সখীপুরে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

প্রকাশিত : ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

প্রতীকী ছবি

সখীপুর ৬ ডিসেম্বর : টাঙ্গাইলের সখীপুরে হাদিয়া আক্তার (১১) নামের এক স্কুলছাত্রী গত মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) বিকালে আত্মহত্যা করেছে। পরিবার ও এলাকাবাসীর অভিযোগ, মেয়েটিকে গ্রামের এক বকাটে উত্ত্যক্ত করে আসছিল বিষয়টি নিয়ে উল্টো তাকেই গালমন্দ করেন বাবা।

হাদিয়া আক্তার উপজেলার বহেড়াতৈল ইউনিয়নের যোগীরকোফা গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের মেয়ে। সে এবার বহেড়াতৈল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ নিয়েছে। মঙ্গলবার রাতে পুলিশ সখীপুর হাসপাতাল থেকে হাদিয়ার লাশ উদ্ধার করে। বুধবার (৪ ডিসেম্বর) সকালে লাশ টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। 

পরিবার সূত্রে জানা যায়, সমাপনী পরীক্ষার পর থেকে হাদিয়াকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছে একই গ্রামের একটি ছেলে। মেয়েটি তা প্রত্যাখ্যান করলে ছেলেটি ক্ষিপ্ত হয়। সে হাদিয়ার নামে বিভিন্ন বদনাম ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। বিষয়টি হাদিয়ার মা-বাবা জানার পর উল্টো হাদিয়া কে গালমন্দ করেন তার মা-বাবা। এ অবস্থায় সে মঙ্গলবার রাতে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। স্বজনেরা মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। 

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা শামীমা আহমেদ বলেন, লাসের কোথাও কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

 উপজেলার বহেড়াতৈল ইউনিয়ন পরিষদের ২ নং ওয়ার্ডের সদস্য মোহাম্মদ মিয়া বলেন, মেয়ের মা ও বাবা কান্নাকাটি করছেন। মৃত্যুর কারণ অবশ্যই আছে। এলাকায় নানান জনে নানা কথা বলেছে। কারটা বিশ্বাস করব ভেবে পাচ্ছি না।

মেয়েটির চাচা প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সানোয়ার হোসেন বলেন, কি কারণে হাদিয়া আত্মহত্যা করেছে তা আমরা এখনো জানতে পারিনি। তবে প্রকৃত কারণ জানার চেষ্টা চলছে।

এদিকে মেয়েটির বাবা আব্দুল রাজ্জাক বাদী হয়ে বুধবার থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেছেন। 

সখীপুর থানার উপ-পরিদর্শক আজিজুল ইসলাম বলেন, থানায় অপমৃত্যুর মামলা নেয়া হয়েছে। এখন তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া