প্রকাশকাল: ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬
ভূঞাপুরে প্রশাসনের যোগসাজশে চলছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব

হুমকির মুখে বঙ্গবন্ধু সেতু ও বেড়িবাঁধ

গণবিপ্লব রিপোর্ট:

dsc_0139

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলায় প্রশাসনরে নাকের ডগায় দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধভাবে চলছে প্রভাবশালীদের বালু উত্তোলনের মহোৎসব। ফলে চরম হুমকির মুখে রয়েছে দেশের বৃহত্তম বঙ্গবন্ধু সেতু ও বেড়িবাঁধ । যদিও জাতীয় স্বার্থ বিবেচনায় টাঙ্গাইলের যমুনায় বালু মহাল বন্ধ থাকার নির্দেশ থাকলেও প্রশাসন ও ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের যোগসাজশে চলছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। এ নিয়ে গত ২০ নভেম্বর সাপ্তাহিক গণবিপ্লব প্রিন্ট ও গণবিপ্লব অনলাইন সংস্করণে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন সম্পর্কিত প্রতিবেদন হলেও বন্ধ হয়নি বালু উত্তোলন ও বিক্রির মহোৎসব। এ বিষয়ে ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানিয়েছেন, যমুনা তীরবর্তী এলাকায় অবৈধভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলনের বিষয়টি আমার জানা নেই। তদন্ত সাপেক্ষে অবৈধ বালু ব্যবসায়িদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কিন্তু সংবাদ প্রকাশের ১৪ দিন অতিবাহিত হলেও অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রি বন্ধের কার্যকর কোন ভূমিকা দেখা যাচ্ছে না প্রশাসনের । প্রশাসনের এরূপ ভূমিকায় জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অনেকের মতে প্রশাসনের যোগসাজশেই এলাকার প্রভাবশালী মহল অবৈধ এ বালু ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।
উল্লেখ্য বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপাড় জেলার ভূঞাপুর উপজেলার স্থানীয় বালু ব্যবসায়ীরা সিন্ডেকেট তৈরী করে অবৈধভাবে দীর্ঘদিন যাবৎ প্রশাসনের নাকের ডগায় বালু ব্যবসা করে যাচ্ছে। বালু ব্যবসায়ীরা দেদারসে অবৈধভাবে বাংলা ড্রেজারসহ বিভিন্ন নামে বেনামে অবাধে বালু উত্তোলন করছে। সরকারকে কোন প্রকার রাজস্ব না দিয়ে এরা দিনের পর দিন অবৈধভাবে বালু ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার সিরাজকান্দি, নিকরাইল ও গোবিন্দাসি এলাকায় পৃথক পৃথক ৮টি স্থানে ভূঞাপুর পৌরসভার মেয়রের নেতৃত্বে স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে আ.হাই, ফিরোজ, আ. সামাদ, মাসুদ মেম্বার, হাবিব মাস্টার, ফেরদৌস প্রমাণিক, দুলাল চকদার ও আ. মতিন সরকার সেতু বিভাগের পুকুরপাড় দিয়ে বালু পরিবহনের রাস্তা তৈরি করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও পরিবহন করে চলছে।
স্থানীয়রা জানান, নদীর তীরবর্তী এলাকার মানুষ হওয়াতে তাঁরা পারিপার্শ্বিক কারণেই অসহায়ভাবে জীবন যাপন করে আসছে। নদীতে ড্রেজার বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে প্রতিবছরই তাদের আবাদি জমি, ঘরবাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙ্গনের শিকার হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যক্তি বলেন, স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে অবৈধ ভাবে ড্রেজার বসিয়ে ওই প্রভাবশালীরা দীর্ঘদিন যাবৎ বালু ব্যবসা করে আসছে। বালু উত্তোলনের কারণে এলাকায় প্রতিবারই ভাঙ্গন দেখা দেয়। বালু ব্যবসায়ীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না।
এ ব্যাপারে নিকরাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মতিন সরকার সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমরা সিরাগঞ্জরে বৈধ বালু মহল থেকে বালু ক্রয় করে এনে ভূঞাপুরের বিভিন্ন ঘাটে বালু বিক্রির জন্য স্তুপ করে রাখা হয়। আামার নেতৃত্বে বাগানবাড়ী ঘাট পরিচালিত হয়। বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের বিষয়ে তিনি জানান, নদীতে পানি কমে যাওয়ায় ঘাট নিচের দিকে চলে এসেছে। ট্রাক যেন সরাসরি ঘাটে আসতে পারে সেজন্য বাংলা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করা হয় রাস্তা বানানোর জন্য।
ভূঞাপুর পৌরসভার মেয়র মাসুদুর রহমান মাসুদ জানান, আমি কোন বালু ব্যবসার সাথে জড়িত নই। একটি মহল যারা আমার নির্বাচনেও বিরোধীতা করেছেন তারাই আমাকে জড়িয়ে মিথ্যা সংবাদ দিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছে।

এ রকম আরোও খবর

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ