি ছাড়ায় ইরি-বোরো চাষ অনিশ্চিত

প্রকাশিত : ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

সখীপুর প্রতিনিধিঃ

টাঙ্গাইলের সখীপুরে সুইচ গেটের পানি ছেড়ে দিয়ে মাছ শিকার করায় ৮শত একর জমির ইরি-বোরো চাষ অনিশ্চিত হয়ে পড়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
উপজেলার কাকরাজান ইউনিয়নের ইন্দারজানী বাজার সংলগ্ন মাদনা নদীতে ইরি-বোরো আবাদ সুষ্ঠুভাবে করার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড চার বছর আগে একটি সুইচ গেট স্থাপন করে।
এ বছর ইরির মৌসুম শুরুর আগেই স্থানীয় ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মান্না তালুকদার, ভাতকুড়া গ্রামের মৃত তাহের আলীর ছেলে আফসার আলী ও সাবেক ইউপি সদস্য রুহুল আমীন, ঈমান আলী, রিপন তালুকদার নেতৃত্বে আরো কয়েকজন মিলে রাতের অন্ধকারে টাকার লোভে সুইচ গেটের পানি ছেড়ে দিয়ে মাছ বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। এতে ওই গ্রামের প্রায় দুই শতাধিক কৃষকের আসন্ন ইরি-বোরো মৌসুমে আবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
স্থানীয় কৃষক লুৎফর রহমান বলেন, সুইচ গেট স্থাপন হয়েছে চার বছর। কিন্তু প্রতি বছরই প্রভাবশালী সুইচ গেটের সভাপতি সাবেক মেম্বার রুহুল আমিন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মান্না তালুকদার ও আফসার আলীসহ অন্যান্যরা মিলে প্রত্যেক মৌসুমের শুরুতেই পানি ছেড়ে দিয়ে মাছ ধরে বিক্রি করে প্রচুর টাকা হাতিয়ে নেন। কিন্তু পানি ছেড়ে দেয়ায় বিপাকে আছি আমরা নিরীহ কৃষকরা। মৌসুমের শুরুতেই পড়ে যাই পানির সংকটে।
কৃষক মোশারফ বলেন, গত বছর ইরি-বোরোর সময়ও পানি ছেড়ে দিয়েছিল। পানির অভাবে ফলন ভাল হয়নি। এ বছরও একই রকম ঘটনা ঘটিয়েছে। আমাদের এ সমস্যা দেখার কি কেউ নাই? কৃষক লাভলু মিয়া বলেন, যাদের এখানে জমি নাই তারা এখানকার কর্মকর্তা। খাল খননের সভাপতি রুহুল আমীনসহ যারা এ অবৈধ কাজের সঙ্গে জড়িত তাদের সবার কঠিন শাস্তি দাবি করছি।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আমজাদ হোসেন বলেন, প্রত্যেক ইরির সময়ে রাতের অন্ধকারে মাছ ধরার উদেশ্যে সুইচ গেট খুলে দেয়। মাছ বিক্রির করে টাকা ভাগাভাগি করে নেন স্থানীয় কয়েকজন। এ সুইচ গেট খুললে উজানের প্রায় ৮ শত একর জমি ইরি বোরোর চাষ অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। পানির অভাবে কৃষক কঠিন বিপদে পড়তে হয়। উপজেলা কৃষি অফিসে জানিয়েছি, কিন্তু কোন লাভ হয় না। নিরীহ কৃষকদের যারা ক্ষতি করেছে বা এ ঘটনার সাথে জড়িত যারা তাদের দ্রুত বিচার দাবি করছি। স্থানীয় সেচ প্রকল্প ও সুইচ গেটের সভাপতি রুহুল আমীন বলেন, বিষয়টি সম্পূর্ণ সত্য নয়।
সখীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফাইজুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। কৃষকদের এ সমস্যা দ্রুত সমাধান করতে উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতির সঙ্গে কথা হয়েছে।
এ ব্যাপারে সখীপুর উপজেলা সেচ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মৌসুমী সরকার রাখী বলেন, অভিযোগ পেলে সমাধানের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ