প্রকাশকাল: ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
শহরে ব্যাপক উত্তেজনা

সাংসদ রানার সমর্থকদের উপর পুলিশের লাঠি চার্জ ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ

মো. আল-আমিন খানঃ

 

টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সাংসদ আমানুর রহমান খান রানার জামিনের শুনানীকে কেন্দ্র করে টাঙ্গাইল শহরে ব্যাপক উত্তেজনা চলছে। বুধবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকালে সাংসদ রানাকে টাঙ্গাইল অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হলে আদালত চত্তরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। আদালত চত্তর ঘিরে নিহত মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদ এর সমর্থরা রানা এমপির শাস্তির দাবীতের মিছিল করতে থাকে। অপরদিকে শামছুল হক তোরণ ( ডিসট্রিক্ট গেট) এলাকায় এমপি রানার জামিনের সমর্থনে মিছিল ও রাস্তা অবরোধ করে রাখে তার সমর্থকরা। অবরোধের ফলে সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পুলিশ তাদের বারবার অনুরোধে করলেও তারা সরে না যাওয়ায় বেলা ১২টার দিকে পুলিশ ২ রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করতে বাধ্য হয় বলে জানায় পুলিশ। এ সময় পুলিশ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের সম্মুখ সড়ক থেকে ৮ রাউন্ড গুলি, ২টি ম্যাগজিন ও একটি বিদেশী পিস্তলসহ এমপি রানার দুই সমর্থকসহ আরো ৯জনকে গ্রেপ্তার করেছে। এ নিয়ে শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

এ প্রসঙ্গে দুপুর দেড়টার দিকে হাসপাতাল গেট সম্মুখে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরিফুল হক অস্ত্রসহ গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, টাঙ্গাইল-৩ ঘাটাইল আসনের এমপি আমানুর রহমান খান রানার জামিন শুনানীকে কেন্দ্র শহরে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। বিরাজমান উত্তেজনা ও যে কোন নাশকতা ঠেকাতে শহরের পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে

এদিকে বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টায় মামলার প্রধান আসামী টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানাকে আদালতে হাজির করা হয়। পরে পৌনে ১১ টায় টাঙ্গাইলের প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মাকসুদা খানমের আদালতে শুধু মাত্র জামিন শুনানী হয়। জামিন শুনানীর পর আজ বিকাল ৪ টায় রায় ঘোষনা সময় ধার্য করা হয়। পরবর্তী শুনানীর দিন ২৭ সেপ্টেম্বর ধার্য্য করেন ।

 

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ফারুক আহমেদের গুলিবিদ্ধ লাশ তার কলেজপাড়া এলাকার বাসার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার তিনদিন পর তার স্ত্রী নাহার আহমেদ বাদি হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ২০১৪ সালের আগস্টে গোয়েন্দা পুলিশের তদন্তে এই হত্যায় এমপি রানা ও তার ভাইদের নাম বের হয়ে আসে। ২০১৬ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তদন্ত শেষে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় গোয়েন্দা পুলিশ। এই মামলায় এমপি রানা ছাড়াও তার তিন ভাই টাঙ্গাইল পৌরসভার সাবেক মেয়র সহিদুর রহমান খান মুক্তি, ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান কাকন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সানিয়াত খান বাপ্পাসহ ১৪জন আসামী রয়েছে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ