প্রকাশকাল: ২৭ মার্চ, ২০১৭

সিলেটে এখনো জঙ্গি অভিযান চলছে

►সিলেটে আতিয়া মহলের আস্তানায় আরো জঙ্গি আছে

  • ►ভবনজুড়ে বিস্ফোরক

►গতকালও দিনভর ছিল গুলি-বোমার শব্দ

►‘শনিবারের বিস্ফোরণ জঙ্গিদেরই কাজ’

গণবিপ্লব অনলাইন : 

সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় আতিয়া মহলের জঙ্গি আস্তানায় কমান্ডো অভিযানে দুই জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে সেনাবাহিনী। তবে ওই ভবনে এখনো এক বা একাধিক জীবিত জঙ্গি রয়েছে। গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় সেনা সদর দপ্তরের ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়ে বলেন, এই জঙ্গিরা ‘বেশ দক্ষ’। এরা ভবনের বিভিন্ন জায়গায় বিস্ফোরক পেতে রেখে অভিযান চালানো কঠিন করে তুলেছে। এ জন্য সময় লাগছে।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় সেনাবাহিনীর প্রেস ব্রিফিং শেষ হওয়ার পরপরই ওই ভবনের কাছাকাছি স্থানে শক্তিশালী বিস্ফোরণে দুই পুলিশসহ ছয়জন নিহতের ঘটনা জঙ্গিগোষ্ঠীর কাজ বলেই মনে করছে পুলিশ। এ ক্ষেত্রে নিহত এক ব্যক্তি ও আহত কয়েকজনকে সন্দেহ করছে তারা। পুলিশের একাধিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

গত বৃহস্পতিবার গভীর রাত থেকে একই ব্যক্তির মালিকানাধীন আতিয়া মহল নামে পাঁচতলা ও চারতলা বাড়ি দুটি জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ঘিরে রাখে পুলিশ। শুক্রবারও ঘিরে রাখার পর শনিবার সকালে সেখানে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ অভিযান শুরু করেন সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডোরা। গতকাল তৃতীয় দিনের মতো অভিযান চালায় সেনাবাহিনী। গতকালও দিনভর ঘটনাস্থল থেকে দফায় দফায় গোলাগুলি ও প্রচণ্ড বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে। এর ফলে চরম আতঙ্ক ও উত্কণ্ঠার মধ্যে দিন কাটছে ওই এলাকার বাসিন্দাদের।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল সকাল ১০টা থেকে বিকাল পৌনে ৩টার মধ্যে চারবার শক্তিশালী বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেছে। শেষ দুটো বিস্ফোরণ এতই শক্তিশালী ছিল যে আশপাশের গোটা এলাকা কেঁপে ওঠে। নিরাপত্তাজনিত কারণে সিলেট-ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কের প্রায় এক কিলোমিটার সড়কপথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন রশীদ চত্বর, সিলেট-ফেঞ্চুগঞ্জ সড়ক, পাড়াইরচক থেকে পীর হবিবুর রহমান চত্বর পর্যন্ত এলাকায় সব ধরনের সভা-সমাবেশ ও দলবদ্ধভাবে চলাফেরা না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হুমায়ুন রশীদ চত্বরে ওই সড়কের প্রবেশমুখ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

গতকাল সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় আতিয়া মহলের অদূরে পাঠানপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে সেনা সদর দপ্তরের ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান প্রেস ব্রিফিং করেন। ব্রিফিংয়ে দুই জঙ্গির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে তিনি বলেন, অভিযানে বিভিন্ন টেকনিক অবলম্বন করা হয়েছে। প্রথমে রকেট লঞ্চার দিয়ে ভবনে বড় গর্ত করা হয়। এরপর টিয়ার গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করা হয়। তখন জঙ্গিদের ভেতরে থাকা কঠিন হয়ে পড়ে। এ সময় জঙ্গিরা দৌড়াদৌড়ি শুরু করে। এ অবস্থায় কমান্ডোরা দুই জঙ্গিকে গুলি করেন। তখন এক জঙ্গি তাদের গায়ে বেঁধে রাখা সুইসাইড ভেস্টের বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে উভয় জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে। লাশ দুটো ভেতরেই রয়েছে। দুজনই পুরুষ। এখনো ভবনে এক বা একাধিক জঙ্গি রয়েছে। তারা খুবই সতর্ক। সুইসাইড ভেস্ট পরে আছে।

এই সেনা কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘জঙ্গিরা খুবই প্রশিক্ষিত। তাদের কাছে স্মল আর্মস আছে, এক্সপ্লোসিভ আছে, আইইডি আছে, তারা ওয়েল ইকুইপড। এমনও হয়েছে, আমরা তাদের দিকে যে গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছি, তারা সেগুলো ধরে উল্টা আবার আমাদের দিকে নিক্ষেপ করেছে। টিয়ার শেল থেকে বাঁচার জন্য যে আগুন জ্বালাতে হয়, সেটাও তারা জানে। মোটামুটি এই টেকনিকগুলোতে তারা বেশ অভ্যস্ত। ’

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান আরো বলেন, ‘জঙ্গিরা পুরো ভবনের বিভিন্ন জায়গায় যেভাবে আইইডি (ইমপ্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস) ফিক্স করে রেখেছে, তাতে ধারণা করা যাচ্ছে তারা ভালো জ্ঞান রাখে ফকভাবে দুর্গম করে তুলতে হয়। সুতরাং অপারেশন শেষ করতে ভালো ঝুঁকি আছে, এ জন্য সময় লাগছে। ’

ভবনটির ভেতরে ‘বড়’ কোনো জঙ্গি থাকতে পারে বলে আশঙ্কার কথা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালও।

কখন নাগাদ অভিযান শেষ হতে পারে—এ প্রশ্নের জবাবে এই সেনা কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের কমান্ডোরা চেষ্টা করছে। নিশ্চিত করে বলতে পারছি না যে অপারেশন কখন শেষ হবে। অপারেশন পরিচালনা বেশ ডিফিকাল্ট হচ্ছে। ধৈর্য ধরতে হবে। ’

তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রথম যে টার্গেট ছিল, ভেতরে থাকা সাধারণ লোকদের সরিয়ে আনা, তাতে কমান্ডোরা সফল হয়েছেন। ভবনের নিচতলার সিঁড়ির দিকে বেশি বিস্ফোরক লাগিয়ে রাখে জঙ্গিরা। তাদের ধারণা ছিল, অভিযান নিচতলা থেকে শুরু হয়ে ওপরে যাবে। যখন কমান্ডোরা ভবনে বিষয়টি দেখতে পান, তখন উল্টোভাবে অভিযান শুরু করেন তাঁরা। পাঁচতলা থেকে শুরু হয় অভিযান। একটা থেকে আরেকটা ফ্লোরে অভিযান হয়। এভাবে দ্বিতীয় তলা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে আটকে পড়াদের উদ্ধার করা হয়। নিচতলায় অভিযানের সময় সিঁড়ি ব্যবহার না করে জানালার গ্রিল কেটে নিচতলায় থাকা সাধারণ লোকদের উদ্ধার করা হয়। ’ অভিযানের সময় বৃষ্টি থাকায় অভিযানকারী দলের জন্য সহায়ক ছিল বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, এতে ভেতর থেকে অনেক কিছু বুঝতে পারেনি জঙ্গিরা।

ভবনটির ২৯টি ফ্ল্যাটের মধ্যে নিচতলা থেকে পাঁচতলা পর্যন্ত ২৮টি ফ্ল্যাটে ৭৮ জন বাসিন্দা জিম্মি হয়ে পড়েছিল। শনিবার সেনাবাহিনীর অভিযানের শুরুতে বাসিন্দা ৭৮ জনকে সম্পূর্ণ অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

শনিবার মূল সড়কে বোমা বিস্ফোরণের সঙ্গে ভবনের ভেতরের জঙ্গিদের কোনো সম্পর্ক আছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান বলেন, ‘আমরা শুধু একটি নির্দিষ্ট অপারেশনের জন্য এসেছি। বাইরের বিষয়টি পুলিশ বা অন্য সংস্থাগুলো বলতে পারবে। অভিযান চলছে। অভিযান শেষ করেই কমান্ডোরা ফিরবেন। ’

শনিবার রাতে ব্রিফিং শেষে দুই দফায় বিস্ফোরণে ছয়জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত ৫০ জন। নিহতদের মধ্যে পুলিশের দুজন পরিদর্শকও রয়েছেন। নিহতরা হলেন সিলেটের জালালাবাদ থানার ওসি (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম ও আদালত পুলিশের পরিদর্শক চৌধুরী আবু কয়ছর। মনিরুলের বাড়ি নোয়াখালী জেলায়। তিনি সিলেট নগরের শিবগঞ্জ এলাকায় বসবাস করতেন। কয়ছরের বাড়ি সুনামগঞ্জে। নিহত অন্যরা হলেন ব্যবসায়ী খাদিম শাহ (৩২), শহিদুল ইসলাম, শিক্ষার্থী ওয়াহিদুল ইসলাম অপু ও ছাত্রলীগ নেতা জান্নাতুল ফাহিম। তাঁদের মধ্যে খাদিম ও শহিদুল বন্ধু, উভয়েই ডেকোরেটর ব্যবসায়ী। একটি অনুষ্ঠানের সাজসজ্জার ফরমায়েশ নিতে তাঁরা ওই এলাকায় গিয়েছিলেন। খাদিমের বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার দোলার বাজার ইউনিয়নের কল্যাণপুর গ্রামে। তিনি নগরের জল্লারপার এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন। শহিদুল নগরের দাঁড়িয়াপাড়া মেঘনা ১৬ নম্বর বাসায় থাকতেন। ওয়াহিদুল ইসলাম অপু সিলেটের মদন মোহন কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তাঁর বাসা নগরের চাঁদনীঘাট ঝরনারপাড় এলাকায়। বাবার নাম সিরাজুল ইসলাম আওলাদ। এইচএসসি পরীক্ষার্থী জান্নাতুল ফাহিম দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। তাঁর বাসা দক্ষিণ সুরমার কুচাই গ্রামে, বাবা মৃত কামাল আহমদ কাবুল।

আহতদের মধ্যে ৪৩ জন এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গতকাল সকাল ১০টায় আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান মহানগর পুলিশ কমিশনার গোলাম কিবরিয়া। সেখানে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নিরাপত্তায় কোনো গাফিলতি ছিল না। যে যার মতো চেষ্টা করে গেছে।

বোমার ঘটনায় গুরুতর আহত র্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবুল কালাম আজাদকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গতকাল সিঙ্গাপুর পাঠানো হয়েছে। তাঁকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভর্তি করা হবে বলে জানিয়েছেন র্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান।

শনিবারের এই বোমা বিস্ফোরণের ঘটনাকে ‘আত্মঘাতী হামলা’ না বলে সেখানে আগে থেকে বোমা পেতে রাখা ছিল বলে গতকাল দাবি করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তিনি বলেন, সেটি আত্মঘাতী জঙ্গি হামলা ছিল না।

তবে পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, এই বিস্ফোরণ জঙ্গিদেরই কাজ। দুজন লোক এর সঙ্গে জড়িত ছিল। বাজারের ব্যাগে করে তারা বিস্ফোরক নিয়ে এসেছিল। এরপর তারা হামলা চালায়। একটি বিস্ফোরিত হলেও অন্যটি অবিস্ফোরিত থাকে। পরে সেটির বিস্ফোরণে দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ অনেকে আহত হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, হামলাটি ছিল আত্মঘাতী—এমনটিই তাঁরা মনে করছেন। নিহত বা আহতদের মধ্যে হামলাকারীদের কেউ থাকতে পারে বলেও ধারণা করা হচ্ছে।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার এস এম রোকন উদ্দি বলেন, শনিবারের হামলার সবগুলো দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে এটা জঙ্গিদের কাজ বলেই মনে হচ্ছে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ