সিয়াম সাধনার মাস রমজান

প্রকাশিত : ১২ জুন, ২০১৬
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

বছর ঘুরে ফিরে এসেছে রমজান মাস। মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস মতে আত্মশুদ্ধি, সংযম ও ইবাদতের মাস। বিভেদ-হানাহানি, লোভ-লালসা, কাম-ক্রোধসহ সব কুপ্রবৃত্তিকে কঠোর সংযমের মাধ্যমে জয় করে নিজেকে পরিশুদ্ধ করে সৃষ্টিকর্তার প্রতি আনুগত্য প্রকাশই এ মাসের সাধনা। রমজানের এই সংযম ও আত্মশুদ্ধির বার্তার গুরুত্ব ও আবেদন সর্বজনীন। ব্যক্তিজীবনের গণ্ডি পেরিয়ে পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনে এর প্রতিফলন শান্তি ও সম্প্রীতি রক্ষায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে।
ইসলাম ধর্মের পাঁচটি স্তম্ভের অন্যতম একটি হচ্ছে- রোজা। হিজরি সনের রমজান মাসের এক মাস ভোররাতে সেহরি খেয়ে সন্ধ্যায় ইফতার পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থাকা, পাপাচার থেকে বিরত থাকা এবং এভাবে আল্লাহর নৈকট্য প্রার্থনা করা। কাজেই রোজা শুধু উপবাস ব্রতই নয়। এর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য বিস্তৃত ও গভীর- সর্বোচ্চ সংযম ও কঠোর নিয়মানুবর্তিতার মাধ্যমে আত্মশুদ্ধি। কিন্তু দুঃখজনক হলে সত্য যে, এ মাসের চেতনার পরিপন্থী অনেক কাজই আমরা চারপাশে বেশি ঘটতে দেখি। এ মাসে পানাহারে সংযমের কঠোর নির্দেশ আছে অথচ আমরা দেখি খাবার-দাবার সংক্রান্ত ভাবনা ও কাজেই অনেকের সময় ব্যয় হয় বেশি। খাবার বাবদ খরচও এ মাসে বেড়ে যায়। যাদের সক্ষমতা নেই তাদের কথা আলাদা, বাকিদের প্রবণতাটা এমন যেন, এ মাসেই রসনাকে যাবতীয় সুস্বাদু খাবারের আস্বাদ দিতে হবে। বিত্তবানদের যথেচ্ছা খরচের আয়োজনও সমাজের বৈষম্যকে উৎকটভাবে দৃশ্যমান করে।
এক শ্রেণির ব্যবসায়ীরা এ মাসটাতেই বছরের মুনাফা উঠিয়ে নেয়ার মওকা পেয়ে যান। প্রতি বছর রোজার আগে সরকারকে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করতে হয়, অনুরোধ-উপরোধ, শেষমেশ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করতে হয়। তারপরও ভোক্তাদের জিম্মিদশা কাটে না। এ বছর বেশ কিছুদিন আগে থেকেই সরকারের পক্ষ থেকে আশ্বস্ত করা হয়েছে যে, রোজায় পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখা হবে। ব্যবসায়ী নেতারাও দেশবাসীকে অনুরূপ আশ্বাস দিয়েছেন। বলা হচ্ছে ভোজ্যতেল, ছোলা, চিনির পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে, দাম বাড়ার আশঙ্কা নেই। মজুদ আছে এটি স্বস্তির ব্যাপার। তবে পণ্যের সরবরাহ বা সাপ্লাই লাইন সচল রাখার দিকে সরকারের সংশ্লিষ্টদের মনোযোগ রাখতে হবে। না হলে কৃত্রিমভাবে দাম বাড়ানোর চেষ্টা চলবে। ইতোমধ্যেই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামে কিছুটা উল্লম্ফন বাজারে তদারকি জোরদার করার তাগিদ দিচ্ছে।
খাদ্যবস্তুতে ভেজাল এখন একটি বড় আতঙ্ক। রমজানে বিশেষ করে তৈরি ইফতার সামগ্রীতে এবং ইফতার তৈরির উপকরণে ভেজাল দেয়ার প্রবণতা বেশি দেখা যায়। এর পেছনে মূলত কাজ করে বেশি মুনাফা করার লোভ। এটা যে কত বড় অন্যায় ও পাপাচার এদিকে কোনো নজর নেই। অথচ রোজার শিক্ষা এর সম্পূর্ণ বিপরীত। এ মাসে সর্বস্তরের সর্বপেশার মানুষ সৎভাবে যদি তাদের নিজ নিজ দায়িত্ব নিয়মানুগভাবে পালন করেন, তাহলে এই একটি মাসই একটি আদর্শ মাসের উদাহরণ হতে পারে। সেটা সম্ভব রোজার আদর্শ অন্তরে ধারণ ও ব্যবহারিক জীবনে তা চর্চা করার মধ্য দিয়েই। মহা উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে এবারো রমজানকে স্বাগত জানাচ্ছেন বিশ্বের সব মুসলিম ধর্মাবলম্বীর সঙ্গে এ দেশের সিংহভাগ নাগরিক মুসলিম জনগোষ্ঠীও। আমাদের প্রত্যাশা, রমজানের ত্যাগ, সংযম, আত্মশুদ্ধির শিক্ষাটাকেই তারা সবাই অন্তরে ধারণ করে প্রাত্যহিক জীবনাচরণে এর প্রতিফলন ঘটাবেন। দ্বন্দ্ব-বিদ্বেষ-বৈষম্যের এই সমাজে রমজানের শিক্ষা সবার জন্য সহমর্মিতা, ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দ্যরে বাতাবরণ সৃষ্টি করুক, এই আমাদের প্রত্যাশা।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ