ভূঞাপুরে সড়ক সংস্কারের নামে কোটি টাকা আত্মস্যাতের অভিযোগ

প্রকাশিত : ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮
গণবিপ্লব
রিপোর্ট

অভিজিৎ ঘোষ:

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার প্রায় ৩৬ কিলোমিটার চলাচলের অযোগ্য সড়ক দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার কাজ না করা হলেও একটি ভালো সড়কের সংস্কার কাজ টেন্ডার ও নামমাত্র কাজ করিয়ে কোটি টাকা আত্মস্যাতের অভিযোগ উঠেছে এলজিইডির অসাধু কর্মকর্তা ও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। অপর দিকে কর্মকর্তাদের মৌখিক নির্দেশ আছে বলে সিডিউল পরিবর্তন করে তড়িঘরি করে কাজ করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। সরকারি বিপুল অংকের টাকা হরিলুটের জন্য ঠিকাদার ও এলজিইডি’র অসাধু কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে এলাকাবাসী।

জানা যায়, চলতি বছরে এলজিইডি কর্তৃপক্ষ ভূঞাপুর-টাঙ্গাইল সড়কে সিংগুরিয়া বাজার হতে উপজেলার নিকরাইল বাজার পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৬ কিলোমিটার ভালো সড়ক খানাখন্দ দেখিয়ে সংস্কারের জন্য ১ কোটি ২৭ লাখ টাকার দরপত্রের আহ্বান করলে কাজ পান ভূঞাপুরের স্থানীয় অবনি এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান।
স্থানীয়দের অভিযোগ, সংস্কার কাজে পুরাতন সড়ক ভেঙ্গে নতুন করে সড়ক নির্মাণসহ দুই পাশে তিন ফুট করে মাটি ভরাটের কথা থাকলেও তা দায়িত্বপ্রাপ্ত ভূঞাপুর উপজেলা এলজিইডির সহকারি প্রকৌশলী মিন্টু মিয়া ও জেলা এলজিইডির প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদারকে ঘুষ দিয়ে এবং তাদের উপস্থিতিতে পুরাতন সড়কের উপরে ১০ থেকে ১৫ মিলিমিটার পাথর কুচি ও বিটুমিন ফেলে কাজ করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তাদের অভিযোগ, এলজিইডির অসাধু কর্মকর্তাদের বিপুল অংকের টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যেই ভালো সড়ক নামেমাত্র কাজ করছে।

অপরদিকে এলজিইডি কর্তৃক গত বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তার তালিকায় এ রাস্তার নাম না থাকলেও টেন্ডার দিয়ে বিপুল পরিমান অর্থ আতœসাতের বিচার চেয়েছে তেমনি তালিকাভুক্ত আরো ৩৬ কিলোমিটার খানাখন্দ রাস্তা সংস্কারের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

সিডিউল মোতাবেক না হওয়ার কথা স্বীকার করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা জানান, এলজিইডির কর্মকর্তাদের নির্দেশে ও তাদের উপস্থিতিতেই সংস্কার কাজ করা হচ্ছে।
এবিষয়ে ভূঞাপুর এলজিইডির সহকারি প্রকৌশলী মো. মিন্টু মিয়া জানান, আমি আমার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের মৌখিক নির্দেশেই সিডিউল পরিবর্তন করে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।
এ দিকে মৌখিক নির্দেশের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে টাঙ্গাইল এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার জানান, এ রাস্তায় অনেক লোক যাতায়াত করে সেই জন্যই করা হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে সবই আমরা করতে পারবো।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ